ঢাকাবৃহস্পতিবার , ১৯ মার্চ ২০২০
আজকের সর্বশেষ সবখবর

১৯ মার্চ ১৯৭১

অনলাইন এডিটর
মার্চ ১৯, ২০২০ ১১:০১ পূর্বাহ্ণ
Link Copied!

নুরুজ্জামান মানিক
নির্বাহী সম্পাদক

ঢাকার অদূরে গাজীপুরে পাকিস্তানি সেনাদের বিরুদ্ধে প্রতিরোধযুদ্ধে নামে সংগ্রামী জনতা। এর আগে ঢাকা, চট্টগ্রাম, রংপুর, রাজশাহীসহ দেশের বিভিন্ন স্থানে পাকিস্তানি সেনা ও জনতার মধ্যে বিচ্ছিন্ন-বিক্ষিপ্ত সংঘর্ষের ঘটনা ঘটলেও এদিনই প্রথম শুরু হয় সংগ্রামী জনতার সশস্ত্র প্রতিরোধযুদ্ধ। এ লড়াইয়ে হুরমত, নিয়ামত, মনু খলিফাসহ অর্ধশত শহীদ ও দুই শতাধিক লোক আহত হন। বিক্ষুব্ধ মানুষ জয়দেবপুর থেকে চৌরাস্তা পর্যন্ত আড়াই মাইল রাস্তা ইট ও কাঠের গুঁড়ি ফেলে শত শত ব্যারিকেড সৃষ্টি করে। লাঠি ও বন্দুক নিয়ে প্রতিহত করে পাকিস্তানি বাহিনীকে। রচিত হয় বাংলার স্বাধীনতা আন্দোলনে বাঙালির সশস্ত্র প্রতিরোধসংগ্রামের প্রথম ইতিহাস। সন্ধ্যায় সেনাবাহিনী গাজীপুরে অনির্দিষ্টকালের জন্য সান্ধ্য আইন জারি করে এবং খোয়া যাওয়া অস্ত্রশস্ত্র অনুসন্ধানের নামে নিরীহ-নিরপরাধ মানুষের ওপর পাশবিক অত্যাচার চালায়। গ্রামে গ্রামে, বাড়ি বাড়ি ঢুকে নির্যাতন করে নারী-পুরুষকে। সকালে যখন জয়দেবপুর ও গাজীপুরে চলছিল পাকিস্তানি সেনাদের সঙ্গে বাঙালির সশস্ত্র যুদ্ধ, ঠিক তখন ঢাকার প্রেসিডেন্ট হাউসে চলছিল মুজিব-ইয়াহিয়া তৃতীয় দফার বৈঠক। ঐ বৈঠকেও শেখ মুজিব আবারও জোর দিয়ে বলেন যে সংকট উত্তরণের একমাত্র পথ হলো অবিলম্বে সামরিক আইন প্রত্যাহার করে নির্বাচিত গণপ্রতিনিধিদের কাছে ক্ষমতা অর্পণ করা এবং এ লক্ষ্যে অন্তর্বর্তী সময়ের জন্যে একটি অন্তর্বর্তী ব্যবস্থা আদেশ জারি করা। তিনি বলেন, প্রেসিডেন্টের ফরমান বলেই ঐ আদেশ জারি করা যেতে পারে। বৈঠক শেষে আলোচনার অগ্রগতি সম্পর্কে সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে শেখ মুজিব বলেন, ‘সবচাইতে ভালো কিছুর আশা করছি এবং সবচাইতে খারাপের জন্যও প্রস্তুত রয়েছি। সম্ভবত এই জবাবের অর্থ ছিল, আলোচনায় আরো অচলাবস্থার সৃষ্টি হয়েছে। সন্ধ্যায় ইয়াহিয়ার এবং শেখ মুজিবের উপদেষ্টা জনাব তাজউদ্দীন আহমদ, সৈয়দ নজরুল ইসলাম এবং ড. কামাল হোসেনের মধ্যে দুই ঘণ্টা ধরে আলোচনা চলে।

 

 

 

Developed By The IT-Zone