ঢাকাবৃহস্পতিবার , ১৬ এপ্রিল ২০২০
আজকের সর্বশেষ সবখবর

১৬ এপ্রিল ১৯৭১

অনলাইন এডিটর
এপ্রিল ১৬, ২০২০ ২:০৫ অপরাহ্ণ
Link Copied!

নুরুজ্জামান মানিক,নির্বাহী সম্পাদক।।

রাঙামাটির খাগড়া রেস্ট হাউসে অবস্থানরত পাকিস্তানি বাহিনীর একজন অফিসারসহ এক প্লাটুন সৈন্যের ওপর ক্যাপ্টেন আফতাব কাদেরের নেতৃত্বে মুক্তিযোদ্ধারা আক্রমণ চালায়। এ সংঘর্ষে অফিসারসহ ২০ জন পাকিস্তানি সৈন্য নিহত হয়। মুক্তিযোদ্ধাদের কোনো ক্ষয়ক্ষতি হয়নি।

কুমিল্লার গঙ্গাসাগর ব্রিজে মুক্তিযোদ্ধাদের প্রতিরক্ষাব্যূহে পাকিস্তানি বাহিনী প্রবল গুলিবর্ষণ করে। মেজর আবু ওসমান চৌধুরীর নেতৃত্বাধীন মুক্তিবাহিনীর সদর দপ্তর চুয়াডাঙ্গা থেকে মেহেরপুরে স্থানান্তরিত হয়। রাতে আবার মেহেরপুর থেকে ইছাখালী বিওপিতে সদর দপ্তর স্থানান্তর করা হয়। সকাল ১১টায় পাকিস্তানি সেনারা পার্বতীপুর থেকে ১টি ট্যাংকসহ ভারী অস্ত্রশস্ত্রে সজ্জিত হয়ে মুক্তিযোদ্ধাদের ভবানীপুরের হাওয়া গ্রামের ডিফেন্সের ওপর আক্রমণ চালায়। এ যুদ্ধে ৮ জন মুক্তিযোদ্ধা শহীদ হন। ভেড়ামারায় অবস্থানরত মুক্তিযোদ্ধাদের সাথে পাকিস্তানি বাহিনীর তীব্র সংঘর্ষ হয়। পাকিস্তানি বাহিনীর প্রবল আক্রমণে সুবেদার মোজাফফর তার বাহিনী নিয়ে পিছু হটেন। ফলে ভেড়ামারা পাকিস্তানি বাহিনীর দখলে চলে যায়। দিনাজপুর শহরও পাকিস্তানি বাহিনীর দখলে চলে যায়। পাকিস্তানি বাহিনী ময়মনসিংহ জেলা দখল করতে সমর্থ হয়। এরপর পাকিস্তানি বাহিনী হত্যা, লুণ্ঠন, ধর্ষণ, অগ্নিসংযোগ চালিয়ে যেতে থাকে। মুক্তিবাহিনী কুমিরা থেকে সীতাকুণ্ড এসে অবস্থান নেয় এবং প্রতিরক্ষাব্যূহ তৈরি করে। পাকিস্তানি বাহিনী কুষ্টিয়া দখল করে এবং সারা শহরে ত্রাসের রাজত্ব কায়েম করে।

সামরিক কর্তৃপক্ষ ঢাবির শিক্ষক ও কর্মচারীদের অবিলম্বে কাজে যোগদানের নির্দেশ দেয়। কেন্দ্রীয় শান্তি কমিটির কার্যনির্বাহী কমিটির সদস্যদের নাম ঘোষণা করা হয়। সন্ধ্যায় নুরুল আমিনের নেতৃত্বে শান্তি কমিটির নেতৃবৃন্দ গভর্নর টিক্কা খানের সাথে দেখা করে জানান, শত্রু নিধনে তারা সেনাবাহিনীকে সহযোগিতা করবেন এবং নিজেরাও দায়িত্ব পালন সক্রিয় হবেন। সন্ধ্যায় পাকিস্তানি বাহিনী ব্রাহ্মণবাড়িয়া শহরের উপকণ্ঠে এসে পৌঁছায়। অ্যান্ডারসন খালে অবস্থানরত চতুর্থ বেঙ্গলের ক্যাপ্টেন আইনউদ্দিনের কোম্পানি তাদের অবস্থান ছেড়ে আখাউড়া রেলওয়ে ব্রিজের দুপাশে ব্রাহ্মণবাড়িয়ার দিকে মুখ করে ডিফেন্স তৈরি করে।

Developed By The IT-Zone