ঢাকামঙ্গলবার , ১৪ এপ্রিল ২০২০
আজকের সর্বশেষ সবখবর

১৪ এপ্রিল ১৯৭১

অনলাইন এডিটর
এপ্রিল ১৪, ২০২০ ১২:২১ অপরাহ্ণ
Link Copied!

নুরুজ্জামান মানিক,নির্বাহী সম্পাদক।।

বাংলা নববর্ষ উপলক্ষে স্বাধীন বাংলা বেতার কেন্দ্র থেকে প্রদত্ত এক ভাষণে প্রধানমন্ত্রী তাজউদ্দীন আহমদ বাংলাদেশের মুক্তাঞ্চল সফরের জন্য বিশ্বের সকল বার্তাজীবী এবং রাজনৈতিক ও কূটনৈতিক পর্যবেক্ষদের প্রতি আমন্ত্রণ জানান। তিনি সকল বন্ধুরাষ্ট্রের সরকার ও জনগণ এবং আন্তর্জাতিক সংস্থা যথা রেডক্রস ইত্যাদির প্রতি সরাসরি বাংলাদেশ কর্তৃপক্ষের সাথে যোগাযোগ করার অনুরোধও জানান।

সারা দিন ব্রাহ্মণবাড়িয়াতে পাকিস্তানি বাহিনী বিমান হামলা চালায়। পাশাপাশি আশুগঞ্জেও পাকিস্তানি বাহিনীর বিমান আঘাত হানে। এ হামলায় বহু নিরীহ মানুষ ও মুক্তিযোদ্ধা শহীদ হয়। পাকিস্তানি বাহিনীর একটি ব্রিগেড কুমিল্লা সেনানিবাস থেকে ব্রাহ্মণবাড়িয়ার দিকে অগ্রসর হয়। পাকিস্তানি বাহিনী উজানিসার ব্রিজের কাছে মুক্তিযোদ্ধাদের অবস্থানের কাছে এলে মুক্তিযোদ্ধারা ব্যাপক আক্রমণ চালায়। এ যুদ্ধে পাকিস্তানি বাহিনীর একজন অফিসারসহ ১৭৩ জন সৈন্য নিহত হয়।

সারা দিন মধুপুর গড়ে মুক্তিযোদ্ধা ও পাকিস্তানি বাহিনীর মধ্যে প্রচণ্ড যুদ্ধ হয়। এ যুদ্ধে আধুনিক মারণাস্ত্রে সজ্জিত পাকিস্তানি বাহিনী প্রাণ বাঁচাতে পিছু হটে কালিহাতী ও ঘাটাইল অঞ্চলে অবস্থান নেয়। প্রথম বেঙ্গল রেজিমেন্ট চৌগাছা থেকে হেডকোয়ার্টার তুলে নিয়ে বেনাপোলের ৩ মাইল পূর্বে কাগজপুর গ্রামে স্থাপন করে এবং যশোর বেনাপোল রাস্তার দুধারে প্রতিরক্ষাব্যবস্থা গড়ে তোলে। দিনাজপুরের খানসামা এলাকায় অবস্থানরত মুক্তিযোদ্ধাদের ওপর নীলফামারী থেকে আসা পাকিস্তানি বাহিনী আক্রমণ চালায়। পাকিস্তানি বাহিনীর হঠাৎ আক্রমণে মুক্তিযোদ্ধারা বিচ্ছিন্নভাবে পিছু হটে। ঠাকুরগাঁও পঞ্চগড় এলাকায় মুক্তিযোদ্ধাদের প্রতিরক্ষাব্যূহ পাকিস্তানি বাহিনী আক্রমণ করে এবং আগুনে বোমার সাহায্যে পঞ্চগড় শহরকে সম্পূর্ণরূপে জ্বালিয়ে দেয়। মুক্তিযোদ্ধারা শহর ছেড়ে অমরখানায় ডিফেন্স নেয়। সকাল ৯টায় পাকিস্তানি বাহিনী কুড়িগ্রামের খলিলগঞ্জ এসে জেলখানার উত্তরে অবস্থান গ্রহণ করে। পাকিস্তানি সেনারা জেল অফিসে কর্মরত হেডক্লার্ক ও সেপাইসহ ৫ জনকে গুলি করে হত্যা করে। রাজশাহী শহরের লক্ষীপুর গার্লস স্কুলের সামনে পাকিস্তানি সেনারা ৩০ জনকে সমবেত করে। তার মধ্যে মঈনউদ্দিন, রতন ও মাসুদ রানা জীবনের ঝুঁকি নিয়ে দৌড়ে পালায়। বাকি সবাইকে পাকিস্তানি সেনারা গুলি করে হত্যা করে। কিন্তু সৌভাগ্যক্রমে মোশাররফ হোসেন সন্টু লাশের নিচে চাপা পড়ে আহত অবস্থায় বেঁচে যান। পাকিস্তানি বাহিনী সান্তাহার পৌঁছালে স্থানীয় বিহারিরা হানাদারদের সাথে মিলিত হয়ে আশপাশের গ্রামগুলো ঘেরাও করে এবং নারী-পুরুষনির্বিশেষে অগণিত মানুষকে হত্যা করে। এ হত্যাযজ্ঞ মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাসে সান্তাহার গণহত্যা নামে পরিচিত। পাকিস্তানি বাহিনীর দুটি কোম্পানি মুক্তিযোদ্ধাদের রাজারহাট ও কুলারঘাট অবস্থানের ওপর ব্যাপক আক্রমণ চালায়। এ সংঘর্ষে মুক্তিযোদ্ধারা স্থান দুটি ছেড়ে দিয়ে পিছু হটে। রাঙামাটি, খাগড়াছড়ি এলাকাতে ক্যাপ্টেন আফতাব কাদেরের নেতৃত্বে একটি কোম্পানি, বুড়িঘাট ও রাঙামাটির মধ্যস্থলে একটি কোম্পানি নিয়ে ক্যাপ্টেন খালেকুজ্জামান, রাঙামাটি ও বরকলের মধ্যস্থলে লে. মাহফুজ একটি কোম্পানি নিয়ে এবং কুতুবছড়ি এলাকাতে সুবেদার মোতালেব একটি কোম্পানি নিয়ে প্রতিরক্ষামূলক অবস্থান নেয়। মুক্তিবাহিনী প্রচণ্ড যুদ্ধের পর কুমিল্লার কসবা পাকিস্তানি সেনাদের কাছ থেকে পুনর্দখল করে নেয়। মুক্তিবাহিনী ও পাকিস্তানি বাহিনীর মধ্যে পাকশী সেতুর কাছে তীব্র সংঘর্ষ হয়।

ঢাকায় মৌলভি ফরিদ আহমদের সভাপতিত্বে শান্তি কমিটির স্টিয়ারিং কমিটির এক সভায় বাংলার স্বাধীনতাসংগ্রামকে ব্রাহ্মণ্যবাদীদের চক্রান্ত আখ্যা দিয়ে মুক্তিযোদ্ধাদের ধ্বংস করার শপথ নেওয়া হয়।

Developed By The IT-Zone