ঢাকাসোমবার , ১৩ এপ্রিল ২০২০
আজকের সর্বশেষ সবখবর

১৩ এপ্রিল ১৯৭১

অনলাইন এডিটর
এপ্রিল ১৩, ২০২০ ১১:৪৭ পূর্বাহ্ণ
Link Copied!

নুরুজ্জামান মানিক,নির্বাহী সম্পাদক।।পাকিস্তানি বাহিনী টাঙ্গাইল দখলের পর ময়মনসিংহ শহর দখলের লক্ষ্যে এগিয়ে এলে মধুপুর গড় এলাকায় মুক্তিযোদ্ধারা তাদের পথ রোধ করে। দুপক্ষের মধ্যে প্রচণ্ড গুলিবিনিময় হয়। শত্রুপক্ষের প্রবল গুলিবর্ষণেও মুক্তিযোদ্ধাদের একজনও নিহত বা আহত হয়নি। অপর দিকে পাকিস্তানি বাহিনীর দুজন ড্রাইভার ঘটনাস্থলে মারা যায়। এ যুদ্ধের উল্লেখ্যযোগ্য দিক হচ্ছে, মুক্তিযোদ্ধাদের সবাই ছিলেন অস্ত্রচালনায় অনভ্যস্ত ছাত্র।

পাকিস্তানি বাহিনী ব্রাহ্মণবাড়িয়া দখলের অভিযান শুরু করে। এ উদ্দেশ্যে তারা ব্রাহ্মণবাড়িয়া ও আশুগঞ্জে মুক্তিযোদ্ধাদের অবস্থানের ওপর বিমান হামলা চালায়। হেলিকপ্টারে আশুগঞ্জ পাওয়ার স্টেশনের পেছনের মাঠে সৈন্য নামানো হয়। জল, স্থল ও আকাশপথে পাকিস্তানি বাহিনীর সাঁড়াশি আক্রমণে টিকতে না পেরে আশুগঞ্জ ও লালপুরে নিয়োজিত দ্বিতীয় বেঙ্গলের সৈন্যরা তাদের অবস্থান ছেড়ে ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় চলে আসে। মেঘনা ব্রিজ ও আশুগঞ্জ পাকিস্তানি বাহিনীর দখলে চলে যায়।


সর্বদলীয় সংগ্রাম কমিটি ও কন্ট্রোল রুম ঠাকুরগাঁও মহকুমার বিভিন্ন স্থানে অবস্থানরত ২০টি প্রতিরক্ষা ক্যাম্প তুলে নিয়ে সীমান্তে অবস্থান নেয় এবং নেতৃবৃন্দ শহর ছেড়ে চলে যায়। গোয়ালন্দঘাটে পাকিস্তানি বাহিনীর সঙ্গে মুক্তিযোদ্ধাদের তুমুল লড়াই হয়। সুবেদার শামসুল হকের নেতৃত্বে মুক্তিযোদ্ধারা পাকিস্তানি বাহিনীর একটি জলযান ডুবিয়ে দেয়। এ লড়াইয়ে পাকিস্তানি বাহিনী পালিয়ে আত্মরক্ষা করে। সিলেট শহর সংলগ্ন লাক্কাতুরা চা-বাগানের অসংখ্য চা-শ্রমিককে পাকিস্তানি হানাদাররা গুলি করে হত্যা করে। নড়াইল শহর পাকিস্তানি বাহিনীর দখলে চলে যায়।  বগুড়া পাকিস্তানি বাহিনীর দখলে চলে যায়। বদরগঞ্জে পাকিস্তানি বাহিনী ট্যাংক নিয়ে মুক্তিযোদ্ধাদের ওপর আক্রমণ চালায়। পাকিস্তানি সেনাদের তীব্র আক্রমণে মুক্তিযোদ্ধারা পশ্চাদপসরণ করে। পাকিস্তানি বাহিনী ঠাকুরগাঁওয়ের ভাতগাঁয়ে সম্মুখযুদ্ধে না এসে খানসামার পথ ধওে পেছন থেকে আক্রমণের পরিকল্পনা করে। পরিকল্পনা মোতাবেক পাকিস্তানি সেনারা খানসামার কাছে একটি নদী পার হতে থাকলে মুক্তিযোদ্ধারা আক্রমণ চালায় এবং পাকিস্তানি বাহিনীর ৮ বালুচ ডি কোম্পানিকে সম্পূর্ণরূপে পর্যুদস্ত করে। বানেশ্বরে পাকিস্তানি সেনাদের সাথে তুমুল যুদ্ধে মুক্তিযোদ্ধারা ছত্রভঙ্গ হয়ে পড়ে। অনেক মুক্তিযোদ্ধা শাহাদাতবরণ করেন। বানেশ্বর ও সেই সঙ্গে সারদার পতন হয়। সারদায় পাকিস্তানি সেনা চলে আসায় বেসামরিক ও সামরিক বাহিনীর প্রায় দুই হাজার লোক নদীর ধারে আশ্রয় নেয়। পাকিস্তানি বাহিনী সবাইকে ঘিরে ফেলে এবং গুলি করে ও পেট্রল দিয়ে পুড়িয়ে প্রায় ৮০০ জনকে নৃশংসভাবে হত্যা করে। এ বেদনাদায়ক ঘটনাটি মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাসে সারদার গণহত্যা নামে খ্যাত। রাজশাহী সেনানিবাস এলাকায় অবস্থানরত মুক্তিযোদ্ধাদের ওপর পাকিস্তানি বাহিনী আর্টিলারি, পদাতিক ও বিমান হামলা চালায়। পাকিস্তানি সেনাদের এ আক্রমণে মুক্তিযোদ্ধারা পিছু হটে চাঁপাইনবাবগঞ্জ এলাকায় সমবেত হয় এবং গোদাগাড়ীতে প্রতিরক্ষাব্যূহ রচনা করে। বিকাল ৪টায় গঙ্গাসাগর ব্রিজে মুক্তিযোদ্ধাদের ওপর পাকিস্তানি বাহিনীর গোলন্দাজ দল গোলাবর্ষণ করে। এ যুদ্ধে পাকিস্তানি বাহিনীর ৩ জন অফিসারসহ অনেক সৈন্য মারা যায়। পাকিস্তানি বাহিনী পুনরায় রাজশাহী দখল করে।

Developed By The IT-Zone