ঢাকারবিবার , ১২ এপ্রিল ২০২০
আজকের সর্বশেষ সবখবর

১২ এপ্রিল ১৯৭১

অনলাইন এডিটর
এপ্রিল ১২, ২০২০ ১২:০১ পূর্বাহ্ণ
Link Copied!

নুরুজ্জামান মানিক,নির্বাহী সম্পাদক।।

পাকিস্তানি বাহিনী ট্যাংক ও ভারী অস্ত্রের সাহায্যে মুক্তিযোদ্ধাদের হাবরা ঘাঁটি আক্রমণ করে। মুক্তিযোদ্ধা ছত্রভঙ্গ হয়ে যায়। মুক্তিযোদ্ধাদের চারটি কোম্পানি ও একটি সাপোর্ট প্লাটুন সম্মিলিতভাবে লালমনিরহাট বিমানবন্দর এলাকাতে পাকিস্তানি বাহিনীর ওপর বড় রকমের আক্রমণ চালায়। এ লড়াইয়ে বেশ কিছু পাকিস্তানি সেনা নিহত হলেও শেষ পর্যন্ত পাকিস্তানি সেনাদের ব্যাপক আক্রমণের মুখে মুক্তিযোদ্ধারা তাদের ঘাঁটিতে ফিরে আসে।

ইস্ট বেঙ্গল ব্যাটালিয়নের পুরো বাহিনী কালুরঘাট থেকে রাঙামাটি চলে আসে এবং সেখানে প্রতিরক্ষাব্যূহ গড়ে তোলে। মহালছড়িতে ব্যাটালিয়নের হেডকোয়ার্টার স্থাপিত হয়। ভোরবেলা পাকিস্তানি বাহিনী আর্টিলারি সাপোর্টে যশোর ঝিকরগাছায় মুক্তিযোদ্ধাদের প্রতিরক্ষাব্যূহে ব্যাপক হামলা চালায়। প্রচণ্ড যুদ্ধে ইপিআর বাহিনীর দুজন ও বিএসএফ বাহিনীর একজন নিহত হয়। ইপিআর বাহিনী পুনরায় বেনাপোলের কাগজপুরে প্রতিরক্ষাব্যূহ গড়ে তোলে। সংসদ সদস্য ডা. জিকারুল হক, সমাজকর্মী তুলশীরাম, ডা. শামসুল হক, ডা. বদিউজ্জামান, ডা. ইয়াকুব আলী, যমুনা প্রসাদ, রামেশ্বর লাল আগরওয়ালাসহ গ্রেফতারকৃত সৈয়দপুরের প্রায় ১৫০ জন স্থানীয় নেতৃবৃন্দকে ১৯ দিন নির্মম অত্যাচার করে অবশেষে রংপুর সেনানিবাসের পশ্চিম পাশের উপশহরে নিয়ে গুলি করে হত্যা করা হয়।

পার্বতীপুরে মুক্তিযোদ্ধাদের অবস্থানের ওপর পাকিস্তানি বাহিনী পুনরায় গোলাবর্ষণ করে। মুক্তিযোদ্ধারা পিছু হটে। এ যুদ্ধে একজন মুক্তিযোদ্ধা শহীদ হন। নাটোরেও মুক্তিযোদ্ধাদের অবস্থানের ওপর পাকিস্তানি সেনারা ব্যাপক শেলিংয়ের মাধ্যমে আক্রমণ চালায়। এ আক্রমণে মুক্তিযোদ্ধারা পিছু হটে বানেশ্বরে গিয়ে ডিফেন্স নেয়। পাকিস্তানি বাহিনী তিস্তা পুলে অবস্থানরত মুক্তিযোদ্ধাদের প্রতিরক্ষাব্যূহে ভারী অস্ত্রের সাহায্যে তিন দিক থেকে আক্রমণ চালায়।

রাতে স্বাধীন বাংলা বেতার কেন্দ্র থেকে বাংলাদেশ সরকারের যুদ্ধকালীন মন্ত্রিসভার নাম ঘোষণা করা হয়। মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের ২৯ জন নাগরিক পাকিস্তানের প্রেসিডেন্ট ইয়াহিয়ার প্রেরিত এক আবেদনে অবিলম্বে পূর্ব বাংলার সমস্যা সমাধানের জন্য আইনগত প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণের আহ্বান জানান। ঢাকায় সামরিক কর্তৃপক্ষ শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলো ছাড়া সরকারি, স্বশাসিত, আধা স্বশাসিত সংস্থাগুলোর সকল কর্মচারীকে সর্বশেষ ২১ এপ্রিলের মধ্যে কাজে যোগদানের নির্দেশ দেয়। বেতার ভাষণে খান এ সবুর একটুও দয়া না দেখিয়ে মুক্তিযোদ্ধা ও সহযোগিতাকারীদের খতম করার আহ্বান জানায়। এমনকি সন্দেহজনক যেকোনো লোকের বিরুদ্ধেও ব্যবস্থা নিতে বলে। মুসলিম লীগ সভাপতি শামসুল হুদার নেতৃত্বে একটি প্রতিনিধিদল কসাই টিক্কা খানের সাথে সাক্ষাৎ করে এবং সর্বাত্মক সহযোগিতার আশ্বাস দেয়। শান্তি কমিটি গঠনের পর ঢাকায় প্রথম মিছিল বের করা হয়। মিছিলের পুরোভাগে নেতৃত্ব দেন অধ্যাপক গোলাম আযম ও মতিউর রহমান নিজামী। মিছিল শেষে অধ্যাপক গোলাম আযমের নেতৃত্বে মোনাজাত পরিচালিত হয়।

Developed By The IT-Zone