ঢাকাশনিবার , ১১ এপ্রিল ২০২০
আজকের সর্বশেষ সবখবর

১১ এপ্রিল ১৯৭১

অনলাইন এডিটর
এপ্রিল ১১, ২০২০ ১:১৯ অপরাহ্ণ
Link Copied!

নুরুজ্জামান মানিক,নির্বাহী সম্পাদক।।

ছবিঃ তাজউদ্দীন আহমদ ।সূত্রঃউইকিপেডিয়া।

প্রধানমন্ত্রী তাজউদ্দীন আহমদ স্বাধীন বাংলা বেতার কেন্দ্র থেকে জাতির উদ্দেশে এক ভাষণে বলেন, স্বাধীন বাংলাদেশ আর তার সাড়ে সাত কোটি সন্তান আজ চূড়ান্ত সংগ্রামে নিয়োজিত। আমাদের জয়লাভ করতেই হবে এবং আমরা যে জয়ী হব তা অবধারিত। তিনি আরো বলেন, স্বাধীন বাংলাদেশ সরকারের প্রধানতম লক্ষ্য হলো বাংলাদেশকে শত্রুর কবল থেকে মুক্ত করা। মনে রাখবেন, আমরা আজ শত্রুর ওপর পাল্টা হামলায় নিয়োজিত আছি। আমাদের এই মুক্তিসংগ্রামে ধর্ম, মত, শ্রেণি বা দল নেই। আমাদের একমাত্র পরিচয় আমরা বাঙালি, আমাদের শত্রুপক্ষ আমাদের বাঙালি হিসেবেই হত্যা করছে। তিনি নিম্নোক্তভাবে মুক্তিযোদ্ধাদের অবকাঠামো গঠনের কথা উল্লেখ করেন: ১. সিলেট ও কুমিল্লা অঞ্চলে বেঙ্গল রেজিমেন্টের খালেদ মোশাররফ, ২. চট্টগ্রাম ও নোয়াখালী অঞ্চলে মেজর জিয়াউর রহমান, ৩. ময়মনসিংহ ও টাঙ্গাইল অঞ্চলে মেজর সফিউল্লাহ, ৪. কুষ্টিয়া ও যশোর অঞ্চলে ইপিআরের মেজর আবু ওসমান।

চীনের প্রধানমন্ত্রী চৌ এন লাই পাকিস্তানের প্রেসিডেন্ট ইয়াহিয়ার কাছে প্রেরিত এক পত্রে বলেন, চীন সরকার মনে করে, বর্তমানে পাকিস্তানে যা ঘটছে, তা পাকিস্তানের ঘরোয়া ব্যাপার। তিনি পাকিস্তানকে আশ্বাস দেন, ভারত পাকিস্তানের ওপর হামলা চালালে চীনা সরকার ও জনগণ সব সময় পাকিস্তান সরকার ও জনগণকে তাদের রাষ্ট্রীয় সার্বভৌমত্ব ও জাতীয় স্বাধীনতা রক্ষার জন্য ন্যায্য সংগ্রামে দৃঢ় সমর্থন দেবে।

পাকিস্তানি সেনারা স্থানীয় দালালের সহায়তায় প্রথমে গোপালগঞ্জ প্রবেশ করে। পরে তারা মুক্তিযোদ্ধাদের ঘাঁটি মানিকহার আক্রমণ করে। পাকিস্তানি সেনাদের আধুনিক অস্ত্রের মুখে মুক্তিযোদ্ধারা ছত্রভঙ্গ হয়ে পড়লে তারা মানিকহার গ্রামটি জ্বালিয়ে দেয়। মুক্তিযোদ্ধারা কালীগঞ্জে অগ্রসরমাণ পাকিস্তানি বাহিনীকে অ্যামবুশ করে। এতে পাকিস্তানি বাহিনীর ৩টি গাড়ি বিনষ্ট হয় এবং ১০ জন সৈন্য নিহত হয়। ফুলবাড়ীতে পাকিস্তানি বাহিনীর সাথে তৃতীয় বেঙ্গল ব্যাটালিয়নের তীব্র যুদ্ধ হয়। পাকিস্তানি বাহিনীর প্রবল আক্রমণের মুখে ব্যাটালিয়ন চরখাই চলে আসে এবং সেখানে প্রতিরক্ষাব্যূহ গড়ে তোলে। পাকিস্তানি বাহিনী যাতে চরখাই আক্রমণ করতে না পাওে, সেজন্য ক্যাপ্টেন আশরাফের কোম্পানি ফুলবাড়ী চরখাই রোডে, মেজর আনোয়ার কোম্পানি ঘোড়াঘাট চরখাই ঘোড়াঘাট-চরখাই রোডে ডিফেন্স নেয় এবং লে. মোখলেসের কোম্পানিকে ডেপথ কোম্পানি হিসেবে রাখা হয়। সকালে পাকিস্তানি বাহিনী এলোপাতাড়ি গুলি ছুড়তে ছুড়তে ঈশ্বরদী প্রবেশ করে। এদের গুলিতে রেলগেটে মজিদ নামের একজন কুলি শহীদ হন। ঈশ্বরদীতে পাকিস্তানি বাহিনী প্রবেশের পরপরই অবাঙালিরা সক্রিয় হয়ে ওঠে। তারা ধারালো অস্ত্রশস্ত্র দিয়ে বাঙালি নিধন অভিযানে নামে। নূর মহল্লা ও ফতে-মো.পুর এলাকায় পাকিস্তানি বাহিনীর সাথে মিলে অবাঙালিরা হত্যাকাণ্ড ও লুটতরাজে অংশ নেয়। রাতে এ দুটি মহল্লায় তারা ৩২ জন বাঙালির প্রাণ হনন করে।

বেনাপোল সড়কে পাকিস্তানি বাহিনী ও মুক্তিযোদ্ধাদের মধ্যে সংঘর্ষ হয়। এতে উভয় পক্ষের বেশ কিছু সৈন্য হতাহত হয়। কালুরঘাটে মুক্তিযোদ্ধাদের অবস্থানের ওপর পাকিস্তানি বাহিনী আধুনিক মারণাস্ত্রের সাহায্যে আঘাত হানে। উভয় পক্ষের তুমুল যুদ্ধে ক্যাপ্টেন হারুন ও লে. শমসের মবিন আহত হন এবং বেশ কিছু পাকিস্তানি সেনা নিহত হয়। মুক্তিযোদ্ধারা কালুরঘাট ছেড়ে পটিয়ার দিকে চলে যান এবং পরে সেখান থেকে বান্দরবান রওনা হন। ঝিকরগাছায় মুক্তিযোদ্ধাদের সাথে পাকিস্তানি বাহিনীর তুমুল লড়াই হয়। এ লড়াইয়ে পাকিস্তানি সেনাদের প্রচুর ক্ষতি সাধিত হয়। এদিন লে. জেনারেল নিয়াজি পূর্ব পাকিস্তান কমান্ডের অধিনায়ক নিযুক্ত হন।

Developed By The IT-Zone