ঢাকাবুধবার , ২৭ জুলাই ২০২২
আজকের সর্বশেষ সবখবর

হাবিব স্যার : প্রেরণার বাতিঘর

ড. মোহাম্মদ আলী ওয়াক্কাস সোহেল
জুলাই ২৭, ২০২২ ১২:৩৬ অপরাহ্ণ
Link Copied!

জ্ঞানতাপস ক্ষণজন্মা মানবিক সামাজিক আলোকবর্তিকা হলেন অধ্যাপক এম হাবিবুর রহমান। শেষ নিঃশ্বাস অবধি যিনি শিক্ষা সামাজিকতা এবং সমাজ সংস্কারে ঈর্ষণীয় ভূমিকা রেখেছেন। জাগতিক ধরায় এ মহাপুরুষের আজ শরীরী অস্থিত্বের অনুপস্থিতি। কিন্তু তাঁর রেখে যাওয়া মহানুভবতা নেতৃত্বের প্রখরতা সময় জ্ঞান আপসহীনতা শিক্ষকদের প্রতি মমত্ববোধ ও টান প্রজন্মের মাঝে উৎসাহ এবং প্রেরণার মশাল হিসেবে কালান্তর রোশনাই বিলাবে।

সমাজে নানাবিধ অস্থিরতা অরাজকতা সম্পর্কের টানাপোড়ন এসব প্রপঞ্চের মাঝে এ মানুষের জীবন ও কর্ম অনুশীলন আজ বড্ড বেশি প্রয়োজন।আমরা কি পারছি যোগ্য সন্মান দিতে ? হীনমন্যতার শিকড় কোথায়? কেন জানি নিজেকে এসবে অসহায় লাগে! এক সময় এ সমাজের জ্ঞানীরা শিক্ষকতা কে প্রথম পছন্দ হিসেবে বেছে নিতেন।

রুটি-রুজির পরোয়া না করে বই এবং শিক্ষার্থীর মাঝে বিচরণে ই বেশ তৃপ্ত এবং আনন্দ উপভোগ করতেন। এমন ই একজন শিক্ষক আমাদের প্রিয় হাবিব স্যার। যিনি কিনা হবিগঞ্জের নবীগঞ্জ উপজেলার বাউসা গ্রামের ছেলে।

গ্রামের পাঠশালায় তার শিক্ষাজীবনের হাতেখড়ি।যুগলকিশোর উচ্চ বিদ্যালয় থেকে ম্যাট্রিকুলেশন পাশ করা এ বালক পরবর্তীতে প্রথম শ্রেণীতে প্রথম হয়ে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় পাঠ চুকিয়ে সমাজকর্ম বিষয়ে রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় অধ্যাপনা শুরু করেন। এ যেন পরম মওকা, যা হতে চেয়েছিলেন- তা দিয়ে ই পথ চলা। এসবে চরম পুলক অনুভব করতেন।

দিনের প্রথম প্রহর জানান দেয়, সামনের আগমন ক্ষণ কেমন যাবে। স্যারের পারিবারিক এবং সামাজিক ক্রিয়াদিতে সরব অংশগ্রহণই পরিপূর্ণ মানবের অবয়ব ফুটে ওঠে।যিনি কিনা স্বীয় সমাজ পরিবার আত্মীয় স্বজনের সাথে সম্পর্কের ক্ষেত্রে অনুকরণীয় ছিলেন।

চাকরি জীবনের শুরুতে রাজশাহীতে প্রভাষক হিসেবে মাসে মাত্র চারশো পঁচিশ টাকা মাইনে পেতেন।যা থেকে একশো টাকা চিকিৎসা বিজ্ঞানে অধ্যায়নরত ভাইকে পাঠাতেন।পাশাপাশি উনার ছোট ভাই এবং সহধর্মিনীর ভাইয়েরা ও তাঁর বাসায় থেকে পড়ালেখা করেছেন।

সামাজিক বিভিন্ন অনুষ্ঠানাদিতে এবং সমাজ সংস্কারক হিসেবে দূর্নীতি-অনিয়ম সামাজিক মূল্যবোধ ও ভালোবাসার স্তুতি আওড়াতেন। এ মানুষটি শিক্ষকতাকে প্রাণাধিক ভালোবাসতেন। একে নেশা হিসেবে ভাবতেন। চাকরি হিসেবে নয়। সমাজকর্ম কে ভালোবাসতেন। এবং প্রসারের স্বপ্ন দেখতেন।

চাকচিক্য এবং বাড়ি-গাড়ির প্রাপ্যতা তাঁকে এ আকর্ষণ থেকে ক্ষণিকের জন্য ও টলাতে পারেনি।পরিকল্পনা কমিশনে উপ পরিচালক হিসেবে থাকাকালীন পারিবারিক আপত্তি ঢাকায় থাকার মায়া নানাবিধ সুযোগ সুবিধা ও নীড়ে ফিরে যেতে বাঁধা হয়ে দাঁড়াতে পারেনি। এ মানুষটি স্বজন ও এলাকার টানে এবং সমাজকর্মের পালকে নতুন ঠিকানা তৈরীর ব্রতে ১৯৯২ সালে সিলেটের শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে যোগ দেন।

রাজশাহীতে সময়ের আগেই অবসরে যান।যার কারণে এ বিশ্ববিদ্যালয়ে একাধিক পে-স্কেল থেকে বঞ্চিত এবং আর্থিক সংকটের মুখোমুখি হন।তিনি ভাবতেন কিভাবে সমাজকর্মকে বিকশিত করা যায়। যার কারণেই কিনা উনি শুরুতে উপাচার্যের অনুরোধে রেজিস্ট্রারের দায়িত্ব পালন করলে ও সমাজকর্মের গোড়াপত্তনের মাধ্যমে বিভাগের ফিরে আসেন।

যিনি সবসময় বলতেন প্রশাসনিক দায়িত্বের মিশন নিয়ে সিলেট আসিনি, এটা আমার এলাকা এখানকার মানুষের মাঝে সমাজকর্মের জ্ঞান বিতরণ এবং পেশার সম্প্রসারণ ই আমার আগমনের লক্ষ্য। নিজেকে বেশ ধন্য ই মনে হয়, কারণ এ মানুষটির আমি সরাসরি ছাত্র।তিনি ভালবাসতেন মানুষকে পারস্পরিক শ্রদ্ধাবোধ সামাজিক সম্পর্ক নৈতিকতার চর্চা করতেন খুব বেশি।

তিনি খুবই মহানুভব ছিলেন। যেখানটায় সমাজে এর বড় অভাব।১৯৯৬ সালে আওয়ামী লীগ সরকার ক্ষমতায় এসে তাঁকে উপাচার্যের দায়িত্ব গ্রহণের আমন্ত্রণ জানান। সে সময় উনি বলেছিলেন বর্তমান উপাচার্যের মেয়াদ শেষ হওয়ার আগে দায়িত্ব গ্রহণ সম্ভব নয়। প্রয়োজনে উপ- উপাচার্যের পদে যেতে পারেন। যা থেকে উদারতা মহানুভবতা শ্রদ্ধাবোধের কিঞ্চিৎ ঝলক অনুভব করা যায়। অথচ এসব পদে মাটি কামড়ে আঁকড়ে থাকা এবং আসীন হওয়ার জোর তদবির ই মুখ্য। যা কিনা অবক্ষয়ের ইংগিত বহন করে।

সবসময়ই আলোচনার টেবিলে সমস্যা সমাধানে বিশ্বাস করতেন।সবার মতামতের প্রাধান্য দিতেন লেজুড়বৃত্তি এবং পদ আঁকড়ে থাকার মনবাসনা তার মাঝে কখনোই ফুটে ওঠেনি। আর আজ কি দেখি? শিক্ষক সমাজে যেন হীনমন্যতা এবং অস্থিরতার জেঁকে বসেছে। কোথায় যেন গলদ? জ্ঞান বিতরণের চেয়ে প্রশাসনিক পদ পদবী ই বেশি টানে।

জমি কেনাবেচা,রিসোর্ট ব্যবসা এবং পদ পদবি আঁকড়ে ধরে রাখার প্রতিযোগীতায় অনেকেই মত্ত। ভাব দেখে মনে হয় এসব পদ-পদবি যদি স্থায়ী হতো, তাহলে কতোইনা মজার হতো। এসব পদের প্রাক্তনদের চালচলনে হীনমন্যতা অস্থিরতা এবং হারানোর করুন আর্তনাদ চোখে পড়ে। যা হাবিব স্যার এর মাঝে কখনোই দেখিনি।

আজ এমন মানুষের বড়ই অভাব। এ মানুষটি আমাদের মাঝে নেই। নতুন প্রজন্ম কি জানে তাঁর পরিচয়? হবিগঞ্জের কীর্তিমান জ্ঞানতাপসের স্মৃতি রক্ষার্থে আমরা কি পেরেছি কিছু করতে? যে বিশ্ববিদ্যালয়ে জ্ঞান বিলাতে এসে আর্থিক ক্ষতির সম্মুখীন হয়েছিলেন।

শিক্ষক সমাজের নেতৃত্বের জায়গাটুকু যার গ্রীবে ছিল।সেই প্রিয় শাবিপ্রবি পরিবার কি তার ঋণ শোধে সামান্য ভূমিকা নিয়েছে? কেন নেয় নি?এসবের নানা প্রশ্ন!যেখানটায় যদু মধুরা নানা পদক পায়, আমার স্যার কি একুশে পদক বাংলা একাডেমীর মতো কোনো সম্মাননার মরণোত্তর মনোনয়নের অধিকার রাখেন না? এসবে আজ উনার কোন লাভ হবে না। তবে শিষ্য হিসেবে গৌরব পুলক এবং ভারমুক্ত অনুভব করতে পারব।

অসাম্প্রদায়িক তড়িৎকর্মা দক্ষ প্রশাসক এ মানুষটি সমাজের উচু নীচুুতে তফাৎ করতেন না। সবার জন্য তার দ্বার ছিল উন্মুক্ত।জ্ঞানের ফেরিওয়ালা হিসেবে সারা জীবন ই বই ও শিক্ষকতা বেশি পছন্দ করতেন। ছাত্রের সাফল্য সর্বদাই আপ্লুত হতেন তবে কক্ষচ্যুত হতেন না।হবিগঞ্জের সন্তান হিসেবে যখন আমি শাবিপ্রবিতে ভালো ফলাফল করছিলাম তখন তিনি ডেকে নিয়ে বলেছিলেন ভালোভাবে পড়াশোনা করো। কেউ যেন বলতে না পারে তুমি আমার জেলার হিসেবে আমার কাছ থেকে আলগা কদর পাচ্ছো।

যে বিষয়টি আজ ও মেনে চলার চেষ্টা করি।প্রয়াণ দিবসে স্যারের রেখে যাওয়া সততা সময় জ্ঞান মানুষের প্রতি ভালোবাসা এসব গুণাবলী যদি এ প্রজন্মের মাঝে ছড়িয়ে দেয়া যায় তবে ই এ মনীষীর জীবনাচরণ অনুশীলনের সার্থকতা আসবে। এ ক্ষণে চাওয়া হবিগঞ্জ সদরের কোন ভবন বা প্রতিষ্ঠান যদি তাঁর নামে নামকরণ করা যায় এবং শাবি কর্তৃপক্ষ এবং রাষ্ট্র যদি ওনাকে যোগ্য সম্মান টুকু দেয় তবে ই সম্মানিত হবে শিক্ষক ছাত্র সর্বোপরি জয় হবে মহানুভবতার এবং মানবতার। এবং সভ্যতার পালকে অহংকার গৌরব এবং স্বস্তির পয়গাম হাতছানি দেবে যা কিনা জাতি হিসেবে আমাদের কে আনন্দ দিবে।

অধ্যাপক , সমাজকর্ম বিভাগ, শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়।
ইমেইল: alioakkas@gmail.com

Developed By The IT-Zone