ঢাকাবৃহস্পতিবার , ২২ সেপ্টেম্বর ২০২২
আজকের সর্বশেষ সবখবর

হবিগঞ্জ -মৌলভীবাজার সীমান্তবর্তী এরা বরাক নদীর সেতু নির্মাণ কাজে ধীরগতি

মোফাজ্জল ইসলাম সজীব
সেপ্টেম্বর ২২, ২০২২ ৫:০৮ অপরাহ্ণ
Link Copied!

হবিগঞ্জ জেলা ও মৌলভীবাজার জেলার সীমান্তে অবস্থিত বহুল প্রতিক্ষিত এরা বরাক নদীর উপর সেতু নির্মান কাজের ধীরগতি।

খোঁজ নিয়ে জানা যায় -টিএম জেবি কনষ্ট্রাকশন এই কাজ টি সম্পন্নের দায়িত্ব পায়। ২০২১ সালের ২৩ ফেব্রুয়ারি আনুষ্ঠানিক ভাবে ভিত্তি প্রস্তর করেন মৌলভীবাজার-৩ আসনের সংসদ সদস্য নেছার আহমেদ ও হবিগঞ্জ-১ আসনের সংসদ সদস্য শাহ নেওয়াজ মিলাদ গাজী।

এখানে সেতু নির্মাণের ফলে দুই জেলার নতুন সংযোগ এর সিদ্ধান্ত নিয়ে কেশবচর-আউশকান্দি এরাবরাক নদী’র উপর সেতু ভিত্তি প্রস্তর স্থাপন করা হয় ।

ঢাকা-সিলেট মহাসড়কের নবীগঞ্জ উপজেলা আউশকান্দি থেকে আধা কিঃ কিঃ দূরে এই সেতু অপর দিকে মৌলভীবাজার সদর উপজেলার কেশবচর গ্রামে রাস্তাটি সংযোগ হবে রাস্তাটি। ৯৬ মিটার দৈর্ঘ সেতু ও ১০০ মিটার সংযোগ সড়কসহ ব্যয় ধরা হয়েছে প্রায় ৮ কোটি টাকা।

এ ব্যাপারে কথা হয়, স্থানীয় ব্যবসায়ী ও এলাকাবাসী জুয়েল চৌধুরীর সাথে তিনি জানান, আমার বাড়ি নবীগঞ্জ উপজেলায় হলেও আমার ব্যবসা প্রতিষ্ঠান নবীগঞ্জ উপজেলায় আউশকান্দি বাজারে দীর্ঘ ৪০ বছর যাবৎ ব্যবসার কাজে হবিগঞ্জ থেকে মৌলভীবাজার সদর খুব কাছে হওয়ায় যাতায়াত করা হত বাঁশের সাকো দিয়ে, এই এরাবরাক নদীর উপর ব্রীজ নির্মাণ হওয়ায় ৫ নং আউশকান্দি ইউনিয়ন নবীগঞ্জ ও মৌলভীবাজার জেলার ১ নং খলিলপুর ইউনিয়নে ৩০ – ৪০ টি গ্রামের মানুষের ব্রীজ নির্মাণ হওয়ায় যাতায়াতের মাধ্যম হিসেবে খুবই সহজ হয়েছে।

ব্রিজ হওয়ার পূর্বে ৫- ৬ কিলোমিটার দূরের রাস্তা পাড়ি দিয়ে মৌলভীবাজার জেলা থেকে নবীগঞ্জ উপজেলার আউশকান্দি কিংবা নবীগঞ্জ আসতে হতো এখন ব্রীজ স্থাপন হওয়ায় সরকার বাজার আউশকান্দি যাতায়াত সহজ হয়েছে।

এ বিষয় কথা হয়- টিএম জেবি প্রতিষ্ঠান কনষ্ট্রাকশনের মালিক লিটন রায়ের সাথে তিনি দৈনিক আমার হবিগঞ্জের প্রতিবেদক কে জানান, ২০২১ সালে ব্রীজের কাজ সম্পন্নের দায়িত্ব পায় তার প্রতিষ্ঠান, ৭ কোটি টাকার নির্মাণ কাজে ব্যায় হওয়ার কথা থাকলে ও এই পর্যন্ত ৮ কোটিতে গিয়ে দাঁড়িয়েছে।

জানতে চাওয়া হয় নির্মাণ কাজে ধীরগতি কেন? তিনি জানান ব্রীজ থেকে আরও ৩২০ মিটার হাইওয়ে রোডের সাথে কানেকশন এলজিইডি অফিসে গাফিলতির কারণে হ্যান্ডওভার দেওয়া লেট হচ্ছে না হয় জানুয়ারি মাসেই কাজ সম্পুর্ণ হত। অফিস যদি রিভাইজ দ্রুত প্রতিষ্ঠানের কাছে হস্তান্তর করেন অক্টোবর মাসের ভিতরে ব্রীজ এর কাজ হবে বলে জানান।

Developed By The IT-Zone