ঢাকামঙ্গলবার , ৬ ডিসেম্বর ২০২২
আজকের সর্বশেষ সবখবর

হবিগঞ্জ মুক্ত দিবস উপলক্ষে কমান্ড্যান্ট মানিক চৌধুরী পাঠাগারে আলোচনা সভা

বিশেষ প্রতিনিধি
ডিসেম্বর ৬, ২০২২ ৭:২৮ অপরাহ্ণ
Link Copied!

আজ (মঙ্গলবার) ছিল ঐতিহাসিক ৬ ডিসেম্বর। এইদিনটি হবিগঞ্জ মুক্ত দিবস হিসেবে ইতিহাসে খ্যাত।

জানা যায়, মুক্তিযুদ্ধের উপ-সর্বাধিনায়ক মেজর জেনারেল এম এ রব (বীর উত্তম) ও মেজর জেনারেল এজাজ আহমেদ চৌধুরীর নির্দেশে ভারতের খোয়াই বাঘাই ক্যাম্পের ২২ কোম্পানির ১ নং প্লাটুন কমান্ডার আব্দুস শহীদের নেতৃত্বে ৩৩ মুক্তিযোদ্ধা ৩ ডিসেম্বর হবিগঞ্জের বাহুবলে অবস্থান নেন।

এর পর তারা কয়েকটি ভাগে বিভক্ত হয়ে হবিগঞ্জের বিভিন্ন পাক ক্যাম্পে হামলা চালান। এ সময় পাকিস্তানি সেনাবাহিনীর বেশ কয়েকজন সৈন্য প্রাণ হারায়। একটানা ৩ দিনের অভিযানের পর ৬ ডিসেম্বর ভোরে পাকিস্তানি বাহিনী পালিয়ে যায়।

এদিন কমান্ডার (অবসরপ্রাপ্ত) সুবেদার আব্দুস সহিদের নেতৃত্বে মুক্তিযোদ্ধা সৈয়দ মোস্তাফিজুর রহমান বাচ্চু, শুকুর মিয়া, সিরাজুল ইসলাম, সিরাজ মিয়া, রইছ আলী, আব্দুল কুদ্দুছ, আবু মিয়া, আব্দুল লতিফ, গিয়াস উদ্দিন, কালা মিয়া, ছাবু মিয়াসহ ৩৩ সদস্যের মুক্তিযোদ্ধার এ দলটি বিজয়ী বেশে হবিগঞ্জ শহরে প্রবেশ করেন। তারা সারা শহর প্রদক্ষিণ করে সদর থানায় বাংলাদেশের পতাকা উত্তোলন করেন।

এই দিনটিকে স্মরণীয় করে রাখতে মঙ্গলবার সকাল ১০টায় হবিগঞ্জের প্রাণকেন্দ্র পুরাতন হাসপাতাল সড়কে স্থাপিত কমান্ড্যান্ট মানিক পাঠাগার একটি আলোচনা সভার আয়োজন করে।

অধ্যক্ষ ইকরামুল ওয়াদুদের সভাপতিত্বে আয়োজিত উক্ত সভায় শহীদদের সম্মান প্রদর্শন পূর্বক নীরবতা পালন, জাতীয় সংগীতের মাধ্যমে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ও সকল বীর মুক্তিযোদ্ধাসহ শহীদদের স্মরণ করা হয়।

বীর মুক্তিযোদ্ধা ও শহীদ পরিবারের সদস্যদের উপস্থিতিতে কমান্ড্যান্ট মানিক চৌধুরী পাঠাগার ভবনের বেদীতে মুক্তিযুদ্ধের অমর কথামালায় উজ্জীবিত হয়ে ওঠে দর্শক সারীর সাধারণ মানুষ।

এই সময় মানিক চৌধুরী পাঠাগারের সভাপতি অধ্যক্ষ ইকরামুল ওয়াদুদ পাঠাগারের নিয়মিত আয়োজনে সকলের সহযোগিতা কামনা করলে সবাই পাঠাগারের সহযোগিতায় সন্তোষ প্রকাশ করেন।

ঐতিহাসিক ৬ ডিসেম্বর হবিগঞ্জ মুক্ত দিবসের ইতিহাস তুলে ধরে বীর মুক্তিযোদ্ধা কাজী গোলাম মর্তুজা কমান্ড্যান্ট মানিক চৌধুরী, মেজর জেনারেল এম এ রব বীর উত্তম , মোস্তফা শহীদ, মোস্তফা আলী, প্রথম শহীদ মফিল হেসেন, হাফিজ উদ্দিনসহ সকল বীর মুক্তিযোদ্ধা ও নারী মুক্তিযুদ্ধদের সম্মান প্রদর্শন করেন।

এছাড়াও সভায় বক্তব্য রাখেন বীরাঙ্গনা নারী মুক্তিযোদ্ধা প্রয়াত মালতী রানীর মেয়ে সন্ধ্যা রানী, শায়েস্তাগঞ্জ খাদ্য গুদামের শহীদ পরিবারের সদস্য নওশাদ মিয়া ও আলি মিয়া ।

উক্ত অনুষ্ঠানটি পরিচালনা করেন৷ কমান্ড্যান্ট মানিক পাঠাগারের প্রতিষ্ঠাতা আমাতুল কিবরিয়া কেয়া চৌধুরী। অনুষ্ঠানে আরও উপস্থিত ছিলেন মুক্তিযুদ্ধ গবেষক ও সাংবাদিক নুরুজ্জামান মানিক, সাংবাদিক এম এ ওয়াহেদ, সাংবাদিক এম এ রাজা ও হবিগঞ্জের গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গ ।

Developed By The IT-Zone