ঢাকাবৃহস্পতিবার , ৭ জুলাই ২০২২
আজকের সর্বশেষ সবখবর

হবিগঞ্জ জেলার গরু-ছাগলের হাটে মাত্রাতিরিক্ত হাসিল রেইট : ২শ টাকার হাসিল ১৮শ টাকা

আতাউর রহমান ইমরান
জুলাই ৭, ২০২২ ৯:৩৯ পূর্বাহ্ণ
Link Copied!

হবিগঞ্জ জেলার বিভিন্ন গরু-ছাগলের হাটবাজারে মাত্রাতিরিক্ত হাসিল রেটের কারনে গরু ছাগলের ক্রেতারা হাসিল প্রদান করতে হিমশিম খাচ্ছেন। এ ব্যাপারে এর আগেৈ নিক আমার হবিগঞ্জে সংবাদ প্রকাশের প্রেক্ষিতে জেলা প্রশাসন হাসিল রেইট যৌক্তিক ভাবে সমন্বয় করা হবে বলে জানালেও এখনো আগের রেটেই হাসিল আদায় চলছে বলে জানা যায়।

অনুসন্ধানে জানা যায়, ৩০ সেপ্টেম্বর ২০১৪ সালে হবিগঞ্জ জেলা স্থানীয় সরকার বিভাগের উপ-পরিচালক দিলীপ কুমার বণিক স্বাক্ষরিত সর্বশেষ হালনাগাদকৃত হাট বাজারের টোল চার্ট থেকে পাওয়া গরু, মহিষ, ছাগল ও ভেড়ার হাসিলের মূল্য তালিকায় দেখা যায় বাস্তবতা বিবর্জিত ও অযৌক্তিক হাসিলের রেট।

তালিকায় প্রতি ১ শত টাকা বিক্রয় মূল্য থেকে ৭ টাকা ধার্য করা হয় হাসিল। এভাবে গরু, মহিষের ক্ষেত্রে সর্বোচ্চ ১৮ শত টাকা ও ছাগল, ভেড়ার ক্ষেত্রে সর্বোচ্চ ৪ শত টাকা পর্যন্ত আদায় করার অনুমতি দেয়া হয়। অথচ দেশের অন্যান্য জেলার স্থানীয় সরকার বিভাগের দ্বারা তৈরিকৃত হাসিল রেট হচ্ছে, প্রতিটি গরু কিংবা মহিষের সর্বোচ্চ ২ শত থেকে ২ শত ৪০ টাকা পর্যন্ত, ছাগল ও ভেড়ার ক্ষেত্রে সর্বোচ্চ ৫০ থেকে ৭৫ টাকা।

এ বিষয়ে বগুড়া জেলা স্থানীয় সরকার বিভাগের উপ-পরিচালক মোঃ মামুনুর রশিদের সাথে দৈনিক আমার হবিগঞ্জ পত্রিকার পক্ষ থেকে যোগাযোগ করা হলে তিনি জানান, বগুড়া জেলায় গরু-মহিষের হাসিল রেট সর্বোচ্চ ২ শত টাকা। তবে এটিকে এখন হালনাগাদ করে ২ শত ১০ কিংবা ২ শত ২০ টাকা করার কাজ চলছে।

এছাড়া ২০১৭ সালে দৈনিক প্রথম আলো পত্রিকায় প্রকাশিত এ বিষয়ক একটি প্রতিবেদনে মেহেরপুর জেলা প্রশাসক পরিমল সিংহ বলেন, ‘হাসিল আদায়-সংক্রান্ত পৌরসভার নীতিমালা আছে। সেই অনুযায়ী, গরুপ্রতি ২০০ ও ছাগলপ্রতি ৫০ টাকা হাসিল দেবেন ক্রেতা। কোরবানি ঈদকে সামনে রেখে সরেজমিনে দেখা যায়, হবিগঞ্জ জেলার ১৪ টি স্থায়ী গবাদি পশুর হাটের ইজারাদার রা ১ হাজার থেকে ২ হাজার টাকা গরু প্রতি হাসিল হিসেবে আদায় করছেন।

৩ শত থেকে ৫ শত টাকা আদায় করছেন ছাগল ও ভেড়া প্রতি। চুনারুঘাট উপজেলার আমুরোড গরু বাজার, বাহুবল উপজেলার মিরপুর গরু বাজার, হবিগঞ্জ পৌর গরুর বাজার, লাখাই উপজেলার বামৈ গরু বাজার, মাধবপুর উপজেলার চেঙ্গা গরু বাজার, মাধবপুর পৌর গরু বাজার, আজমিরীগঞ্জ উপজেলার আজমিরীগঞ্জ গরুর বাজার, নবীগঞ্জ উপজেলার জনতা বাজার, বানিয়াচং উপজেলার সহ জেলার বিভিন্ন উপজেলার গবাদি পশুর হাট বাজার সরেজমিন অনুসন্ধান করে জানা যায় এ তথ্য।

সরকারি নীতিমালা অনুযায়ী গবাদি পশুর হাটের প্রকাশ্য স্থানে হাসিল বা খাজনার রেট সম্বলিত চার্ট লাগিয়ে রাখার কথা থাকলেও হবিগঞ্জ জেলার অনেক পশুর হাটে এ ধরনের চার্ট লাগানো নেই। ফলে ক্রেতা ও বিক্রেতা কেউই জানেন না হাসিলের সরকারি রেট কত।

জেলার বিভিন্ন উপজেলার হাট-বাজার ব্যবস্থাপনা কমিটির লোকজনের সাথে কথা বলে জানা যায় তারাও এ ব্যাপারে কোন সঠিক তথ্য জানেন না বলে জানান।

এ ব্যাপারে বানিয়াচং উপজেলা নির্বাহী অফিসার পদ্মাসন সিংহের সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি জানান, তিনি হাসিল রেইট কত তা জানেন না। গত বছরের রেইট ই এবছর ও আছে। তবে তিনি এটি সমন্বয় করার জন্য পদক্ষেপ নেবেন।

এ বিষয়ে হবিগঞ্জ জেলা স্থানীয় সরকার উপপরিচালক বিজেন ব্যানার্জী জানান, হাসিল রেইটের কাগজপত্র দেখে এ ব্যাপারে জানাবেন। এ বিষয়ে সচেতন মহল মনে করেন, এক দেশে দুই আইন হওয়ার কথা নয়। সারাদেশের সঙ্গে সামঞ্জস্যপূর্ণ করে হবিগঞ্জ জেলায় ও হাসিল রেট কার্যকর করা উচিত।

Developed By The IT-Zone