ঢাকাশুক্রবার , ১৭ এপ্রিল ২০২০
আজকের সর্বশেষ সবখবর

হবিগঞ্জ জেলাজুড়ে গ্রামাঞ্চলের মসজিদে মানা হচ্ছেনা নামাজ আদায়ের নির্দেশনা

দৈনিক আমার হবিগঞ্জ
এপ্রিল ১৭, ২০২০ ৬:৫২ অপরাহ্ণ
Link Copied!

শেখ শাহাউর রহমান বেলালঃ হবিগঞ্জ জেলাজুড়ে গ্রামাঞ্চলের মসজিদে গিয়ে  নামাজ আদায়ে মানা হচ্ছে না সরকারি নির্দেশনা। শুধুমাত্র জেলার শহর উপজেলার শহরের অধিকাংশ মসজিদেই পাঁচজনের অধিক মুসুল্লিদের নিয়ে নামাজ আদায়ের বিষয়টি লক্ষ্য করা গেলেও মানছেন না গ্রামের মসজিদগুলো। সরকারি নির্দেশনা ভঙ্গ করে গ্রামাঞ্চলে থাকা প্রায় মসজিদগুলোতে নামাজ আদায় করার অভিযোগ পাওয়া গেছে।
শুক্রবার (১৭ এপ্রিল) জুম্মার নামাজে অধিকাংশ মসজিদে দেখাযায়, দলবেধে মসজিদে প্রবেশ করতে। গা ঘেষে নামাজ পড়াসহ একে অপরের সাথে কথোপকথনেও ছিল ব্যস্ত। লক্ষ্য করা গেছে ছোট বড় অনেক মুসল্লির উপস্থিতি। এসময় প্রায় ৮০% লোকের মুখে মাস্ক ছিল না। নেই কোন সচেতনতার প্রভাব।

ছবি : সরকারের নির্দেশনা না মেনে নামাজ আদায় করছেন মুসল্লিরা

জেলার বিভিন্ন উপজেলায় ফোন করে খোঁজ নিয়ে জানা যায়, জেলার ৯টি উপজেলার গ্রামের মসজিদগুলোতে সরকারি নির্দেশ অমান্য করে দলে দলে মুসুল্লিরা মসজিদে নামাজ আদায় করছেন।
এদিকে করোনাভাইরাস সংক্রমণরোধে ধর্ম বিষয়ক মন্ত্রণালয় মুসুল্লিদের মসজিদের ভেতরে জমায়েত না হয়ে নিজ নিজ বাসস্থানে নামাজ আদায়ের নির্দেশে ও মসজিদ চালু রাখতে পাঁচ ওয়াক্তের নামাজে শুধুমাত্র ইমাম, মোয়াজ্জিন, খাদেমসহ ৫ জন এবং জুমার জামায়াতে অনধিক ১০ জন শরিক হতে পারার বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করে। তবে ধর্ম মন্ত্রণালয়ের এমন নির্দেশ মানা হচ্ছে না গ্রামের মসজিদ গুলোতে। এমনকি স্থানীয় জনপ্রতিনিধি ও ইমাম মুয়াজ্জিনগণ নিষেধ বা সতর্কতামূলক প্রচারএ নেই। এছাড়া আরও লক্ষ্য করা গেছে যে, দীর্ঘ সময় নিয়ে ইমামগণ বিভিন্ন বিষয় নিয়ে ধর্মীয় আলোচনাও করছেন। অতচ ধর্ম মন্ত্রণালয় বাংলা অনুবাদ বা আলোচনা না করার জন্য এবং দীর্ঘ সময় মসজিদে অবস্থান না করার জন্য ইমাম সাহেবগণদের প্রতি আহবান জানিয়ে বিজ্ঞপ্তী প্রকাশ করে। কিন্তু এসবের কোনটাই মানছেন না ইমাম সাহেবসহ গ্রামের মুসল্লীরা।

ছবি : ছবিটি শায়েস্তাগঞ্জ উপজেলার ব্রাহ্মণডুরা ইউনিয়ন থেকে জুম্মার নামাজের সময় তোলা।

এবিষয়ে হবিগঞ্জ জেলা ইসলামিক ফাউন্ডেশনের উপ পরিচাল মোঃ শাহ মনিরুজ্জান বলেন, জেলা ও উপজেলার প্রত্যেক মসজিদের ইমাম ও কমিটিকে মোবাইলে অবহিত করা হয়েছে। যদি মসজিদে ৫ জনের বেশি মুসুল্লি নামাজ আদায় করতে যায়, তাহলে সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখতে বলা হয়েছে। তিনি বলেন, সরকার মসজিদে প্রবেশ বা নামায নিষেদ করেনি। যেহেতু করোনা ভাইরাসটি সক্রামনব্যাধি এ জন্য প্রত্যেকর জীবন রক্ষার্থে সামাজিক দুরত্ব বজায় রেখে চলাচল করতে হবে। স্কুল, কলেজ, অফিস- আদালত সব বন্ধ করা হয়েছে মরণব্যাধি মহামারি থেকে নিজেকে বাঁচানোর জন্য। আমরা সচেতন করছি এবং কঠোরভাবে নির্দেশনা দেয়া হচ্ছে। আশা করি সবাই মেনে চলবে।
হবিগঞ্জ সদর নির্বহী কর্মকর্তা মোঃ শাখাওয়াত হোসেন রুবেল বলেন, ধর্ম বিষয়ক মন্ত্রণালয় থেকে যে নির্দেশনা দেয়া হয়েছে সেগুলোর চিঠি জেলা-উপজেলায় পাঠানো হয়েছে ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য। এছাড়া এলাকাজুড়ে জনসাধারণকে সচেতন করতে মাইকিং করা হয়েছে। প্রশাসন, পুলিশ ও সেনাবাহিনী এ বিষয়ে সচেতনতার কার্যক্রম পরিচালনা করেছে। এরপরও যদি কোনও মসজিদে জমায়েত হয়ে নামাজ আদায় করা হয় তাহলে ওই মসজিদের সভাপতির বিরুদ্ধে যথাযথ আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

Developed By The IT-Zone