ঢাকামঙ্গলবার , ২১ জুলাই ২০২০
আজকের সর্বশেষ সবখবর

হবিগঞ্জে ৯০জন শিল্পীর তালিকায় উঠেনি গুণী শিল্পীদের নাম : পাননি অনুদানও

দৈনিক আমার হবিগঞ্জ
জুলাই ২১, ২০২০ ৫:২১ অপরাহ্ণ
Link Copied!

স্টাফ রিপোর্টার যে দেশে গুনীজনের কদর নেই সেই দেশে গুনীজন জন্ম গ্রহন করেননা! কথাটা বাস্তব সত্য। তবে হবিগঞ্জের বেলায় এই কথাটি আরো পাকাপোক্ত হয়ে উঠছে দিনদিন। সম্প্রতি সংস্কৃতি মন্ত্রণালয় জেলার শিল্পকলা একাডেমি অসহায় ও অস্বচ্ছল শিল্পীদের নাম তালিকা করে তাদেরকে আর্থিক অনুদান প্রদান করেছে হবিগঞ্জ জেলা শিল্পকলা একাডেমি।

অভিযোগ রয়েছে, জেলার নামকরা ও স্বনামধন্য শিল্পীদের নাম বাদ দিয়ে অনুদান প্রদান করা হয়েছে । গুণী শিল্পীদের নাম তালিকায় না থাকায় বিষয়টি নিয়ে সর্বত্র রসালো আলোচনা সৃষ্টি হয়েছে। এটা নিয়ে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকেও চলছে তুমূল লেখালেখি। বর্তমানের হবিগঞ্জে বাবু স্বদেশ দাস,আবু মোতালেব খান লেবু,আকরাম আলী,কাজল গোপ,প্রাণ কৃষ্ণ ও বাউল মাতাল প্রাণেশ অন্যতম। এদের মতো শিল্পীদের বাদ দিয়ে হবিগঞ্জের সংগীতাঙ্গন কল্পনা ই করা যায়না।

তবে মজার বিষয় হলো এই নামকরা শিল্পীদের নাম বাদ দিয়ে জেলা শিল্পকলার মেয়াদবিহীন এডকম কমিটির সদস্য আবুল ফজল,সিদ্ধার্থ বিশ্বাস ও শামিম আহমেদ তাদের নিজেদের পছন্দমতো শিল্পীদের নাম দিয়ে অনুদান প্রদান করেছেন।

হবিগঞ্জের গুণী শিল্পীদের মধ্যে একজন কাজল চন্দ্র গোপ। হবিগঞ্জের সংগীত জগতের একজন প্রিয় মানুষের নাম। একজন সংগীত শিল্পী,একজন গানের গুরু একজন আপাদমস্তক সংস্কৃতি কর্মী। প্রায় চল্লিশ বছর ধরে গানের সাথে যুক্ত, একজন সংগীত শিক্ষক হিসেবে যথেষ্ট সফল একজন গানের গুরুও। সংগীত শিল্পী হিসেবেও উনি বাংলাদেশ বেতার এবং টেলিভিশনের তালিকা ভুক্ত কন্ঠশিল্পী। তারই সৃষ্টি লাক্স সুপার স্টার তন্বী দেব সহ আরো অনেক গানের শিল্পী যারা এখন হবিগঞ্জের সংগীতাঙ্গনকে বিশ্বের বুকে হবিগঞ্জকে সন্মানীত করছেন।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বাংলাদেশের করোনায় সবচেয়ে ক্ষতিগ্রস্ত শিল্পী সমাজের পাশে দাঁড়ানোর জন্য বাংলাদেশ সংস্কৃতি মন্ত্রনালয় কর্তৃক সব জেলাতেই শিল্পীদের সন্মানী বাবদ ৫ হাজার টাকা করে অনুদান প্রদান করেছেন। সব জেলায় একবারে প্রদান করা হলেও হবিগঞ্জের বর্তমান জেলা প্রশাসক সংস্কৃতি মন্ত্রনালয়ে কর্মরত ছিলেন বিধায় জেলা প্রশাসক তার ক্ষমতাবলে হবিগঞ্জের শিল্পীদের জন্য দুইবার এই অনুদানের ব্যবস্থা করেন। দুই বারে ৯০ জন শিল্পীকে ৫হাজার টাকা করে ৪লাখ ৫০হাজার টাকা প্রদান করেছেন।

 

ছবি : হবিগঞ্জ জেলা শিল্পকলা একাডেমির মূল ভবন

 

তালিকায় নাম ও অনুদান না পাওয়ার বিষয়টি নিয়ে গুণী শিল্পী কাজল চন্দ্র গোপ সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে একটা পোস্ট করেছেন। তিনি লিখেছেন- আর কতো দিন গান করলে সংগীত শিক্ষা দান করলে আমিসহ তালিকায় নাম না থাকা শিল্পীরা স্বীকৃতি পাব?কষ্ট সম্মানীর জন্য নয় সম্মানের জন্য। দুই দফা নব্বই জন শিল্পীকে প্রণোদনা সম্মানী দিলেও এর মধ্যে আমাদের নাম না থাকায় খুব কষ্ট পেলাম। তিনি প্রশ্ন রেখে বলেন আর কতো দিন গান করার পর শিল্পী হিসেব স্বীকৃতি হবিগঞ্জ থেকে পাব। এটা ফেসবুকে দেয়ার পর বিষয়টি নিয়ে অনেকেই তাদের মনের ক্ষোভ জানিয়ে তার পোস্টোর নিচের কমেন্ট করেন।

৭১টিভির জেলা প্রতিনিধি শাকিল চৌধুরী তার কমেন্টে বলেন-যারা কাজ করে তাদের কখনই মূল্যায়ন করা হয়না। আর যদি তেল মারেন তাহলে মূল্য থাকব। আরেক সাংবাদিক এশিয়ান টিভির প্রতিনিধি এসএম সুরুজ আলী বলেছেন-হবিগঞ্জের সংগীত জগতের একজন অভিভাবককে যারা মূল্যায়ন করতে পারলো না তারা অকৃতঞ্জ ছাড়া আর কিছু নয়। আশা করি কাজল দা কে সম্মানিত করা হবে। প্রতিভাবান শিল্পী সুমন বাউলিয়ানা লিখেছেন-শুনে খুব দু:খ পেলাম পরোপকারী,সাংস্কৃতিককর্মীদের দু:খ দুর্দশা দেখার জন্য এক মহান মানুষ আমাদের বটগাছ আমাদের গর্ব প্রিয় আশিক ভাই। আপনিই একমাত্র ব্যক্তি যে আমাদের আমাদের জন্য কথা বলেন সবসময়। কাজল দাসহ প্রকৃত শিল্পী যারা বাদ পড়েছে তাদেরকে অবশ্যই সম্মানীর আওতায় আনতে হবে।

দৈনিক আজকালের খবর পত্রিকার জেলা প্রতিনিধি সাংবাদিক সুকান্ত গোপ লিখেছেন-বেশি কিছু বলে লাভ নেই। জানিনা বলা ঠিক হবে কিনা তারপরও না বলে পারছিনা। তেলবাজি আর লবিং না করতে পারাই শ্রদ্ধেয় গুণী শিল্পীদের তালিকার বাহিরে রাখা হয়েছে। বিশ্বজিৎ কুমার নামে আরেক লিখেন-হায়রে মানুষ আমরা কতটা নির্দয় আর মুর্খ জাতি। দাঁত থাকতে দাঁতের মর্ম বুঝতে পারিনা। সৌরভ পুরকায়স্থ নামে আরেক ফেসবুক ইউজার বলেছেন-বিষয়টা সাম্প্রদায়িক নয়কি ? উনার পোস্টে তিনজন শিল্পীর কথা উল্লেখ করা আছে তারা সবাই হিন্দু। এবং তারা কেউ টাকাও পাননি। আশ্চর্য না বিষয়টা। এরা কি হিন্দু হয়ে জন্মে পাপ করেছে। গৌরী রায় নামে একজন লিখেছেন-হবিগঞ্জের সংস্কৃতির এই একচেটিয়া রাজত্বের অবসান চাই। সবাই একত্রিত হোন। শিল্পী মৃনাল বাবু বলেছেন-সত্যি বিষয়টা দু:খজনক। এর রকম আরো অনেকেই তাদের ক্ষোভ জানিয়ে কমেন্ট করেছেন।

বিষয়ট নিয়ে কথা হয় হবিগঞ্জ তথা সারাদেশের ফোক গানের যুবরাজ আশিকের সাথে। তিনি দৈনিক আমার হবিগঞ্জকে জানান, দেখেন কাজল গোপ,ওস্তাদ স্বদেশ দাস,কন্ঠশিল্পী আকরাম আলী ভাই,বাউল প্রাণকৃষ্ণ এরা আমাদের গর্ব করার মত মানুষ। আমি যখন দেখলাম যে জেলার ৯০ জন শিল্পীর মধ্যেও উনাদের নাম নেই,আমি ভীষন ভাবে মর্মাহত হই। আপনি এটাকে শুধুমাত্র ভুল বলেই উড়িয়ে দিতে পারেননা? কারন বর্তমান সময়ে যে দুইজন ওস্তাদ সব থেকে এক্টিভ তাদের দুইজনের নামই বাদ পড়লো? যে জায়গায় উনাদের নাম থাকা উচিৎ ছিল এক এবং দুই নম্বরে,অথচ উনাদের নাম নব্বই জনের মধ্যেও নেই। এটা মেনে নেয়া যায়না।

এখানে উনাদের চরম অবমুল্যায়ন করা হয়েছে। আমি ব্যক্তিগত ভাবে এর তীব্র নিন্দা এবং যারা এই জঘন্য কাজটি করেছেন উনাদের বলবো আপনারা এই গুণী মানুষদের ডেকে এনে যে কোন উপায়ে খুশি করুন। কারন এরাই একেকজন আশিক তৈরির কারখানা। এর জন্য একমাত্র দায়ী জেলা শিল্পকলা একাডেমীর নির্বাচিত কোন কমিটি না থাকার কারনে। আমি কর্তৃপক্ষকে বলবো অতিসত্বর শিল্পকলা একাডেমীর নতুন কমিটি করে একজন শিল্পীর হাতে শিল্পকলার দায়িত্ব হস্তান্তর করার। কারন একজন শিল্পীই শিল্পীর দু:খ বুঝবে। আল্লাহর ওয়াস্তে শিল্পকলাকে রাজনীতি মুক্ত করা হোক।

তবে খোঁজ নিয়ে জানা গেছে-এই শিল্পীকলা একাডেমির যারা ই দায়িত্বে আছেন তারাই একজন প্রভাবশালী নেতার আশির্বাদপুষ্ট। উনি যখন যা বলবেন তারা তা ই করতে বাধ্য হন। কাকে তালিকায় রাখবেন না রাখবেন সব নির্ভর করে ওই নেতার মর্জির উপর। এককথায় সবকিছুতেই চলছে এই নেতার একক আধিপত্য। তবে শিল্পকলা একাডেমির দায়িত্ব তাদেরকে ই দেয়া হোক যারাই ই সংগীতাঙ্গন বা সাংস্কৃতিক কর্মকান্ডের সাথে জড়িত। না হলে প্রকৃত শিল্পীরা কোন মুল্যায়ন পাবেনা। এমনটা ই জানিয়েছেন হবিগঞ্জের একাধিক শিল্পী।

বিষয়টি নিয়ে জেলা শিল্পকলা একাডেমির এডহক কমিটির সদস্য শামিম আহমেদের সাথে কথা হলে তিনি দৈনিক “আমার হবিগঞ্জ”কে জানান,তালিকা বিভিন্নভাবে করা হয়েছে। কাউকে ইচ্ছে করে বাদ দেয়া হয়নি। যারা বাদ পড়েছে আমরা চেষ্টা করে যাচ্ছি তাদেরকে আগামী ঈদের আগেরই প্রণোদনা দেয়ার।

 

বর্তমানে জেলা শিল্পকলা একাডেমির দায়িত্বে থাকা এনডিসি প্রতীক মন্ডল এর সাথে কথা হলে তিনি দৈনিক “আমার হবিগঞ্জ”কে জানিয়েছেন-গুণী শিল্পীদের মধ্যে আকরম আলীর নাম অন্য (বাৎসরিক) তালিকায় থাকায় তাকে দেয়া হয়নি। ইতিমধ্যে আমরা বাদ পরাদের তালিকা করে সংস্কৃতি মন্ত্রণালয়ে পাঠিয়েছি। সেখান থেকে তালিকাভুক্ত হয়ে আসলে দিতে পারব। তবে কবে নাগাদ দিতে পারব আমি বলতে পারছিনা। সেটা মন্ত্রণালয়ের বিষয়। তারপরও যদি কেউ বাদ পরে থাকে আমাকে জানালে তা সংশোধন কে আমি এড করে নিব।

Developed By The IT-Zone