ঢাকাশনিবার , ১৮ এপ্রিল ২০২০
আজকের সর্বশেষ সবখবর

হবিগঞ্জে লকডাউনের নামে চলছে ‘চোর-পুলিশ খেলা’

দৈনিক আমার হবিগঞ্জ
এপ্রিল ১৮, ২০২০ ১:০৩ অপরাহ্ণ
Link Copied!

শেখ শাহাউর রহমান বেলাল:: সামাজিক দূরত্বটুকুও মেনে চলছেন না অনেকেই। পুলিশ কিংবা ভ্রাম্যমাণ আদালত দেখলে সরে পড়ছেন আড্ডাবাজরা। প্রশাসন চলে গেলে আবার ফিরে আসে একই চিত্র। প্রতিদিন এ যেন চোর-পুলিশ খেলা চলছে। এছাড়া অনেকেই সড়ক ও মহাসড়ক দিয়ে বিভিন্ন স্থানে যাতায়াতও করছেন।

ছবি : একটি গ্রামের প্রবেশমুখ গাছ ফেলে লকডাউন করে দিয়েছে এলাকাবাসী 

হবিগঞ্জ জেলায় মনিটরিং থাকা সত্ত্বেও জেলা শহরসহ গ্রাম-গঞ্জে, সাপ্তাহিক হাটসহ বাজারে অধিকাংশ মানুষ মানছেন না মরণঘাতী করোনা প্রতিরোধে সামাজিক দূরত্ব কর্মসূচি। আইনশৃংখলা রক্ষাবাহিনী সড়কে দিয়ে যাবার পরপরই লোকজন ঘর থেকে দল বেধে সড়কে চলাচল করছে। আড্ডা দিচ্ছে চায়ের দোকানসহ বিভিন্ন স্থানে। আবার আইনশৃংখলা রক্ষা বাহিনীর সদস্যদের দেখলে আড়ালে একটু সরে যাচ্ছে। একইভাবে শহরে প্রাইভেটকার, মটর সাইকেল ও মাইক্রোবাসও চলছে অবাধে। আইনশৃংখলা রক্ষা বাহিনীর সদস্যদের সাথে সামাজিক দুরত্ব কর্মসূচি পালন না করা সমাজ ও রাষ্ট্র বিরোধীদের এক ধরনের ‘চোর-পুলিশ খেলা’ চলছে হবিগঞ্জে।

ছবি : বাঁশ দিয়ে রাস্তা বন্ধ করে লকডাউন করা হয়েছে

একদিকে, মাছ বাজার, কাচাঁ বাজারেও ৩ ফুটের সামাজিক দুরত্ব কর্মসূচি না মেনে ব্যাপক জনসমাগম হচ্ছে। জেলা সদরের মতো উপজেলা শহরসহ গ্রাম-গঞ্জ, সাপ্তাহিক হাটসহ বাজারে অধিকাংশ মানুষ মানছেন না মরণঘাতী করোনা প্রতিরোধে সামাজিক দুরত্ব কর্মসূচি। এই অবস্থায় জেলা ও উপজেলা প্রশাসন সন্ধ্যা ৬টার পর থেকে ঔষধের দোকান ছাড়া প্রতিদিন অন্য সব ব্যবসা প্রতিষ্ঠান বন্ধের ঘোষণা দিয়েও বজায় রাখতে পারছেন না সামাজিক দুরত্ব।

 

জানা যায়, ২৬ মার্চ থেকে সামাজিত দুরত্বে থাকার জন্য নির্দেশনা দেয়া হয়। পাশাপাশি বন্ধ করে দেয়া হয় সব ধরনের গণপরিবহন ও জনসমাগম। একইসঙ্গে প্রবেশ ও বাহির পথ আটকিয়ে দেয়া হয়েছে বেশকিছু স্থানে। কিন্তু এখনো লকডাউনের আওতামুক্ত রয়েছে হবিগঞ্জ জে্লা। এছাড়া হবিগঞ্জ জেলার প্রবেশ মুখে চেকপোস্ট বসিয়ে চেক করা হলেও থামছেনা ঢাকা ও নারায়নগঞ্জ থেকে আসা মানুষের ঢল। প্রতিদিন প্রবেশ মুখ দিয়ে আইনশৃঙ্খলা বাহীনির চোখে ধুলো দিয়ে প্রবেশ করছে এসব মানুষ। ফলে করোনাভাইরাস ছড়িয়ে পড়ার আশঙ্কা থেকেই যায় জনমনে।

 

এদিকে হবিগঞ্জ জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে দুপুর ২টার পর ওষুধের ফার্মেসি ব্যতীত সকল দোকানপাট বন্ধ রাখার সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে। তা কার্যকর হলেও পাড়া-মহল্লায় কিছু কিছু দোকান খোলা রাখা হচ্ছে। প্রশাসনের উপস্থিতি টের ফেলে দোকানের সাটার নামিয়ে রাখেন বিক্রেতারা। কৌশলে চলে কেনাবেচা। এছাড়া নদীর পাড়ে, বড় বড় ব্রিজের আশপাশে চলে বন্ধুদের নিয়ে আড্ডা। সরকারি অফিস বন্ধ থাকায় তার আশপাশেও অপ্রয়োজনে সমাগম করছে তরুণ ও যুবকরা।

সরেজমিনে জেলার বেশ ক’টি গ্রাম ঘুরে দেখা যায়, যখন আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যরা টহল দেয় তখন মুহূর্তেই রাস্তাঘাট ফাঁকা হয়ে যায়। পরবর্তীতে তারা চলে গেলে অনেকেই অপ্রয়োজনে ঘোরাঘুরি করেন। বিশেষ করে হাটবাজারগুলোতে গাদাগাদি করে কেনাকাটা করছে নানা বয়সের মানুষ। সামাজিক দূরত্ব টুকুও মানছেন না অনেকেই।

এদিকে আবার কিছু কিছু গ্রামে স্বেচ্ছায় লকডাউনের নামে রাস্তায় বাঁশ ফেলে জন চলাচল বন্ধ করে দেয়া হয়। কিন্তু ঐসব গ্রামে ঢুকে দেখা যায়, প্রতিটি চায়ের দোকানে সকাল থেকে গভীর রাত পর্যন্ত চলে আড্ডাবাজি।

 

নাম প্রকাশ না করার শর্তে কয়েকজন ব্যাক্তি জানান, রাস্তায় বাঁশ ফেলে স্বেচ্ছায় লকডাউন দেয়া হয়েছে। বগিরাগত লোক প্রবেশসহ যানচলাচল নিষেধাজ্ঞা প্রয়োগ করলেও চায়ের দোকানে নিজেদের আড্ডা কমেনি। পুলিশ যেন লকডাউন দেখে গ্রামের ভেতরে  ঢুকতে না পারে এজন্য লুকোচুরি করা হচ্ছে প্রশাসনের সাথে। আর এদিকে পুলিশ না আসাতে নিশ্চিন্তে ব্যবসায়ীরা দোকান খুলে ব্যবসা করতে পারে এবং যুবক বৃদ্ধসহ সকলে এক সাথে আড্ডা দিতে পারে এজন্যই স্বেচ্ছায় লকডাউন দেয়া হয়েছে। যা এক প্রকার “চোর-পুলিশ খেলা” মনে করছেন সচেতন মহল।

 

সচেতন মহল মনে করেন, করোনা মোকাবেলায় সকলকে সচেতন হতে হবে। অপ্রয়োজনে আড্ডাবাজি বন্ধ করার পাশাপাশি সামাজিক দূরত্ব মেনে চলতে হবে। তা না, হলে সবার জন্য বড় ধরনের বিপদ অপেক্ষা করছে।

Developed By The IT-Zone