ঢাকাবৃহস্পতিবার , ৩ ফেব্রুয়ারি ২০২২
আজকের সর্বশেষ সবখবর

হবিগঞ্জে প্রতারণা ও এক্সরে জালিয়াতি : ২ আসামি রিমান্ডে

স্টাফ রিপোর্টার
ফেব্রুয়ারি ৩, ২০২২ ৪:৪০ অপরাহ্ণ
Link Copied!

বাহুবলে জালিয়াত ও প্রতারক মামলার আসামির ১ দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেছেন আদালত। রবিবার (৩০ জানুয়ারি) বিকেলে চীফ জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালত তাঁদের রিমান্ড মঞ্জুর করেন।

মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা বাহুবল মডেল থানার এসআই জসীম উদ্দিন জানান, মামলার এজাহারভুক্ত ৫ নম্বর আসামি মো. আলকাছ মিয়া ও ৬ নম্বর আসামি মোঃ ছাদেক মিয়া এই জনকে ১ দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেছেন আদালত।

তিনি আরো জানান, জালিয়াতি ও প্রতারণার ঘটনায় আদালতের আর্দেশে গত ১৭ ডিসেম্বর বাহুবল মডেল থানার এস আই ফুয়াদ আহমেদ বাদী হয়ে ৬ জনের নাম উল্লেখসহ অজ্ঞাতনামা আরো অনেক জনের বিরুদ্ধে জালজালিয়াতি ও প্রতারণা মামলা দায়ের করেন।

এ ঘটনায় কারাগারে বসবাসরত আসামিকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য আদালতে ৫ দিনের জন্য রিমান্ড চেয়ে আবেদন করা হয়। ৩০ জানুয়ারি রবিবার আবেদনের শুনানী হয় এবং তাদেরকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য চীফ জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট হারুনুর রশীদ ১ দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেন। এছাড়া মামলার বাকী আসামিদের ধরতে পুলিশের অভিযান অব্যাহত আছে।

মামলা সূত্রে জানা যায়, হবিগঞ্জ শহরের সদর হাসপাতালের নিকট বিলাস বহুল কনসালটেন্ট ডায়াগনষ্টিক সেন্টারের কর্মচারীরা দীর্ঘদিন ধরে জালিয়াতির মাধ্যমে ভূয়া এক্সরে রিপোর্ট দিয়ে সাধারণ মানুষকে হয়রানি ও ক্ষতিগ্রস্ত করে আসছে। বিনিময়ে তারা মোটা অংকের টাকা হাতিয়ে নেয়। এসব এক্সরে রিপোর্টের কারণে অনেক নিরপরাধ লোককে কারাগারে বাস করতে হয়।

উল্লেখ্য, গত ৩০ সেপ্টেম্বর বাহুবল উপজেলার পূর্বজয়পুর গ্রামের আখলাছ মিয়া বাদি হয়ে শিক্ষানবীশ আইনজীবি মিজানুর রহমান, সাংবাদিক নাজমুল ইসলাম হৃদয় ও জাহাঙ্গীর আলমসহ আরও বেশ কয়েকজনকে আসামি করে জখমীদেরকে গ্রিভিয়াস জখম দেখিয়ে মামলা করেন।

এরপর মামলার আসামি জাহাঙ্গীর মিয়া আদালতে হাজির হয়ে দরখাস্ত দিয়ে জখমীদের ইনজুরি জাল ও ভূয়া বলে অবগত করেন। আদালত এ বিষয়ে প্রতিবেদন দিতে বাহুবল থানার অফিসার ইনচার্জকে নির্দেশ দেন।

পুলিশ তদন্ত শেষে জখমী সাদেক মিয়া, আকলাছ মিয়াসহ অন্যান্যদের এক্সরে রিপোর্ট (ফিলিম) জাল ও ভূয়া বলে উল্লেখ করে প্রতিবেদন দেন। বিচারক প্রতিবেদনটি আমলে নিয়ে জালিয়াত ও প্রতারক চক্রের বিরুদ্ধে মামলা রুজুর জন্য বাহুবল থানার ওসিকে নির্দেশ দেন।

আদালতের নির্দেশ পেয়ে বাহুবল থানার এসআই ফুয়াদ আহমেদ বাদি হয়ে চুনারুঘাট উপজেলার জুরিয়া বড়বাড়ি গ্রামের বাসিন্দা আব্দুল খালেকের পুত্র কনসালটেন্ট ডায়াগনষ্টিক সেন্টারের এমডি ফারুক মিয়া, ছোট বহুলা গ্রামের রহমত আলীর পুত্র ম্যানেজার জুয়েল মিয়া, মার্কেটিং অফিসার শাহিন মিয়া, বাহুবল উপজেলার পূর্ব জয়পুর গ্রামের মৃত জাফর উল্লার পুত্র আকলাছ মিয়া ও সাদেক মিয়াসহ আরও কয়েকজনকে আসামি করে জালিয়াতচক্রের বিরুদ্ধে ৪৬৭/ ৪৬৮/ ৪৭১/ ৪২০/১০৯ প্যানাল কোডের ধারা মতে মামলা রুজু করেন। যার নং-১১, তাং-১৭-১২-২০২১ইং।

এ বিষয়ে মামলা আসামী কনসালটেন্ট এর এমডি ফারুক মিয়া জানান, আমাদের রিপোর্ট সঠিক। এ নিয়ে রোগী আলকাছ মিয়া ও তার সহযোগীরা যদি বাহির থেকে জালিয়াতি করে থাকে তবে আমার জানা নেই।

এছাড়া একই রকম মামলার ভুক্তভোগী সাবেক উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান বীর মুক্তিযোদ্ধা হাজী ফিরোজ বলেন, আলকাছ মিয়ার ভাই রাসেল মিয়া তেমনি একই রকম ভাবে ভূয়া এক্সরে রিপোর্ট দিয়ে আমার পরিবারের সদস্যদের উপর মামলা করে জেল কাটিয়েছে । তার এসব জালিয়াতির কারণে অনেক নিরপরাধ লোককে কারাগারে বসবাস করতে হয়।

তবে এ ঘটনার মূল হোতা ও জড়িতদের দৃষ্ঠান্তমূলক শাস্তি দাবী করেছেন ভুক্তভোগীসহ সচেতন মহল।

Developed By The IT-Zone