ঢাকাবুধবার , ১৭ আগস্ট ২০২২
আজকের সর্বশেষ সবখবর

হবিগঞ্জে ডা: আকলিমা তাহেরীর বিরুদ্ধে প্রাইভেট হাসপাতালে রোগী পাঠিয়ে টাকা আত্মসাতের অভিযোগ

তারেক হাবিব
আগস্ট ১৭, ২০২২ ৯:৩০ পূর্বাহ্ণ
Link Copied!

হবিগঞ্জ মাতৃমঙ্গল (মা ও শিশু কল্যাণ কেন্দ্র) হাসপাতালে অপারেশন করালে রোগী ও তার অনাগত বাচ্চা মারা যেতে পারে। এছাড়া সরকারি এই হাসপাতালের যন্ত্রপাতি মানসম্মত নয়। সুচিকিৎসার জন্য হবিগঞ্জ শহরের সূর্য্যমেূখী প্রাইভেট ক্লিনিকে নিয়ে পরীক্ষা ও অপারেশন করাতে হবে।

এমন কথা বলেই প্রাইভেট হাসপাতাল রোগী নিয়ে টাকা আত্মসাতের অভিযোগ উঠেছে হবিগঞ্জ মাতৃমঙ্গল (মা ও শিশু কল্যাণ কেন্দ্র) হাসপাতালের হাসপাতালের চিকিৎসক ডা. আকলিমা তাহেরী কলির বিরুদ্ধে। এ ঘটনায় গত রবিবার হবিগঞ্জ সিভিল সার্জনের কাছে লিখিত অভিযোগ দায়ের করেছেন ভুক্তভোগী এক স্বামী।

অভিযোগ সুত্রে জানা যায়, গত ১ ফেব্রুয়ারী প্রসব ব্যাথা নিয়ে হবিগঞ্জ মাতৃমঙ্গল (মা ও শিশু কল্যাণ কেন্দ্র) হাসপাতালে ভর্তি হন বাহুবল উপজেলার চক্রামপুর গ্রামের মোস্তাফিজুর রহমানের স্ত্রী শাকিরা বেগম। নরমাল ডেলিভারী করার পর্যাপ্ত সুযোগ সুবিধা থাকলেও বাচ্চার অবস্থা আশঙ্কাজনক বলে সিজার করতে হবে বলে পরামর্শ দেন ওই হাসপাতালের মেডিকেল অফিসার আকলিমা তাহেরী কলি।

এ সময় পরিবার কল্যাণ পরিদর্শিকা নাদিরা বেগম ও আকলিমা তাহেরী কলি ভুক্তভোগীকে বাচ্চা ও তার মা মরে যাওয়ার ভয় দেখিয়ে হবিগঞ্জ শহরের সূর্যমূখী জেনারেল হাসপাতালে নিয়ে যান।

পরিবার কল্যাণ পরিদর্শিকা নাদিরা বেগম ও আকলিমা তাহেরী কলি সূর্যমূখী জেনারেল হাসপাতাল কর্তৃপক্ষের সাথে কথা বলে মোটা অঙ্কের টাকার চুক্তিতে সিজার করান। সিজারে কন্যা সন্তান জন্ম নিলেও কয়েকদিন পর অপারেশনের জায়গা ফুলে ব্যাথা শুরু হয়।

সমস্যাটি তীব্র আকার ধারণ করলে শাকিরা ও তার স্বামী সার্জারী বিশেষজ্ঞ অধ্যাপক ডাঃ একেএম আজাদের দারস্থ হলে সেলাইয়ের ভেতর থেকে সিরিঞ্জের মাধ্যমে বিশাল পরিমানের জমাট বাধা রক্ত ও পুজঁ বের করেন।

রোগীকে বাচাঁতে ব্রাম্মণবাড়িয়া দ্যা ল্যাব এইড হাসপাতালে পুনরায় অপারেশন করা হয় ভুক্তভোগী শাকিরার। এ ঘটনায় অসহায় অবস্থায় লক্ষাধিক টাকা খরচ করেও জীবন শঙ্কটে আছেন বলেন জানিয়েছেন ভুক্তভোগী।

এ ব্যাপারে অভিযুক্ত ডাক্তার আকলিমা তাহেরীর সাথে যোগাযোগ করতে গত মঙ্গলবার (১৬আগস্ট) সকাল ১১ টায় মাতৃমঙ্গল (মা ও শিশু কল্যাণ কেন্দ্র) হাসপাতালে সরেজমিনে গিয়ে তার দেখা মেলেনি। পরে তার মোবাইল ফোনে যোগাযোগ করা হলে তিনি উত্তেজিত হয়ে দৈনিক আমার হবিগঞ্জকে বলেন, ‘আপনার সাহস বেশী আপনি আমাকে ফোন দিয়েছেন। কি হয়েছে না হয়েছে আপনাকে কেন বলব’।

পরিবার কল্যাণ পরিদর্শিকা নাদিরা বেগম জানান, ‘আমি আপনাকে কোন কিছু বলব না, যা করার করেন’। হবিগঞ্জের সিভিল সার্জন ডাঃ মোহাম্মদ নুরুল হক জানান, অভিযোগটি তদন্ত করে জরুরী ব্যবস্থা নেয়া হচ্ছে। কেউ আইনের উর্ধ্বে নন।

তদন্তে অভিযুক্ত চিকিৎসক দোষী হলে তার বিরুদ্ধে যথাযথ ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে। স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রণালয়ের স্বাস্থ্য সেবা বিভাগের সচিব ড. মুহাম্মদ আনোয়ার হোসেন হাওলাদার জানান, ইতিমধ্যে আমি অনুরোধ করছি ডাক্তারদের সরকারি হাসপাতাল থেকে ক্লিনিকে রোগী পাঠানো বন্ধ করতে।

চিকিৎসকরা সরকারি হাসপাতাল থেকে প্রাইভেট ক্লিনিকে রোগী পাঠানো বন্ধ না করলে তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

Developed By The IT-Zone