ঢাকাশুক্রবার , ১৫ জুলাই ২০২২
আজকের সর্বশেষ সবখবর

হবিগঞ্জে কোরবানির পশুর চামড়া নিয়ে বিপাকে ব্যবসায়ীরা

তারেক হাবিব
জুলাই ১৫, ২০২২ ৯:৫৯ পূর্বাহ্ণ
Link Copied!

কাঁচা চামড়া সংরক্ষণের ব্যয় বেড়েছে। এর মূল কারণ,লবণ ও শ্রমিকের বাড়তি খরচ। ব্যবসায়ীদের পাশাপাশি পশু জবাই দেয়া চামড়া নিয়ে
বিপাকে পড়েছে হবিগঞ্জের সাধারণ মানুষ। ছিল না কোন চামড়া ক্রয়ের মৌসুমী ব্যবসায়ী।

সারা দিন পশুর চামড়া পড়ে থাকতে দেখা যায় রাস্তার পাশে। পরে বিকেলে পড়ে থাকা চামড়া গুলো শহরের বিভিন্ন মাদ্রাসাও এতিমখানায় দান করে দেয়া হয়।

মাদ্রাসা ও এতিম খানার চামড়াগুলো সংগ্রহ করে রাতে স্থানীয় চামড়া ব্যবসায়ীদের কাছে বিক্রি করে দেয় নাম মাত্র মূল্যে। এদিকে, আড়তদাররা দাবি করেছেন, গত বছরের চেয়ে প্রতি বর্গফুটে ব্যয় বেড়েছে প্রায় ৩০ টাকা। তারপরও চামড়া বিক্রিতে গড়িমসি করছে মৌসুমি ব্যবসায়ীরা।

তাদের আশঙ্কা হচ্ছে, পশু কোরবানি কম হয়ে থাকলে এবার সংগ্রহের কাঙ্খিত লক্ষ্য পূরণ হবে না। অন্যদিকে, আরও ভালো দাম চান ফড়িয়ারা। সরকার বর্গফুটে দর বেধে দিলেও আড়তে বেচাকেনা হয় চোখের মাপে। সাথে চামড়ার ছুড়ির ভুল পোচ কিংবা স্পট মিললেই দর কমে যায় হু হু করে। আড়তদারদের অবস্থা এবার বেগতিক। তাদের দাবি, পর্যাপ্ত চামড়া কিনতে তারা প্রস্তুত।

সে অনুযায়ী লবণ আর কেমিক্যালও মজুদ হয়েছে। অথচ দাম ছাড়ছেন না মৌসুমি ব্যবসায়ীরা। এক আড়তদার বলেন, বহিরাগতদের দেখা যাচ্ছে মাঠে । সরকারের নির্ধারিত মূল্যেই আমরা মাল নিচ্ছি। কিন্তু অন্য অনেকেই দিক নির্দেশনা অনুসরণ না করে মাল নিয়ে যাচ্ছে।

আরেকজন জানান, আগে কেবল পোস্তার বাজারেই কাঁচা চামড়া আসতো। এখন যায় আরও দুই জায়গায়। মুনাফার কথা স্বীকার করলেন চামড়ার ফড়িয়ারাও। কোভিডের ক্ষতি সামলে নিতে মরিয়া সবাই। ফড়িয়াদের দাবি, বর্গফুটে অন্তত ১০ টাকা বেশি মিলছে। কিন্তু সরকারি রেটের চেয়ে আড়তে দাম কম।

তাই বিনিয়োগ করে বিপাকে কিছু মসজিদ আর মাদ্রাসাও। ফড়িয়ারা জানান, দাম কিছুটা বাড়তি, কিন্তু এটা তো চামড়ার মূল্য হয় না। বলতে গেলে একদমই মাগনা।

এটা এতিমদের সম্পদ। ব্যবসায়ী নেতারা বলছেন, কোরবানি দাতারা নিজের পশুর চামড়ার লবণ মাখিয়ে সংরক্ষণ করবেন, সেই উদ্যোগ ধোপে টেকেনি। অনেক ফড়িয়া আসছেন মানহীন চামড়া নিয়ে। তবে সার্বিক যোগানে প্রভাব পড়বে না।

এদিকে, ছামড়ার মূল্য ও সঠিক সংরক্ষণের বিষয়ে সরাসরি সার্বিক তদারকি করছেন হবিগঞ্জের জেলা প্রশাসক ইশরাত জাহান ও জেলা ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদপ্তরের সহকারী পরিচালক দেবানন্দ সিনহা।

Developed By The IT-Zone