ঢাকামঙ্গলবার , ২৮ এপ্রিল ২০২০
আজকের সর্বশেষ সবখবর

হবিগঞ্জে কোভিড-১৯ ‘টেষ্ট টেম্পারিং’ হচ্ছে কি? আওয়ামী লীগ নেতা শাহ ফখরুজ্জামানের প্রশ্ন!

অনলাইন এডিটর
এপ্রিল ২৮, ২০২০ ১২:১৩ পূর্বাহ্ণ
Link Copied!

স্টাফ রিপোর্টার॥ দৈনিক হবিগঞ্জ জনতার এক্সপ্রেস পত্রিকার এক বিশেষ কলামে হবিগঞ্জে কোভিড-১৯ টেষ্ট টেম্পারিং করা হতে পারে বলে মন্তব্য করেছেন হবিগঞ্জ জেলা আওয়ামী লীগের সাবেক উপ-দপ্তর সম্পাদক আইনজীবি ও সংবাদকর্মী শাহ ফখরুজ্জামান। গতকাল সোমবার পত্রিকায় প্রকাশিত এক কলামে হবিগঞ্জে করোনা টেষ্ট ল্যাব স্থাপনের দাবী জানাতে গিয়ে তিনি এরকম তথ্য দেন। বিষয়টি পত্রিকার অনলাইন মাধ্যমে প্রকাশের পর এ নিয়ে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে অনেকেই আলোচনা-সমালোচনার ঝঁড় তোলেন। পক্ষে-বিপক্ষে করেন নানান মন্তব্য। কেউ কেউ বলেন স্বার্থের জন্য কোভিড-১৯ টেষ্ট টেম্পারিং করাটা স্বাভাবিক আবার কেউ বিষয়টি সুষ্ঠভাবে তদন্তের দাবীও জানান।

অনলাইনে ভাইরাল হওয়ার পর অনেকেই ফোন করে বিষয়টি খতিয়ে দেখতে দৈনিক আমার হবিগঞ্জ কে অনুরোধও জানিয়েছে। শাহ ফখরুজ্জামান এর পত্রিকায় প্রকাশিত বিশেষ কলামের অংশটি হুবহু তুলে ধরা হলো, “ইদানিং আরেকটি বিষয় আমাদের কানে আসছে সেটি হল সরকারি কর্মকর্তাদের অনেকেই নাকি আইইডিসিআর এ লবিং করি রিপোর্ট টেম্পারিং করেন। এর উদ্দেশ্য সরকারের দেয়া ৫/১০ লাখ টাকার সুবিধা গ্রহণ অথবা নিজেকে ডিউটি থেকে কৌশলে সরিয়ে রাখা। তবে আমার কাছে এই কথা বিশ^াস হয়নি। তবে যেহেতু আমরা বাঙ্গালিরা সন্দেহপ্রবণ তাই এই সন্দেহ দূর করতে পজেটিভ রিপোর্ট আসাদের মাঝে দৈব চয়ন বাছাইয়ের মাধ্যমে পুনরায় নমুনা নিয়ে ভিন্ন কোন ল্যাবে পরীক্ষা করা যেতে পারে”।

এ ব্যাপারে হবিগঞ্জের জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ কামরুল হাসান জানান, সরকারী কর্মকর্তা-কর্মচারীরা জীবনের ঝুঁকি নিয়ে কাজ করেন। দায়িত্বের চেয়ে অর্থ তাদের কাছে খুবই তুচ্ছ। কোন সরকারী কর্মকর্তা কর্মচারীরা অর্থের জন্য টেষ্ট টেম্পারিং করতে পারেন না। তাছাড়া এ টেস্ট নির্ধারণ করেন থাকেন আইডিসিইিআর কর্তৃপক্ষ।

কোভিড-১৯ টেষ্ট টেম্পারিং এ কোন সুনির্দিষ্ট তথ্য আছে কি না জানতে চাইলে আইনজীবি ও সংবাদ কর্মী শাহ ফখরুজ্জামান বলেন, ‘আমার কাছে এ ব্যাপারে সুনির্দিষ্ট তথ্য নেই। আমার ধারণা হয়েছে তাই লিখেছি। তবে এ বিষয়টি আরও পর্যালোচনা করে দেখব’।

আইডিসিইিআর কর্তৃপক্ষের সাথে যোগাযোগ করা হলে একজন কর্মকর্তা জানান, আইডিসিইিআর থেকে কোন রিপোর্ট টেম্পারিং করার সুযোগ থাকে না। যারা নমুনা সংগ্রহ করে থাকেন সবাই এক্সপার্ট টেকনেশিয়ান। শুধু মাত্র একটি নাম্বারের উপর সনাক্ত করে টেস্ট রিপোর্ট প্রদান করা হয়।

এ ব্যাপারে বাংলাদেশ পুলিশের হেডকোর্টার্স এর গুজব মনিটরিং এর সাথে যোগাযোগ করা হলে একজন পুলিশ কর্মকর্তা জানান, গুজব ছড়ানো শাস্তি যোগ্য অপরাধ। সরকারী কর্মকর্তা-কর্মচারীরা প্রণোদনার জন্য কাজ করেন না। বিষয়টি নোট করে রাখলাম, তদন্ত করে দেখা হবে।

Developed By The IT-Zone