ঢাকাবুধবার , ২৪ মার্চ ২০২১
আজকের সর্বশেষ সবখবর

হবিগঞ্জে আইডিএলসি ফাইন্যান্স লিমিটেডের বিরুদ্ধে জমি আত্মসাতের অভিযোগ : মামলা দায়ের

দৈনিক আমার হবিগঞ্জ
মার্চ ২৪, ২০২১ ৯:২০ পূর্বাহ্ণ
Link Copied!

আতাউর রহমান ইমরান/এম এ রাজা \  :  হবিগঞ্জের আইডিএলসি ফাইন্যান্স লিমিটেড ম্যানেজার ইকবাল শরীফ সাকী, ফজলে রাব্বী রাসেল, ফরিদ মিয়াসহ আরও দুজনের বিরুদ্ধে ব্যবসায়ী  ফুরকান আলীর পাঁচ কোটি টাকা মূল্যের জমি  প্রতারণা করে ভুয়া দলিল তৈরী করে আত্মসাৎ করার অভিযোগে হবিগঞ্জের সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে মামলা দায়ের করেছেন প্রতারিত ব্যবসায়ী ফুরকান আলী।

 

গত ২২ শে মার্চ হবিগঞ্জের সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে দায়ের করা ওই মামলায় হবিগঞ্জ শহরের নিউ মুসলিম কোয়ার্টারের অধিবাসী ফরিদ মিয়ার পুত্র ইকবাল শরীফ সাকী, খোয়াই মুখ রোডের অধিবাসী আবু লেইছের পুত্র ফজলে রাব্বী রাসেল, মোহাম্মদ আলীর পুত্র ফরিদ মিয়া, সুলতান মাহমুদপুর গ্রামের আব্দুস সাত্তারের পুত্র চান মিয়া এবং আব্দুল আলীমের পুত্র আব্দুর রাজ্জাকসহ মোট পাঁচ জনকে আসামি করা হয়।

 

 

 

মামলা সূত্রে জানা যায়, অলিপুরের সমীর আলীর পুত্র ব্যবসায়ী ফুরকান আলী বিগত ২০১৬ সালে আইডিএলসি ফাইন্যান্স লিমিটেড হবিগঞ্জ শাখা থেকে ২৫ লাখ টাকা ঋণ গ্রহণ করেন । তিনি ওই ঋণের বিপরীতে প্রায় পাঁচ কোটি টাকার জমি আইডিএলসি ফাইন্যান্স লিমিটেড হবিগঞ্জ শাখার নিকট জামানত হিসেবে বন্ধক রাখেন। ঋণের কিস্তি কিছুদিন পরিশোধ করতে না পারায় আইডিএলসি ফাইন্যান্স লিমিটেড কর্তৃপক্ষ তার বিরুদ্ধে অতিরিক্ত মহানগর দায়রা জজ আদালত সিলেটে এন.আই এক্ট এর ১৩৮ ধারার ১২৬৯/২০১৮ নাম্বার মামলা দায়ের করেন ।

পরবর্তীতে ফুরকান আলী ঋণের টাকা পরিশোধ করায় আইডিএলসি ফাইন্যান্স লিমিটেড কর্তৃপক্ষ ২০১৯ সালের ৯ জানুয়ারি ওই মামলাটি প্রত্যাহার করে নেন । কিন্তু আইডিএলসি ফাইন্যান্স লিমিটেড হবিগঞ্জ শাখার ম্যানেজার ইকবাল শরীফ সাকী মূল্যবান ওই সম্পত্তির প্রতি লোভের বশবর্তী হয়ে সেটি আত্মসাৎ করার জন্য নিজে বিক্রেতা সেজে তার সকল দুষ্কর্মের সহযোগী ফজলে রাব্বী রাসেলকে ক্রেতা সাজিয়ে আব্দুর রাজ্জাককে লেখক, ফরিদ মিয়া এবং চান মিয়াকে সাক্ষী হিসেবে দেখিয়ে হবিগঞ্জ সাব-রেজিস্ট্রি অফিসে রেজিস্ট্রি দলিল নং ৭০৩১/২০১৮ একটি ভুয়া দলিল সম্পাদন করেন ।

ফজলে রাব্বী রাসেল ওই দলিল দেখিয়ে জমিটিকে নিজের বলে দাবী করলে তখন ফুরকান আলী ম্যানেজার সাকীকে ঋণ পরিশোধ থাকা সত্তে¡ও তার সম্পত্তি অবৈধভাবে বিক্রির ভুয়া দলিল তৈরী করা হয়েছে কেন জিজ্ঞেস করলে সাকী কোন সদুত্তর দিতে পারেননি। এরপর ফুরকান আলী গত ৪ঠা ফেব্রæয়ারি ঋণ চুক্তিপত্র, ঋণগ্রহীতার সাথে যাবতীয় যোগাযোগের বিবরণ, ঋণ পরিশোধ সংক্রান্ত প্রয়োজনীয় তথ্যাদি, ঋণ সংক্রান্ত ব্যাংক স্টেটমেন্ট এর কপি, আমমোক্তার নাম্বার কপি ও ঋণ সংক্রান্ত অন্যান্য কাগজপত্রের কপি চেয়ে আইডিএলসি ফাইন্যান্স লিমিটেড কর্তৃপক্ষ বরাবর একটি লিগ্যাল নোটিশ প্রদান করেন।

কিন্তু আইডিএলসি ফাইন্যান্স লিমিটেড কর্তৃপক্ষ নির্বিকার থেকে কোনও উত্তর দেননি। গত ১৭ মার্চ ইকবাল শরীফ সাকী এবং ফজলে রাব্বী রাসেলসহ আরও কয়েকজন ফুরকান আলীর মালিকানাধীন অলিপুরস্থ ওই মার্কেটের সামনে গেলে ফুরকান আলী ঋণ পরিশোধ থাকা সত্তে¡ও কি কারণে তার সম্পত্তি বিক্রয়ের দলিল তৈরী করা হয়েছে জানতে চাইলে সাকী সকল লেনদেন অস্বীকার করে ফুরকানকে তার জায়গার দখল ছেড়ে দেয়ার জন্য হুমকি দেন। তখন স্থানীয়দের প্রতিরোধের মুখে সাকী এবং রাসেল তাদের লোকজনসহ পালিয়ে আসেন।

এ ব্যাপারে জানতে ফজলে রাব্বী রাসেলের সাথে মোবাইলে যোগাযোগ করা হলে তিনি জানান, মামলার বিষয়ে তার জানা নেই। ইকবাল শরীফ সাকীর মোবাইলে একাধিকবার কল এবং মেসেজ দিলেও তিনি রিসিভ করেননি।

ইকবাল শরীফ সাকীর বিষয়ে সরেজমিনে অনুসন্ধান করতে গিয়ে তাদের গ্রামের বাড়ী শরীফাবাদ গ্রামের লোকজনের সাথে কথা বলে জানা যায়, ১৯৭১ সালে সাকীর পিতা ফরিদ মিয়া পাকিস্তান সেনাবাহিনীর সহযোগী রাজাকার হিসেবে কাজ করেছিলেন। সাকীর ঘনিষ্ঠ সহযোগী রাসেল অল্প বয়সেই কোটি কোটি টাকার মালিক হয়ে যান। গভীর অনুসন্ধান চালিয়ে জানা যায় মাদক, দেহ ব্যবসা, অবৈধ সুদের কারবার, চোরাই গাড়ির ব্যবসা সহ এহেন অবৈধ ব্যবসা নেই যাতে ফজলে রাব্বী রাসেল জড়িত নন।

মূলত এসব অবৈধ ব্যবসা এর কল্যাণেই রাসেল রাতারাতি কোটি কোটি টাকা এবং বাড়ি গাড়ির মালিক বনে যান । তার অবৈধ সম্পদের খোঁজ করতে গিয়ে জানা যায়, রাঙ্গামাটির নীলগিরির মতো পর্যটন স্পটেও তার মালিকানাধীন একাধিক কটেজ রয়েছে যেগুলিতে দেহ ব্যবসাসহ অবৈধ মাদকের রমরমা ব্যবসা চলছে।

জানা যায়, রাসেল একাধিক সুন্দরী রক্ষিতা নিয়ে তার সকল দুষ্কর্মের সহযোগী সাকী এবং ফরিদসহ সেসব কটেজে নিয়মিত ‘সময়’ কাটিয়ে আসেন।

Developed By The IT-Zone