ঢাকাশনিবার , ২৪ সেপ্টেম্বর ২০২২
আজকের সর্বশেষ সবখবর

হবিগঞ্জের সর্ববৃহৎ হাঁসের খামার ছাতিয়াইনের আবাবিল এগ্রো কমপ্লেক্স

জালাল উদ্দিন লস্কর
সেপ্টেম্বর ২৪, ২০২২ ২:৩৫ পূর্বাহ্ণ
Link Copied!

৫ হাজার হাঁসের বিশাল সমাহার হবিগঞ্জ জেলার মাধবপুর উপজেলার ছাতিয়াইন উত্তর গ্রামের আবাবিল এগ্রো কমপ্লেক্সের হাঁসের খামারের (রেজিঃ নং হবি/ডাক-এ/৩০) এখন সবার মুখে মুখে।

অল্প সময়ে দ্রুত সম্প্রসারিত এই হাঁসের খামারটি হবিগঞ্জের সর্ববৃহৎ হাঁসের খামার হিসাবে মনে করা হচ্ছে।

পৌণে ২ একর আয়তনের দুটি পুকুর,বিশাল ইয়ার্ড ও শেড রয়েছে খামারটিতে। উদ্যোক্তা জাকিরুল দাবি করেন তার এই খামারটি হবিগঞ্জ জেলার সবচেয়ে বড় হাঁসের খামার।

আর উপজেলা প্রাণিসম্পদ কর্মকর্তার মতে এটি অত্যন্ত সম্ভাবনাময় একটি হাঁসের খামার।

ছাতিয়াইন গ্রামের জাকিরুল হোসেইন টিপু গত মে মাসে তার একসময়ের সহপাঠি পার্শ্ববর্তী খান্দুরা গ্রামের (হাবিলির) প্রকৌশলী সৈয়দ সোহেল আব্দালকে সাথে নিয়ে যৌথভাবে আবাবিল এগ্রো কমপ্লেক্স নামের এই খামারটির গোড়াপত্তন করেন।

৩টি ধাপে খামারটিতে মোট ৫ হাজার হাঁস উঠানো হয়।বর্তমানে ব্রাউন ক্যাম্বেল,জিংডিং ও অন্যান্য মিশ্র প্রজাতির হাঁস রয়েছে খামারটিতে।আগামী ১৫ দিনের মধ্যে ৫০ ভাগ হাঁস এবং ১ মাসের মধ্যে মোট হাঁসের ৮০ ভাগ হাঁস ডিম পাড়তে শুরু করবে বলে জানিয়েছেন আবাবিল এগ্রো কমপ্লেক্সেের উদ্যোক্তা জাকিরুল হোসেইন টিপু।

শুক্রবার (২৩ সেপ্টেম্বর) এ প্রতিনিধিকে তিনি খামারটি ঘুরিয়ে দেখানোর সময় এমন প্রত্যাশার কথা জানান তিনি। এর মধ্যেই জিংডিং প্রজাতির ১ হাজার পুরুষ হাঁস বিক্রী করে ৪ লাখ টাকা আয় করেছেন বলেও জানিয়েছেন তিনি।

খামারটিতে ১ জন নারী সহ ৭ জন সার্বক্ষণিক স্টাফ রয়েছেন।তারা হাঁসের যত্নআত্তি, খাবার খাওয়ানো দেখাশোনা সহ যাবতীয় আনুষঙ্গিক কাজকর্ম করে থাকেন। এদের প্রত্যেককে প্রতিমাসে ১৫ হাজার টাকা করে বেতন দেওয়া হয়।

ভবিষ্যতে খামারটির সমৃদ্ধির সাথে তাল মিলিয়ে এসব কর্মচারীদের বেতন ও জীবনমান বাড়াতে উদ্যোগী হওয়ার ইচ্ছা প্রকাশ করে জাকিরুল হোসেইন টিপু জানান এসব কর্মচারীদের বেশীরভাগেরই বাড়ি ব্রাহ্মনবাড়ীয়া জেলার শাহজাদাপুরে।

খামারের একপাশে তিনি তাদেরকে পরিবার পরিজন নিয়ে থাকার জন্য আবাসন সুবিধা নিশ্চিত করেছেন।

আবাবিল এগ্রো খামারের কর্মচারী সাদেক মিয়া,শাহীন ও নাছিরের সংগে কথা হয়।তারা জানান মালিকপক্ষের লোকজনের আচরনে ও প্রদত্ত সুবিধাদির কারনে তাদের প্রতি তারা সন্তুষ্ট ও কৃতজ্ঞ।

খামারের অফিসে বসে আলাপকালে উদ্যোক্তা জাকিরুল হোসেন জানান,প্রাথমিকভাবে ২৫ লাখ টাকা পুঁজি নিয়ে শুরু করলেও ভবিষ্যতে এর পরিধি বাড়ানোর সাথে তাল মিলিয়ে ১ কোটি টাকা পর্যন্ত বিনিয়োগ করতে তিনি ও তার সহযোগী অংশীদার প্রস্তুত রয়েছেন।

প্রতিদিন হাঁসের খাবারের পেছনে ২৫ হাজার টাকার মতো খরচ রয়েছে উল্লেখ করে জাকিরুল হোসেইন জানান,লাখাইর হাওরাঞ্চল থেকে নির্ধারিত কিছু লোক নির্দিষ্ট সময় পর পর চাহিদা অনুযায়ী ট্রাকভর্তি শামুক সরবরাহ করেন তাদের খামারে।

প্রতি বস্তা শামুকের দাম পড়ে ২ শ ৭০ টাকা।প্রতিদিন অন্তত ৩০ বস্তা শামুক এবং ১২ বস্তা ধান হাঁসের খাবার হিসাবে প্রয়োজন হয় খামারটিতে।

খামার স্থাপনের পর এখনো পর্যন্ত হাঁসের মাড়ি বা এরকম অন্য কারনে তেমন ক্ষয়ক্ষিতর সম্মুখিন হতে হয়নি বলেও জানিয়েছেন জাকিরুল।

কিছুদিনের মধ্যেই খামরটিতে মাংস উৎপাদনের লক্ষ্যে ২০ টি উন্নতজাতের গরু তোলা হবে।এজন্যে ইতোমধ্যেই শেড প্রস্তুত করা হয়েছে।

তবে খানিকটা হতাশা প্রকাশ করে জাকিরুল হোসেইন টিপু জানান,বেশ কয়েকটি ব্যাংকের সাথে যোগাযোগ করলেও এই সুবৃহৎ খামারটির জন্য কোনো ঋণসুবিধা এখনো পাননি তারা।

ব্যাংক ঋণের সুবিধা পেলে এ খামারটিকে আরো বড় করার স্বপ্ন দেখেন তিনি।এর মধ্যে পোল্ট্রিফিড উৎপাদনের পরিকল্পনা অন্যতম।

মাধবপুর উপজেলা প্রাণিসম্পদ কর্মকর্তা ডাঃ আব্দুস সাত্তার বেগ জানান,কিছুদিন আগে তিনি খামারটি পরিদর্শন করে গেছেন। সবকিছু দেখে তার কাছে এই খামারটিকে একটি অত্যন্ত সম্ভাবনাময় প্রজেক্ট মনে হয়েছে।

তিনি কিছু প্রয়োজনীয় পরামর্শ দিয়ে গেছেন জানিয়ে বলেন এই খামারের উন্নয়নে প্রাণিসম্পদ কর্মকর্তা হিসাবে তার পক্ষ থেকে সম্ভাব্য সবধরনের সহায়তা করতে তিনি প্রস্তুত আছেন। তিনি এই খামারটির উত্তরোত্তর সমৃদ্ধি ঘটুক এমন প্রত্যাশা ব্যক্ত করেন।

Developed By The IT-Zone