ঢাকাশুক্রবার , ১৭ জানুয়ারি ২০২০
আজকের সর্বশেষ সবখবর

হবিগঞ্জের মেয়ে সুমি এখন একজন সফল উদ্যোক্তা

দৈনিক আমার হবিগঞ্জ
জানুয়ারি ১৭, ২০২০ ৭:২৮ অপরাহ্ণ
Link Copied!

সৈয়দ হাবিবুর রহমান ডিউক :  নিজে কিছু করবেন, স্বাবলম্বী হবেন এই ভাবনায় স্নাতক পড়ার সময় থেকে চাকরি করেছেন ডিজাইনার জান্নাতুল ফেরদৌস। তার গ্রামের বাড়ি হবিগঞ্জের মাধবপুর উপজেলার বেলঘর গ্রামে। গ্রামের মেয়ে হলে ও বাবা একজন প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষক হওয়ায় বেড়ে উঠেছেন শহরেই। তিনি কাজ করেছেন এনজিও, ব্যাংক এশিয়া ও অ্যাকশন এইডে কাজ করেছেন। বর্তমানে তিনি একজন সফল নারী উদ্যোক্তা, ডিজাইনার ও কারু বুটিকের স্বত্বাধিকারী।

সময়টা ২০১১ সাল। জান্নাতুল ফেরদৌস মাত্র ৭,৫০০ টাকা নিয়ে কারু বুটিকসের যাত্রা শুরু করেন। নিজের ডিজাইন করা ড্রেস দিয়ে সাজিয়েছিলেন কারু বুটিক। যেহেতু তিনি কাজ করেন ব্লক, হ্যান্ডি ক্রাফটস এবং দেশীয় পণ্য নিয়ে তাই নামটাও এমন দিয়েছেন। বড়ো বোন ও ভাই পোশাকের ব্যবসা করতেন। তারা ঢাকা থেকে বিভিন্ন ড্রেস নিয়ে যেতেন। আর এসব দেখে জান্নাতুল শাড়ি ও ড্রেস ডিজাইন করা শুরু করেন। আর সেগুলো অনেকে বেশ আগ্রহ নিয়ে কিনতেন। এভাবেই মূলত তার আগ্রহ জন্মে ব্যবসার প্রতি।


ছোটবেলা থেকেই ছবি আঁকাআঁকি করতে ভালোবাসতেন। সিলেটে পড়াশোনা শেষে ঢাকায় আসেন এমবিএ করতে। তখন তিনি নিজের জন্য ড্রেস কিনতে গিয়ে ১০/১১টা কাপড় কিনে আনেন। কারণ মাথায় তার ভাবনা ছিল, নিজেও তো ড্রেস ডিজাইন করতে পারেন। যেই ভাবনা সেই কাজ। পাঁচটা ড্রেস ডিজাইন করেন। এক সপ্তাহের মধ্যে সেসব বিক্রি হয়ে যায়। তখন মনে সাহস পান এবং চাকরির পাশাপাশি ব্যবসাও শুরু করেন। এরপর ২০১৩ সালে ফ্যাক্টরি দেন জান্নাতুল ফেরদৌস।

ফ্যাক্টরি দেওয়ার পর প্রথমে খুব একটা লাভের মুখ দেখেননি। তবে তিনি থেমেও থাকেননি। মনোবল নিয়ে সামনে এগিয়েছেন। কিছুদিনের মাথায় বিয়ে হয়ে যায় জান্নাতুলের। নতুন সংসার, চাকরি ও ব্যবসা এ সময় কোনটা রেখে কোনটা করবেন ঠিক বুঝে উঠতে পারছিলেন না তিনি। সিদ্ধান্ত নেন, ব্যবসাটা কিছু দিনের জন্য বন্ধ রেখে সংসারটা গোছানোর এবং চাকরিটাও আরো কিছু সময় করে তারপর ব্যবসা নিয়ে চিন্তা করবেন। মাঝে ২ বছর ব্যবসা বন্ধ রাখার পর আবারও ২০১৬ সালে শুরু করেন। নতুন ফ্যাক্টরি নেন, সেখানে বর্তমানে দশজনের বেশি কর্মী কাজ করছেন। অনেক সংগ্রাম করে কারু বুটিক সফলতার মুখ দেখে ২০১৭ সালে।


ব্যবসা করতে এসে জান্নাতুল ফেরদৌসকে শুনতে হয়েছে নানা কটু কথা। এমনকি তার স্বামী আবু হেনা মোহাম্মদ ফারুককেও অনেকে নানা নেতিবাচক কথা শুনিয়েছে। তারপরও তিনি স্ত্রীর স্বপ্নপূরণের পাশে থেকেছেন সব সময়। মা প্রথমে ভালোভাবে না নিলেও এখন মেয়ের কাজ নিয়ে অনেক সন্তুষ্ট। আর ভাই-বোন দুজনেই প্রথম থেকে তাকে খুব সাপোর্ট দিয়েছেন।

জান্নাতুল ফেরদৌস স্বপ্ন দেখেন দেশের প্রতিটা বিভাগীয় শহরে কারু বুটিকের আউটলেট থাকবে এবং কারু বুটিককে সবাই এক নামে চিনবে। বর্তমানে কারু বুটিক দেশের বাইরেও তার তৈরি পণ্য পৌঁছে দিচ্ছে। কানাডা, যুক্তরাজ্যে যাচ্ছে তাদের পণ্য। শীঘ্রই মালদ্বীপেও কারু বুটিকের পণ্য যাবে বলে জানান জান্নাতুল সুলতানা। কারু বুটিকে পাওয়া যায় বিভিন্ন রকম কুর্তি, গায়েহলুদ ও বিয়ের শাড়ি, পাঞ্জাবি, থ্রিপিস।
জান্নাতুল ফেরদৌস বলেন, ‘বর্তমানে আমাদের দেশের মার্কেটের ৯০% দখল করে আছে বিদেশি পোশাকে। মাঝেমধ্যে কিছু মেলা করি, তবে মেলায় বেশির ভাগ থাকে বিদেশি পোশাক, ক্রেতারাও তা-ই চায়! হতাশ লাগে ক্রেতাদের দেশীয় পণ্যের প্রতি অনীহা দেখে। কিন্তু কেউ যখন দেশীয় পণ্য খুব পছন্দ করে নিয়ে যান, তখন বেশ অনুপ্রাণিত হই।’

জান্নাতুল ফেরদৌস ভারত ও চীনে স্বল্প মেয়াদি দুটো কোর্স করেছেন। ফ্যাশন ডিজাইনিংয়ের ওপর আরো কোর্স করার ইচ্ছা আছে বলে জানিয়েছেন তিনি।

নতুন যারা উদ্যোক্তা হতে চান, তাদের উদ্দেশে পরামর্শ হিসাবে বলেন, ‘কাজের প্রতি একনিষ্ঠ থাকতে হবে। কর্মী ও ক্রেতাদের সঙ্গে সুসম্পর্ক গড়তে হবে। প্রতিবন্ধকতা মোকাবিলা করার মানসিকতা থাকতে হবে। ব্যবসা করার জন্য বা উদ্যোগ নিতে কোটি কোটি টাকার দরকার হয় না। দরকার হয় জান্নাতুলের মতো স্বপ্ন পূরণের ইচ্ছাশক্তি। এই ইচ্ছাশক্তি নিয়ে এগিয়ে যাবে এ দেশের তরুণেরা, এ প্রত্যাশা সকলের।

Developed By The IT-Zone