ঢাকামঙ্গলবার , ৬ ডিসেম্বর ২০২২
আজকের সর্বশেষ সবখবর

সেচ প্রকল্পের দায়িত্ব নিয়ে আত্মগোপনে রয়েছেন ফজলে রাব্বী রাসেল !

দৈনিক আমার হবিগঞ্জ
ডিসেম্বর ৬, ২০২২ ৬:০২ অপরাহ্ণ
Link Copied!

তথ্য দিয়ে সেচ প্রকল্পের দায়িত্ব নিয়ে আত্মগোপনে রয়েছেন ফজলে রাব্বী রাসেল নামে এক ব্যক্তি। এ ঘটনায় শুকনো মৌসুমে সেচ বিহীন হয়ে অনিশ্চয়তার পড়েছে হবিগঞ্জ শহরতলীর গোবিন্দপুর এলাকার ২’শ বিঘা ধানি জমি।

জানা যায়, বিভিন্ন সংস্থা থেকে ঋণ গ্রহন করে ওই এলাকার হাওরে ধান চাষ করেছে কয়েক হাজার কৃষক। সঠিক সময়ে পানি না পেয়ে ফসল উৎপাদন নিয়ে বিপাকে পড়েছেন তারা। উপজেলা প্রশাসনের এমন হতবাক কান্ডে অসন্তোশ বিরাজ করছে ওই এলাকার কয়েক হাজার কৃষকদের মাঝে।

এমন দায়িত্বহীন ব্যক্তির কাছ থেকে প্রকল্প বাতিল করে কৃষকদের প্রতিনিধি জয়নাল আবেদন ছালেককে দায়িত্ব প্রদান করতে ইউএনও বরাবরে আবেদন করেছেন তারা।

সোমবার (৫ডিসেম্বের) সরেজমিনে ওই এলাকায় দেখা গেছে, হবিগঞ্জ সদর উপজেলার ৩নং তেঘরিয়া ইউনিয়নের গোবিন্দপুর গ্রামে সেচ প্রকল্প নিয়ে প্রতিবারেরমত এবারও চরম বিড়ম্বনায় পড়েছেন সাধারণ কৃষকরা। এর আগে, হবিগঞ্জ সদর উপজেলা সেচ কমিটি গোবিন্দপুর সেচ প্রকল্প পরিচালনার জন্য ফজলে রাব্বী রাসেলকে দায়িত্ব প্রদান করেন।

ফজলে রাব্বী রাসেল একাধিক মামলার গ্রেফতারী পরোয়ানাভূক্ত আসামী হওয়ায়। বর্তমানে তিনি আত্মগোপনে আছেন নাকি হাজতবাস করছেন এটাই তাদের জিজ্ঞাসা।

গোবিন্দপুর সেচ প্রকল্পের আওতায় হবিগঞ্জ সদর উপজেলার দেওকোরা উত্তর, দেওকোরা দক্ষিন, রামপুর, বারপানিয়া, নলডুব, সুলতান মাহমদপুর, এড়ালিয়া মৌজার প্রায় ৫শ একর বোরো জমি রয়েছে সাধারণ কৃষকদের।

গত প্রায় ৩২ বছর যাবত ওই এলাকায় গোন্দিপুর গ্রামের মৃত হাজী হায়দর আলীর পুত্র জয়নাল আবেদীন ছালেক বোরো জমিতে সেচের পানি দিয়ে আসছেন। ২০২১ এর দিকে ফজলে রাব্বী রাসেল নামে এক ভূয়া কৃষককে সেচ প্রকল্প দায়িত্ব দেয়া হয়।

দায়িত্ব পাবার প্রায় ১ বছর পার হলেও আদৌ ফজলে রাব্বী রাসেল প্রকল্প এলাকায় কোনো সেচ যন্ত্র প্রতিস্থাপন করেননি। তবে এরপর পরই প্রকল্পের আওতায় কৃষকরা এ ঘটনার প্রতিবাদ জানিয়ে আসছেন।

কৃষকরা জানিয়েছেন, ফজলে রাব্বী রাসেল এলাকার স্থানীয় কেউ নন। গোবিন্দপুর সেচ প্রকল্পের আওতাভূক্ত কোনো বোরো জমি তার নেই। সেচ প্রকল্প পরিচালনায় তার কোনো পূর্ব অভিজ্ঞতাও নেই। অপরদিকে, কৃষকদের ২’শ বিঘারও বেশি কৃষি জমি থাকার পরও তাদের প্রতিনিধি জয়নাল আবেদিন ছালেককে দেয়া হয়নি দায়িত্ব।

ইতিমধ্যে হবিগঞ্জ সদর উপজেলা সেচ কমিটির সভাপতি ও হবিগঞ্জ সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা
কার্যালয়ে হাজির হয়ে তিন শতাধিক কৃষক ফজলে রাব্বী রাসেলকে সেচ প্রকল্প পরিচালনার দায়িত্ব না দিয়ে ৩২ বছরের অভিজ্ঞতা সম্পন্ন জয়নাল আবেদীন ছালেককে সেচ প্রকল্প পরিচালনার দায়িত্ব দেয়ার জন্য আবেদন করেছেন।

গত ৩০ নভেম্বর উপজেলা নির্বাহী অফিসার বরাবরে একটি লিখিত আবেদন জমা করেন ভুক্তভোগী কৃষকরা। সুত্র জানায়, একাধিক মামলায় গ্রেফতারি ফরোয়না নিয়ে ফেরারি হয়ে আত্মগোপনে রয়েছেন ফজলে রাব্বী রাসেল।

আবার আরেকটি সুত্র জানায়, ধারণা করা হচ্ছে দৈনিক আমার হবিগঞ্জ পত্রিকার সম্পাদক সুশান্ত দাস গুপ্তের বিরুদ্ধে অপপ্রচারের ঘটনায় সিলেট সাইবার ট্রাইব্যুনালে দায়ের করা মামলায় গত কয়েকদিন ধরে সিলেট জেলে হাজতবাস করছেন ফজলে রাব্বী রাসেল।

এ ছাড়াও গত ২৭ অক্টোবর সিআর ৫৬৪/২২ (হবি) মামলায় ফজলে রাব্বী রাসেলের বিরুদ্ধে গ্রেফতারি পরোয়ানা জারি করেন হবিগঞ্জ সদর কগনিজেন্স আদালতের বিচারক। এমতাবস্থায় সেচ প্রকল্প পরিচালনার দায়িত্ব বাতিল করে কৃষকদের প্রতিনিধিদের দায়িত্ব প্রদানে দাবী জানিয়েছেন সাধারণ কৃষকরা।

Developed By The IT-Zone