ঢাকারবিবার , ১২ জুন ২০২২
আজকের সর্বশেষ সবখবর

সুপ্রীম কোর্টের মতামতের তোয়াক্কা করছেনা পৌরসভা কর্তৃপক্ষ

ইমদাদুল হোসেন খান
জুন ১২, ২০২২ ৫:৫৮ অপরাহ্ণ
Link Copied!

হবিগঞ্জ পৌরসভা কর্তৃপক্ষ সুপ্রীম কোর্টের মতামতের তোয়াক্কা করছেনা বলে ব্যাটারী চালিত অটোরিক্সা শ্রমিকদের সমাবেশে অভিযোগ উঠেছে। হবিগঞ্জ পৌরসভা কর্তৃক নাম্বার প্লেইট দেওয়ার পূর্বে রিক্সা আটকানো বন্ধ রাখা ও আটককৃত রিক্সার উপর ধার্যকৃত জরিমানা প্রত্যাহারের দাবী এবং শ্রমিকদের উপর নির্যাতনের প্রতিবাদে অনুষ্ঠিত বিক্ষোভ সমাবেশে এ অভিযোগ করা হয়।

রবিবার (১২ জুন) ৭ দফা দাবীতে সকাল সাড়ে ১০টায় আরডি হল প্রাঙ্গন থেকে ব্যাটারি চালিত অটোরিক্সা শ্রমিক ফেডারেশন হবিগঞ্জ জেলা কমিটির উদ্যোগে একটি বিক্ষোভ মিছিল বের করা হয়। মিছিলটি সারা শহর প্রদক্ষিণ শেষে পুনরায় আরডি হল প্রাঙ্গনে এসে সমাবেশে মিলিত হয়।

ব্যাটারি চালিত অটোরিক্সা শ্রমিক ফেডারেশ হবিগঞ্জ জেলা কমিটির সভাপতি শফিকুল ইসলামের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সমাবেশে বক্তব্য রাখেন জেলা কমিটির সাধারণ সম্পাদক ধনু মিয়া, সহ-সভাপতি সামছুর রহমান, জাফর আলী ও বারিক মিয়া। নেতৃবৃন্দের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন সহ-সাধারণ সম্পাদক আব্দুল জব্বার, সাংগঠনিক সম্পাদক আব্দুল মজিদ, সিনিয়র সদস্য আরব আলী, জাহির মিয়া, মস্তো মিয়া, মধু মিয়া, তৌহিদ মিয়া, মকবুল হোসেন, শংকর শূক্লবৈদ্য, গনি মিয়া, ইসমাঈল হোসেন মিন্টু, সুহেল মিয়া, আব্দুল হাসিম, পলাশ আহমেদ, রইছ মিয়া, মুজিবুর রহমান প্রমূখ।

বক্তারা বলেন, আমরা নাম্বার প্লেইটসহ ৭ দফা দাবিতে দীর্ঘ দিন ধরে দফায় দফায় স্মারকলিপি প্রদানসহ বিভিন্ন শান্তিপূর্ণ আন্দোলন করে আসছি। কিন্তু এখন পর্যন্ত আমাদের নাম্বার প্লেইট প্রদানের ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়নি। গত ৫ জুন দুপুর বেলা পৌরসভার পক্ষ থেকে আমাদের প্রায় অর্ধ শতাধিক অটোরিক্সা আটক করা হয়েছে।

সে ক্ষেত্রে আইন শৃঙ্খলা বাহিনী ছাড়া অতি উৎসাহি কিছু টমটম শ্রমিককে রিক্সা আটকানোর ক্ষেত্রে ব্যবহার করা হয়েছে। অনেক অটোরিক্সা শ্রমিকের উপর শারীরিক নির্যাতন করা হয়েছে। আমরা এর তীব্র প্রতিবাদ ও নিন্দা জানাই। একই সাথে দোষীদের চিহ্নিত করে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবি করছি। অটোরিক্সা আটকানোকে কেন্দ্র করে একদল সুযোগ সন্ধানী ব্যক্তি শ্রমিকদের কাছ থেকে অর্থ বাণিজ্য করার চেষ্টা করছে।

এ বিষয়ে প্রশাসনের সুদৃষ্টি ও হস্তক্ষেপ দাবি করছি। অটোরিক্সা শ্রমিক ও টমটম শ্রমিক পরষ্পর ভাই-ভাই এবং শ্রমজীবী মানুষ।অটোরিক্সা শ্রমিক ও টমটম শ্রমিকদের মধ্যে দ্বন্দ্ব লাগিয়ে বিভেদ সৃষ্টি করার চক্রান্ত চলছে। অমরা শ্রমিকদেরকে সংঘাত এড়িয়ে চলার আহবান জানাই।

বক্তারা আরো বলেন, সাম্প্রতি মহামান্য সুপ্রীম কোর্ট মতামত দিয়েছে মহাসড়ক ছাড়া সকল রাস্তায় ব্যাটারী চালিত অটোরিকশা চলাচল করতে পারবে।

কিন্তু হবিগঞ্জ পৌরসভা কর্তৃপক্ষ কোর্টের এই মতামতের তোয়াক্কা করছেননা। তারা অর্ধশত অটোরিকশা আটক করেছেন। যদি রিক্সাগুলো চলতে দেয়া না হয় তাহলে প্রায় ৫ হাজার শ্রমিক পরিবার অনাহারে মারা যাবে। যাত্রী সাধারণও চলাচলের জন্য চরম দূর্ভোগে পড়বে।

তাই অবিলম্বে পৌরসভা কর্তৃক নির্ধারিত যৌক্তিক ফি প্রদান সাপেক্ষে নাম্বার প্লেইট প্রদানের ব্যবস্থা গ্রহণ, নাম্বার প্লেইট দেওয়ার পূর্বে রিক্সা আটকানো বন্ধ রাখাসহ ৭ দফা দাবিতে এবং শ্রমিকদের উপর নির্যাতনের প্রতিবাদে আমরা আন্দোলন অব্যাহত রাখবো। দাবী আদায় না হওয়া পর্যন্ত আন্দোলন চলবে।

Developed By The IT-Zone