ঢাকাবুধবার , ১ জানুয়ারি ২০২০
আজকের সর্বশেষ সবখবর

সুতাং নদীর উপর সাকোটি যেন মরণ ফাঁদ

দৈনিক আমার হবিগঞ্জ
জানুয়ারি ১, ২০২০ ৮:৫৫ অপরাহ্ণ
Link Copied!

সৈয়দ হাবিবুর রহমান ডিউক :  সদর উপজেলার ৬ নং রাজিউরা ইউনিয়নের সুতাং নদীর দক্ষিণ পাশে যেখানে ভাদগুরি, বংগুরহাটি বাগআছড়া, ঘোরাবই, হাসিনাবাদ, জালালাবাদ, গইবপুর, রাবন্ডুবি, পুকুরপারসহ ১০/১২ গ্রামের হাজার মানুষের বসবাস। এই অঞ্চলের মানুষ আজো তাদের মৌলিক চাহিদা ৫ টির মধ্য ৩ টি শিক্ষা, চিকিৎসা, খাদ্য থেকে বঞ্চিত, যেন দেখার কেউ নেই।

এ ইউনিয়নে স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স এ রোগী নিতে হয় কাদামাটির রাস্তা মাড়িয়ে, নৌকা দিয়ে কলকারখানার বর্জ সম্বলিত সুতাং নদী পাড় হয়ে সাধুরবাজার হয়ে টমটম বা টেম্পু যোগে যেতে হয়। রোগী কে টুকড়ি তে করে মানুষ বয়ে নিয়ে যায়, বা ঠেলাতে শায়িত করে অন্য উপজেলা শায়েস্তাগঞ্জ উপজেলার উপর দিয়ে ঠেলে নিয়ে যেতে হয়, ঢাকা সিলেট মহাসড়ক এ যেতে হলে ৩০ কিমি পাড়ি দিয়ে যেতে হয়, যেখানে সাধুরবাজার দিয়ে সুতাং নদীর ব্রিজ টি থাকলে, হবিগঞ্জ সদর শেখ হাসিনা মেডিকেল কলেজ যেতে মাত্র ১২/১৩ কিমি দূরত্ব । সুতাং নদীর সাধুরবাজার ব্রিজটি বারবার টেন্ডার হলেও অজ্ঞাত কারনে হয় না!

অন্যদিকে ‘সুতাং রেলস্টেশন থেকে সাধুরবাজার’ যাওয়ার রাস্তাটি, স্থানীয় জনপ্রতিনিধি ২০১৩ সালে জনসভায় ১৬ ফুট প্রশস্ত সুতাং টু সাধুরবাজার রাস্তার প্রতিশ্রুতি দিলেও আজও হয়ে উঠেনি। বরং উল্টো সুতাং বাজার যাওয়ার একমাত্র পথ, খালের উপর কালভার্টি ও ভেঙে গেছে! স্থানীয় মেম্বার, চেয়ারম্যানদের কোন মাথা ব্যাথা নেই।

– এই মানুষগুলোর কাছাকাছি তেলিখাল উচ্চ বিদ্যালয় ২ কিমি এর মধ্যে থাকলেও, সুতাং নদীর সাধুর বাজার ব্রিজ না থাকায়, কাদামাটির রাস্তা মাড়িয়ে, নৌকা দিয়ে নদী পার যে হবে, সাধুরবাজার দিবস, মানে সপ্তাহে ২ দিন নৌকা থাকে। সুতরাং যাওয়ার পথ নাই। ফলে তারা সহজে শিক্ষা গ্রহণ করতে পারে নাহ। শিক্ষার হার অনেকটা শূন্যের কোঠায়। গুটিকয়েক যারা পড়াশোনা করেন ৬/৭ কিমি পাড়ি দিয়ে শায়েস্তাগঞ্জ উপজেলার নূরপুর আদর্শ উচ্চ বিদ্যালয়ে যান।এ অঞ্চলের মানুষের প্রাণের দাবি সুতাং-সাধুরবাজার এ একটি ব্রীজ নির্মাণ করলে অত্র এলাকার হাজারো মানুষের উপকার হত।

Developed By The IT-Zone