ঢাকাশনিবার , ১৩ আগস্ট ২০২২
আজকের সর্বশেষ সবখবর

সার ও জ্বালানি তেলের দাম বৃদ্ধিতে বানিয়াচঙ্গে কৃষকরা দুশ্চিন্তায়

ইমদাদুল হোসেন খান
আগস্ট ১৩, ২০২২ ৯:২৪ পূর্বাহ্ণ
Link Copied!

ইউরিয়া সার ও জ্বালানি তেলের দাম বৃদ্ধি পাওয়ায় দুশ্চিন্তায় পড়েছেন কৃষিপ্রধান উপজেলা বানিয়াচঙ্গের কৃষকরা। সাম্প্রতিক বন্যায় কৃষকদের রোপা আমন, বোনা আমন ও আউশ ধানের গাছ সম্পূর্ণ পচে নষ্ট হয়ে গেছে।

অনেকের গোলায় বন্যার পানি উঠায় মজুদকৃত বৈশাখী বোরো ধান-চালও আড়তদারদের কাছে পানির দরে বিক্রি করে দিতে হয়েছে। কেউ কেউ বিক্রি করতে না পারায় গোলার ভেতরেই বন্যার পানিতে ধান-চাল পঁচে নষ্ট হয়েছে।

স্থানীয় কৃষি অফিস থেকে বন্যা পরবর্তীতে সামান্য বীজ ও সার বিতরণ করা হলেও সিংহভাগ কৃষকের ভাগ্যে তা জুটেনি। অনেক ক্ষতিগ্রস্ত প্রকৃত কৃষকের নামই তালিকাভূক্ত করা হয়নি বলে অভিযোগ করেন কৃষকরা।

বর্ষার পানি কমে জমি শুকিয়ে যাওয়ায় কৃষকরা যখন নতুন করে জমি চাষাবাদ করছেন ঠিক তখন সার ও জ্বালানি তেলের দাম বৃদ্ধি করায় দুশ্চিন্তায় পড়েছেন তারা।

এই মূল্যবৃদ্ধিকে নিজেদের জন্য ‘মরার উপর খাড়ার ঘা’ আখ্যায়িত করে অবিলম্বে তা প্রত্যাহারের দাবি জানাচ্ছেন কৃষকরা। এছাড়া বিএডিসি’র মাধ্যমে বিনামূল্যে প্রকৃত কৃষকদের মাঝে পর্যাপ্ত বীজ, সার, কীটনাশক সরবরাহের দাবি জানাচ্ছেন তারা।

কৃষক সাস্তু মিয়া জানান, তিনি ২৫ কের আমন জমি করেছিলেন। কৃষক দাবিরুল খাঁ জানান, ২৬ কের করেছিলেন। কৃষক মাসুক মিয়া জানান, ১৮ কের করেছিলেন। কৃষক আব্দুল আউয়াল জানান, ৩৫ কের করেছিলেন। তারা সবাই জানান, বন্যার সময় কৃষি অফিসের কোনো কর্মকর্তা/কর্মচারী তাদের খোঁজ নেননি এবং বন্যা পরবর্তীতে কৃষি অফিস থেকে কোনো সাহায্য-সহযোগিতা পাননি।

খোঁজ নিয়ে তারা জানতে পারেন ক্ষতিগ্রস্ত কৃষকদের তালিকায় তাদের নামই নেই। এসব ক্ষতিগ্রস্ত ও বঞ্চিত কৃষকরা সার ও জ্বালানি তেলের মূল্য বৃদ্ধিতে ক্ষোভ প্রকাশ করে বলেন, এমনিতেই উপজেলার ১৫ টি ইউনিয়নে আমাদের মতো হাজার হাজার কৃষক ক্ষতিগ্রস্ত ও বঞ্চিত। এর মধ্যে পানি কমে জমি শুকিয়ে যাওয়ায় যখন নতুন করে ধানের চারা রোপন করতে শুরু করেছি এই সময়ই শুনলাম সরকার সার ও জ্বালানি তেলের দাম বাড়িয়ে দিয়েছে।

এতে করে উৎপাদন খরচ বেড়ে যাবে জানিয়ে তারা বলেন, আমরা যখন ধান উঠাইমু তখন তো ন্যায্য দাম পাইমু না! সার ও তেলের দাম বৃদ্ধির ফলে এখনই বাজারে নিত্যপ্রয়োজনীয় জিনিসপত্রের দাম বাড়ায় তাদেরকে খুব কষ্ট করে সংসার চালাতে হচ্ছে বলেও অনেক ক্ষুদ্র কৃষকরা জানান।

উল্লেখ্য, উপজেলা কৃষি অফিসের মতে বানিয়াচং উপজেলার ১৫টি ইউনিয়নে এবছর ৫হাজার ৯শ হেক্টর জমিতে রোপা আমন ও ১ হাজার ৬শ ৪০ হেক্টর জমিতে আউশ চাষাবাদ করা হয়েছিল।

গত বন্যায় সম্পূর্ণ তলিয়ে বিনষ্ট হয়েছে। সরকারি হিসেবে ক্ষতিগ্রস্ত কৃষকের সংখ্যা ২১ হাজার এবং ক্ষতির পরিমাণ ২১ কোটি টাকা। তবে কৃষকদের মতে ক্ষতিগ্রস্ত কৃষক ও ক্ষতির পরিমাণ আরও বেশি।

Developed By The IT-Zone