ঢাকারবিবার , ২ অক্টোবর ২০২২
আজকের সর্বশেষ সবখবর

সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতিতে আওয়ামী লীগ কতটা সফল ?

উজ্জ্বল দাস চিনু
অক্টোবর ২, ২০২২ ৬:২২ অপরাহ্ণ
Link Copied!

অসাম্প্রদায়িক বিষয়টি বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান খুব শক্তভাবে উপলব্ধি করেছিলেন বিধায় ভাষাগত জাতীয়তাবাদ,যার মূল ভিত্তি হচ্ছে ভাষা এবং সংস্কৃতি,জনগণের মধ্যে ছড়িয়ে দেয়ার চেষ্টা করেছিলেন। চেয়েছিলেন একটি অসাম্প্রদায়িক সোনার বাংলা বিনির্মান করতে। যেখানে হিন্দু,মুসলিম,বৌদ্ধ,খৃষ্টান সকলেই থাকবে এক ছায়াতে।

কিন্তু ৭৫’ এর ১৫ আগষ্ট পাকিস্তানের দালালদের পাশবিক নির্মম গুলাবারুদের ঝাঁঝালো স্পর্শে বাংলাদেশ যেন আরো একশটি বছর পিছিয়ে গেলো। কোণঠাসা হয়ে পড়লো এই বঙ্গদেশের সংখ্যালঘুরা। তবে কি সংখ্যালঘুদের পাশে দাঁড়াতে কোনো রাজনৈতিক দলই নেই?

প্রিয়,পাঠক
সংক্ষেপে বলার চেষ্টা করছি। ক্যালেন্ডারের পাতায় ১৯৯২ সাল! ভারত বাংলাদেশ দুই সীমান্তেই ভূখণ্ড উত্তপ্ত সাম্প্রদায়িক বিষবাষ্পে। অপার বাংলায় বাবরী মসজিদ ভাঙা হয়,যার প্রতিদান দিতে হয়েছে এই পাড়ের সংখ্যালঘু হিন্দুদের। ভাঙা হয় ৩৫২ টির মতো মন্দির।লুটপাট রাহাজানি ছিল নিত্যদিনের ঘটনা।

৯৬’সালে ক্ষমতায় আসলো বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধের স্বপক্ষের শক্তি,বঙ্গবন্ধুর হাতেগড়া সংগঠন বাংলাদেশ আওয়ামীলীগ। সংখ্যালঘু সম্প্রদায়ের শেষ আশ্রয়স্থল যেন এই ঐতিহ্যবাহী দলটিই।কিন্তু দূর্ভাগ্যবশত বাংলার জমিনে শান্তির পতাকা যেন আর উড়লো না।

বিএনপি জামাতজোট সরকার ২০০১ সালে ভোট চুরির মধ্যে দিয়ে ক্ষমতায় এসে সংখ্যালঘুদের সকল আশা আকাঙ্ক্ষা পুনরায় ধূলিসাৎ করে দিলো।

একযোগে পাশবিক নির্যাতন,গনহত্যা,ধর্ষণ,লুটপাটকেই পুঁজি করে নিলো ৭৫’এর খুনি জিয়াউর রহমানের এই দলটি।সে বছরে হিন্দুদের সবচেয়ে বড় উৎসব দুর্গাপূজাকে পরিণত করেছিলো রণভূমিতে।

সেই সময়ের বিভিন্ন পত্র পত্রিকা ঢালাও ভাবে ঘটনা গুলো প্রচার করেছিলো। পাঠকের বুঝার সুবিধার্থে সেই সময়ের দুর্গাপূজার কয়েকটি ঘটনা তুলে ধরার চেষ্টা করছি।

‌‌*৩ অক্টোবর ২০০১;খুলনায় জামাতের মিছিল থেকে মন্দিরে হামলা। (দৈনিক মুক্তকণ্ঠ)

*৪অক্টোবর ২০০১;নারায়ণগঞ্জে হিন্দু ধর্মীয় প্রতিষ্ঠানে হামলা। ভোরের কাগজ)

*৬ অক্টোবর ২০০১ ;বাউমালে ৮ প্রতিমা ভাঙ্গা হয়েছে। (ভোরের কাগজ)

*৬অক্টোবর ২০০১;সাঈদীর এলাকায় আগুন দেয়া হচ্ছে সংখ্যালঘুদের বাড়িতে

*৮অক্টোবর ২০০১;এবার দুর্গাপূজা হবে কি?(জনকণ্ঠ)

*১৭ অক্টোবর ২০০১;লক্ষমীপুর উপজেলায় অধিকাংশ হিন্দু মন্দিরে দুর্গাপূজা হবে না।(দৈনিক সংবাদ)

*১৭ অক্টোবর ২০০১;নবাবগঞ্জে ৩টি প্রতিমা ভাঙচুর। (জনকণ্ঠ)

*১৬ অক্টোবর ২০০১;পিরোজপুরে প্রতিমা ভাঙচুর

*১৭ অক্টোবর ২০০১;ঈশ্বরদীতে মন্দিরে হামলা ৯টি প্রতিমা ভাঙচুর। (ভোরের কাজ)

*১৭ অক্টোবর ২০০১;রায়পুরায় ৪টি মূর্তি ভাঙচুর। /দৈনিক খবর

২০০১ সালের বিএনপি জামাতজোট সরকারের সংখ্যালঘু নির্যাতনের চিত্র একশো পাতায় লিখলেও হয়ত শেষ করা যাবে না।

অবশ্য,যারা প্রতিপক্ষ দলকে নেতৃত্বশূন্য করার জন্য গ্রেনেড হামলা চালায়,তারা আর যাইহোক কোনো সভ্য দেশের সুস্থ রাজনৈতিক দল হতে পারে না। তবুও বর্তমান বাংলাদেশে যেখানে বিশ্বনেত্রী বঙ্গবন্ধু তনয়া শেখ হাসিনার নেতৃত্বে দেশ বিশ্বের মানচিত্রে মাথা উঁচু করে বেঁচে থাকার গৌরব অর্জন করেছে,সেখানে এখনো কিছু পাকিস্তানের প্রেতাত্বারা বঙ্গবন্ধু কন্যা শেখ হাসিনার নেতৃত্বকে প্রশ্নবিদ্ধ করার জন্য বিভিন্ন সময়ে দেশের বিভিন্ন প্রান্তে সাম্প্রদায়িক হামলা করার প্রয়াস করে।

সমাজে আজকে সুশীল সেজে বসে থাকা মানুষ গুলো যখন আওয়ামী লীগের উন্নয়নকে সহ্য করতে না পেরে সাম্প্রদায়িক রাজনীতিকে অবলম্বন করেই আওয়ামী লীগকে সাম্প্রদায়িক বানাতে চায়,তারা অতীত ভুলে যায়।

বুঝতে হবে,ব্যক্তির নৈতিক শিক্ষা,ধর্মীয় শিক্ষা,মূল্যবোধের শিক্ষার উন্নতি না হলে আওয়ামী লীগ কেন,কোনো সরকারই ভালো করতে পারবে না।

বরং এটা সত্যি,বিএনপি জামাত জোট সরকার সাম্প্রদায়িকতাকে পুঁজি করে যে বাংলাদেশ গড়ার প্রয়াস করেছিলো,সেখানে গনমানসের অসাম্প্রদায়িক চেতনায় বিশ্বাসী দল বাংলাদেশ আওয়ামীলীগ সেই পথে হাঁটছে না। প্রমোট করছে না,সাম্প্রদায়িকতাকে।

আজকে মসজিদে আজান হচ্ছে,মন্দিরে ঘন্টা বাজছে এই সম্প্রীতির দৃশ্য কেবল বঙ্গবন্ধু কন্যার নেতৃত্বে থাকা দল বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের দ্বারাই সম্ভব।

বাংলাদেশের জনগন যেদিন সঠিক ধর্মীয় এবং নৈতিক শিক্ষা য় শতভাগ সাফল্য অর্জন করবে,সেদিন সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতির দেশ বাংলাদেশকে বিশ্ববাসী নতুন করে চিনবে।

যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক
বাংলা বিভাগ,শাবিপ্রবি ছাত্রলীগ

Developed By The IT-Zone