ঢাকাবৃহস্পতিবার , ৩০ এপ্রিল ২০২০
আজকের সর্বশেষ সবখবর

সাধারণ মানুষের আশা-ভরসার আশ্রয়স্থল মোতাচ্ছিরুল ইসলাম

দৈনিক আমার হবিগঞ্জ
এপ্রিল ৩০, ২০২০ ৯:৩৭ অপরাহ্ণ
Link Copied!

মো: আব্দুল জলিল :   বৈশ্বিক মহামারী করোনাভাইরাস বাংলাদেশে প্রথম সনাক্ত হয় গত ৮ মার্চ। এরপর ধীরে ধীরে আক্রান্তের সংখ্যা ও মৃত্যুর মিছিল বাড়তে থাকায় গত ২৬ মার্চ মহান স্বাধীনতা দিবসের দিন থেকেই সারাদেশে সাধারণ ছুটি ঘোষণা করা হয়। এরপর দফায় দফায় সাধারণ ছুটি বাড়ছে। আর এ ছুটি ঘোষণার সাথে সাথেই মানুষকে ঘরে থাকার আহবান জানিয়ে প্রচার-প্রচারণা শুরু হয়। শুরু হয় মাস্ক আর হ্যান্ড স্যানিটাইজার বিতরণ।

সারাদেশের মতো করোনাভাইরাস সতর্কতার প্রথম থেকেই হবিগঞ্জে প্রচার-প্রচারণা, মাস্ক আর হ্যান্ড স্যানিটাইজার নিয়ে মানুষ দ্বারে দ্বারে ছুটতে শুরু করেন হবিগঞ্জ পৌর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও সদর উপজেলা চেয়ারম্যান মোতাচ্ছিরুল ইসলাম। তিনি আবার হবিগঞ্জের চেম্বার অব কমার্সের সভাপতিও।

ছবি : নিজের জীবনের ঝুকি নিয়ে প্রত্যন্ত অঞ্চলে গিয়ে অসহায়দের কাছে খাদ্য সামগ্রী তোলে দিচ্ছে হবিগঞ্জ সদর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান মোতাচ্ছিরুল ইসলাম ।

তবে তিনি প্রচারণা কিংবা মাস্ক আর স্যানিটাইজার বিতরণেই থেমে থাকেননি। খোঁজ নিয়েছেন করোনার কারণে কর্মহীন হয়ে পড়া অসহায়, দরিদ্র মানুষের। তিনি তাদের ঘরে ঘরে পৌঁছে দিচ্ছেন খাদ্য সামগ্রী। কখনও তিনি নিজেই খাদ্য সামগ্রী নিয়ে ছুটছেন আবারও কখনো কাউকে দিয়ে পাঠিয়ে দিচ্ছেন। এভাবেই করোনাভাইরাসের সংকটের সময় দিন-রাত একে করে কাজ করছেন সাধারণ মানুষের জন্য।

জনপ্রতিনিধির বাইরে গিয়ে তিনি হয়ে উঠেছেন সাধারণ মানুষের আশা-ভরসার আশ্রয়স্থল। যখন যেখানে মানুষ থাকে স্মরণ করেছে তখনই তিনি সেখানে ছুটে গেছেন। মানুষের খাদ্য সমস্যা থাকতে খাবার দিচ্ছেন আবার কোথাও নিরাপত্তা সামগ্রীর অভাব থাকলে তিনি দিচ্ছেন নিরাপত্তা সুরক্ষা সামগ্রী। এছাড়া জেলা সদরের চিকিৎসকরা যাতে সবাইকে নির্ভয়ে সেবা দিতে পারেন সেজন্য দিয়েছে পিপিই। এসব কারণে মানুষ তার জনপ্রতিনিধির তকমা সরিয়ে ‘করোনাযোদ্ধা’ হিসেবেই পরিচয় করিয়ে দিচ্ছে।

আর হবিগঞ্জ জেলা ছাত্রলীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক মুকিদুল ইসলাম মুকিদ তো তাকে উদাহরণ হিসেবেই তুলে ধরে বলেন, হবিগঞ্জের অনেক মানুষ কৃষি কাজের উপর নির্ভরশীল। কাজ-কর্ম বন্ধ থাকায় অনেকেই কাটাচ্ছেন মানবেতর জীবন। আর গত উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে উপজেলাবাসী তাদের সর্বোচ্চ ভোট দিয়ে মোতাচ্ছিরুল ইসলামকে নির্বাচিত করেছিল বলেই আজকের বিপদের সময় জীবনের ঝুঁকি নিয়ে তিনি মানুষের দুয়ারে দুয়ারে যাচ্ছেন। নিয়মিত সরকারি ত্রাণের নিয়মিত তদারকি এবং ব্যক্তিগত ত্রাণ সামগ্রী পৌঁয়ে দিচ্ছেন।

ছবি : অসহায়দের কাছে দেয়ার জন্য প্যাকেট করা হচ্ছে খাদ্য সামগ্রী ! তা নিবিড়ভাবে পর্যবেক্ষন করছেন উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান মোতাচ্ছিরুল ইসলাম

তিনি আরও বলেন, আজকে ওনার ফেসবুক পেইজে দেখতে পেলাম রমজান মাস উপলক্ষে হাজার হাজার দরিদ্র পরিবারের জন্য খাদ্য সামগ্রী তৈরি করেছেন। আমরা যদি এমন মুতাচ্ছিরুল ইসলামের মত জনপ্রতিনিধিই নির্বাচিত করি তাহলে দেশ তথা দেশের মানুষের মঙ্গল হওয়াই স্বাভাবিক। তাই আসুন সারাবিশ্বের ন্যায় আমরা আমাদের হবিগঞ্জকে বাচাই। আমাদের হবিগঞ্জের সকল প্রতিনিধিরা সকল জনসাধারণরা কাঁধে কাঁধ মিলিয়ে আমরা আমাদের সর্বোচ্চ চেষ্টা দিয়ে গরীব দুঃখী অসহায় মেহনতি কেটে খাওয়া গৃহবন্দি নিম্নমধ্যবিত্ত মানুষের জন্য আমরা আমাদের সহযোগিতার হাত বাড়িয়ে দেই। আমরা আমাদের প্রত্যেকের নিজস্ব জায়গা থেকে আমরা তাদের ত্রাণ সামগ্রী পৌছিয়ে দেই। জনপ্রতিনিধিদেরকে উৎসাহিত করি তাদের পাশে থেকে তাদের ভাল কিছু কাজ মানুষের সামনে উপস্থাপন করি যাতে তারা দ্বিগুণ উৎসাহিত হয়ে সকলের জন্য কাজ করেন।

তবে হবিগঞ্জ সদর উপজেলা চেয়ারম্যান মোতাচ্ছিরুল ইসলাম জানান, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ত্রাণ তহবিল থেকে আসা ত্রাণগুলো আমি সরাসরি চেয়ারম্যান মেম্বারদের বণ্টন করে দেই। তবে আমি সার্বক্ষণিক তদারকিতে থাকি, আমার হাত দিয়ে সরকারী কোন ত্রাণ বিতরণ করিনি। সব ইউনিয়ন পরিষদের মেম্বার চেয়ারম্যানরা বণ্টন করেছেন। এছাড়া আমার ব্যক্তিগত উদ্যোগে সদরে ৪ হাজার পরিবারকে ত্রাণ সামগ্রী পৌছিয়ে দিয়েছি। এছাড়াও ব্যবসায়ী, সিএনজি শ্রমিক, ভিডিও গ্রাফার সমিতিসহ আমি সাধ্যমত পাশে থাকার চেষ্টা করেছি।

তিনি আরও বলেন, করোনাযুদ্ধে জয় না হওয়া পর্যন্ত আমি আমার জনগণের পাশে ছিলাম এখনও আছি এবং আগামীতে ও থাকবো।

প্রসঙ্গত, গত ১১ এপ্রিল নারায়ণগঞ্জ থেকে হবিগঞ্জে আসা এক ব্যক্তির নমুনায় করোনা পজিটিভ আসে। তিনিই হবিগঞ্জের প্রথম করোনা আক্রান্ত ব্যক্তি ছিলেন। এরপর ২০ এপ্রিল এক চিকিৎসক ও এক নার্সসহ ১০ জন, ২১ এপ্রিল একজন নার্সসহ দুইজন, ২২ এপ্রিল পাঁচজন, ২৩ এপ্রিল স্বাস্থ্যকর্মীসহ তিনজন, ২৪ এপ্রিল চিকিৎসকসহ পাঁচজন এবং ২৫ এপ্রিল চিকিৎসক, নার্স, স্বাস্থ্যকর্মী ও তিন ম্যাজিস্ট্রেটসহ আরও ২২ জনের করোনা পজিটিভ, ২৬ এপ্রিল আরও একজন, সবশেষ ২৮ এপ্রিল আরও চারজনের করোনা পজিটিভ আসে। সব মিলিয়ে জেলায় করোনা আক্রান্ত রোগীর সংখ্যা ৫২ জন। এরমধ্যে এক শিশুর মৃত্যু হয়েছে।

Developed By The IT-Zone