ঢাকাসোমবার , ১৪ ফেব্রুয়ারি ২০২২
আজকের সর্বশেষ সবখবর

সাংস্কৃতিক জাগরন ও আমাদের বাঙালিয়ানা

অনজন কুমার রায়
ফেব্রুয়ারি ১৪, ২০২২ ৬:৪৬ অপরাহ্ণ
Link Copied!

পাকিস্তানীদের ধারণা ছিল, বাঙালীদের দেশীয় সংস্কৃতি পাকিস্তান অঞ্চলের সাথে মানানসই নয়। অথচ ‘বাংলা ভাষা’ ও ‘বাঙালী জাতি’ দু’টি একই আভিজাত্য সত্ত্বার মননশীলতার বহি:প্রকাশ। যদিও তাদের আঘাতে আমাদের বাংলা ভাষা হারায়নি কিংবা বাঙালীয়ানা এতটুকু লীন হয়ে যায়নি। বরং বাংলা ভাষা তার স্বকীয়তা ধরে রাখতে পেরেছে এবং আমরা এখনো ষোল আনাই বাঙালী।

বাঙালীর সুপ্ত সাংস্কৃতিক স্বাতন্ত্র্যবোধ জেগে উঠেছিল বাংলা ভাষাকে ঘিরে। সেখান থেকেই অসাম্প্রদায়িক চেতনার একটি ক্ষীণ জলধারা তৈরি হয় এবং ক্রমেই তা ব্যাপ্তি লাভ করে। তাই, প্রাণের ভাষাকে রক্ষা করার জন্য বাঙালীরা প্রাণ বিসর্জন দিতেও কার্পণ্য করেনি। এটা যেমন বীর বাঙালী ইতিহাসে গৌরাগাঁথা সাফল্য তেমনি ভাষা আন্দোলনের সাংস্কৃতিক জাগরণও বটে।

এক্ষেত্রে, অনুঘটক হিসেবে কাজ করে সাংস্কৃতিক মুক্তির সংগ্রাম। যুক্তরাষ্ট্রের গবেষণা সংস্থা ব্রুকিংস ইনস্টিটিউশনের দক্ষিণ এশিয়া বিশেষজ্ঞ ব্রুস রিডেল তার ‘ডেডলি এমব্রেস’ বইতে লিখেন, পাকিস্থান সৃষ্টির প্রথম থেকেই “পাকিস্থানের কাছে বাংলার গুরুত্ব ছিল দ্বিতীয়” এবং বাঙালিদের “দ্বিতীয় শ্রেণীর নাগরিক” হিসেবে দেখা হতো।

অন্যদিকে, ব্রিটিশ সমাজ বিজ্ঞানী, জেনিফার কোটস পূর্ব পাকিস্তানের বাঙালিদের সংস্কৃতি রক্ষার লড়াই নিয়ে একটি গবেষণাধর্মী বই প্রকাশ করেন। সেখানে তিনি লিখেন, “ পূর্ব পাকিস্তানের সংস্কৃতি এবং পশ্চিম পাকিস্থানের সংস্কৃতির অনেক অমিল এবং বাঙালী তাদের সংস্কৃতি রক্ষা নিয়ে খুবই উদ্বিগ্ন ছিল ”। তিনি আরো লিখেন, ১৯৫৮ সালে পাকিস্তান শাসকরা বাঙালী সংস্কৃতিকে ভিন্ন খাতে- তারা বলতো সঠিক খাতে পরির্তনের কিছু পদক্ষেপ নিয়েছিল। তাতে মূল উদ্দেশ্য ছিল বাঙালি জাতীয়তাবাদকে চাপ দেওয়া।

সে উদ্দেশ্যেই তারা বাঙালীদের সাংস্কৃতিক পরিমণ্ডলের উপর হামলে পড়ে। এদেশের দেশীয় সংস্কৃতিকে পাল্টে দেয়ার গভীর ষড়যন্ত্রে লিপ্ত হয়। তারই প্রথম পদক্ষেপ হিসেবে মাতৃভাষা তথা বাংলা ভাষার উপর আক্রমণ শুরু করে।

পাকিস্তানের রাষ্ট্রভাষা উর্দু ঘোষণা করেই পাকিস্তানীরা থেমে থাকেনি। তাদের পরিকল্পনায় এমনও ষড়যন্ত্র ছিল, আরবি হরফে বাংলা লেখার সূক্ষ্ম বিভাজন অর্থাৎ বাংলা ভাষাকে আরবী ভাষায় রূপান্তরিত করবে। সেসময় ফজলে লোহানী একটি রূপান্তরিত কবিতা তুলে ধরেন।

বাংলা কবিতা:
সকালে উঠিয়া আমি মনে মনে বলি,
সারাদিন আমি যেন ভাল হয়ে চলি।
আদেশ করেন যাহা মোর গুরুজনে,
আমি যেন সেইকাজ করি ভাল মনে।
রূপান্তরিত কবিতা:
ফজরে উঠিয়া হাম দেলে দেলে বলি,
পূরা রোজ হাম যেন আচ্ছা হয়ে চলি।
হুকুম ফরমান যাহা মোর মুরুব্বিয়ানে
হাম যেন ওহি কাজ করে সাফ মনে।
– এই হলো রূপান্তরিত ভাষার অসহনীয় পরিণতি! অন্যদিকে, বাংলা নববর্ষ পালণে পাকিস্তানীদের পক্ষ থেকে প্রবল বাঁধা দেওয়া হয়। বাঙালিরা তাদের শত বাঁধা উপেক্ষা করে বাংলা নববর্ষ পালণ করে। তবে, সংস্কৃতির উপর সবচেয়ে বড় আঘাতটি আসে ১৯৬৭ সালের ২৪ জুন। সেদিন পত্রিকায় সংবাদ ছাপা হলো, রেডিও পাকিস্তান থেকে কোন রবীন্দ্রসঙ্গীত প্রচার করা হবে না! এ ষড়যন্ত্রে সাংস্কৃতিক অঙ্গনে বড় ধরণের নেতিবাচক প্রভাব পড়ে। কারণ, রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের ‘ ও আমার দেশের মাটি ’, ‘ আমি ভয় করব না, ভয় করব না ’ – এ সকল গান আমাদের প্রাণের মাঝে নতুনভাবে উচ্ছ্বাস জাগিয়ে রাখতো।

মুলত, তাদের সকল ষড়যন্ত্র নস্যাৎ হয়ে যায় বাঙালীর সাংস্কৃতিক জাগরনের ফলে। পাকিস্তানের এ সিদ্ধান্তের বিরোধীতা অনেক বুদ্ধিজীবী করেছিলেন। ১৮ জন বুদ্ধিজীবী বিবৃতি দিয়ে বলেন, “ রবীন্দ্রনাথের সাহিত্য বাংলা ভাষাকে যে ঐশ্বর্য দান করেছে, তাঁর সঙ্গীত আমাদের অনুভূতিকে যে গভীরতা ও তীক্ষতা দান করেছে, তা রবীন্দ্রনাথকে বাংলাভাষী পাকিস্তানীদের সাংস্কৃতিক সত্ত্বার অবিচ্ছেদ্য অংশে পরিণত করেছে।

সরকারি নীতিনির্ধারণের সময় এই সত্যের গুরুত্বকে মর্যাদা দান করা অপরিহার্য ”। বিবৃতিতে স্বাক্ষর করেন মুহম্মদ কুদরাত-এ-খুদা, কাজী মোতাহার হোসেন, বেগম সুফিয়া কামাল, জয়নুল আবেদীন, এম এ বারি, মুহম্মদ আব্দুল হাই, মুনীর চৌধুরী, খান সারওয়ার মুরশিদ, সিকান্দার আবু জাফর, মোফাজ্জল হায়দার চৌধুরী, আহমদ শরীফ, নীলিমা ইব্রাহীম, শামসুর রহমান, হাসান হাফিজুর রহমান, ফজল শাহাবুদ্দিন, আনিসুজ্জামান, রফিকুল ইসলাম, মোহাম্মদ মনিরুজ্জামান এবং শহীদুল্লাহ কায়সার। মানুষ কিংবা জাতি ধ্বংসকারী ব্যক্তিরা সকল সময়ই প্রতিপক্ষের চেতনায় আঘাত করে।

ইতিহাসও সেরকম স্বাক্ষ্য দেয়। জার্মানীর হিটলার ক্ষমতা গ্রহণের পরপরই নাৎসী বাহিনীর সদস্যরা সংস্কৃতি সংহারক ভূমিকায় অবতীর্ণ হয়েছিল। তাই, এক রাতেই প্রায় হাজার বিশেক বই পুড়িয়ে ফেলে। যার মুখ্য উদ্দেশ্য ছিল মানব সংহারে রূপ নেয়া। পাকিস্তানীদের ক্ষেত্রেও আমরা সেরকমই দেখতে পাই।

সংস্কৃতি বিষয়ে বর্বর দৃষ্টিভঙ্গির মাধ্যমে বাঙালী জাতিসত্ত্বা মুছে দিতে চেয়েছিল। প্রথমে সংস্কৃতি সংহার করে ক্রমেই তা মানব সংহারে রূপ নেওয়ার ষড়যন্ত্রে লিপ্ত ছিল। সেজন্যই ১৯৭১ সালের ২৫ মার্চ অপারেশন ‘সার্চ লাইট’- এর সময় বিভিন্ন গুণীজনদের পাশাপাশি সংস্কৃতি কর্মীদেরকেও হায়েনাদের লক্ষ্যবস্তুতে পরিণত হতে হয়। ফলে, আমাদের হারাতে হয়েছে অসংখ্য সংস্কৃতি ব্যক্তিদের।

‘সার্চ লাইট’-এর পরিকল্পনার চতুর্থ ধারায় উল্লেখ করা হয়, “ গ্রেপ্তার করতে হবে সর্বোচ্চ সংখ্যক রাজনীতিক ও ছাত্রনেতাদের এবং শিক্ষকমণ্ডলী ও সাংস্কৃতিক সংগঠনের মধ্যকার চরমপন্থীদের ”। তাতে বলা যায়, সংস্কৃতিমনা ব্যক্তিরা পাকিস্তানী দোসরদের চক্ষুশূলে পরিণত হয়েছিল। কি পার্থক্য রইল জার্মানীর হিটলারের নাৎসী বাহিনী এবং পাকিস্থানী শাসক গোষ্ঠীদের মাঝে।

হিটলারের নাৎসী বাহিনী আগুনে দগ্ধ করেছিল বই অপরদিকে পাকিস্তানীরা হত্যা করেছিল বইয়ের রচয়িতাদের! পাকিস্তানীরা বাজেয়াপ্ত করেছিল কিছু সংখ্যক বই- যার মধ্যে উল্লেখযোগ্য হলেন সত্যেন বসু, কামরুদ্দিন আহমদ, আব্দুল মান্নন প্রমুখ। শিল্প সংস্কৃতি চর্চা মানুষকে এক ধরণের আত্মপ্রকাশের সুযোগ দেয়।

শিল্পীত মনের ব্যক্তিরা মনের উৎকর্ষ সাধনে পরিবার, সমাজ ও রাষ্ট্রীয় জীবনে আবিষ্কার করে সম্ভাবনার নতুন দিগন্ত। সেই নতুন পথ ধরে এগিয়ে যায় সমাজ। সেক্ষেত্রে সংস্কৃতি হচ্ছে সমাজের ক্যানভাস স্বরূপ। মার্কসবাদী দার্শনিক শিবদাস ঘোষ যথার্থই বলেছেন, ‘মানুষের মননশীলতার সামগ্রিক ও সুন্দরতম প্রকাশ হচ্ছে সংস্কৃতি। শিল্প, সাহিত্য, কাব্য প্রভৃতি এই সংস্কৃতির বাহন।’ মননশীলতা গড়ে ওঠে বুদ্ধি এবং হৃদয় বৃত্তির যথার্থ সম্মিলনে। অথচ পাকিস্তানীরা সে জায়গাটাতেও বাঙালীদের আঘাত করেছিল।

স্বাধীনতা অর্জনের ৫০ বছরে অনেকটা চড়াই- উৎড়াই পেরিয়ে দেশ আজ এগিয়ে চলেছে। যে বাংলা ভাষার জন্য অনেককেই প্রাণ বিসর্জন দিতে হয়েছে তা আজ বিশ্ব দরবারে আসীন হয়ে আন্তর্জাতিক মর্যাদা লাভ করেছে। ১৯৯৭ সালের ১৭ নভেম্বর ইউনেস্কোর স্বীকৃতি নিয়ে অমর একুশে’র আত্মবলিদান আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবসের স্বীকৃতি নিয়ে জ¦লজ¦ল করছে।

একটা জাতির মেরুদণ্ড ভেঙ্গে গেলে সে জাতি আর উঠে দাঁড়াতে পারে না। অথচ, বাঙালী জাতির হাজার বছরের পথচলাকে আরও ঋদ্ধ শাণিত করে বৈশাখের বর্ণিল আয়োজন, দেশীয় সকল উৎসব ও আনুষ্ঠানিকতা। তবে, বাংলাদেশের ভাষা ও সংস্কৃতি মুক্তিসংগ্রামের অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালণ করেন স্বাধীন বাংলাদেশের রূপকার জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান।

বস্তুত, তাঁর সাধনার মধ্য দিয়েই ভাষা, ঐতিহ্য ও সংস্কৃতিকেন্দ্রিক বাঙালীদের পূর্ণাঙ্গ ভিত্তি রচিত হয়। রাজনীতিবিদ হওয়া সত্ত্বেও তিনি আমাদের মাঝে প্রতিষ্ঠা করতে পেরেছিলেন ভাষা,

সংস্কৃতি ও রাষ্ট্রভিত্তিক জাতীয়তাবাদ। এই ফেব্রুয়ারী মাসের প্রাক্কালে আমাদের শপথ হোক বাঙালীর সংস্কৃতি রক্ষার ব্রত নেয়া।

লেখক

অনজন কুমার রায়
ব্যাংক কর্মকর্তা ও কলামিস্ট

 

Developed By The IT-Zone