ঢাকাশুক্রবার , ২৯ নভেম্বর ২০১৯
আজকের সর্বশেষ সবখবর

শেখ হাসিনা মেডিকেল কলেজে দুর্নীতি

দৈনিক আমার হবিগঞ্জ
নভেম্বর ২৯, ২০১৯ ৭:২৩ অপরাহ্ণ
Link Copied!

ছবিঃ মানববন্ধনে বক্তব্য রাখছেন সংক্ষুব্ধ নাগরিক আন্দোলনের সমন্বয়কারী তোফাজ্জল ‍সুহেল।

রায়হান উদ্দিন সুমন।। হবিগঞ্জ শেখ হাসিনা মেডিকেল কলেজে নজিরবিহীন দুর্নীতির ঘটনায় উদ্বেগ প্রকাশ করেছেন নাগরিক সমাজ। শুক্রবার (২৯ নভেম্বর ) বিকাল চারটায় টাউন হল সম্মুখস্থ শহরের প্রধান সড়কে সংক্ষুব্ধ নাগরিক আন্দোলন বিক্ষোভ ও নাগরিক বন্ধনের আয়োজন করে। দুর্নীতির ঘটনায় জড়িতদের চিহ্নিত করে অবিলম্বে তাদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণের দাবি জানানো হয়েছে এই মানববন্ধনে।

সংক্ষুব্ধ নাগরিক আন্দোলনের সমন্বয়কারী তোফাজ্জল সোহেল এর সভাপতিত্বে ও আমিনুল ইসলামের সঞ্চালনায় বক্তব্য রাখেন বৃন্দাবন সরকারি কলেজের সাবেক অধ্যক্ষ অধ্যাপক মো: ইকরামুল ওয়াদুদ, হবিগঞ্জ প্রেসক্লাবের প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি অ্যাডভোকেট মনসুর উদ্দিন আহমেদ ইকবাল, প্রেসক্লাবের সাবেক সভাপতি বিশিষ্ট সাংবাদিক শুয়েব চৌধুরী, সাংবাদিক রফিকুল হাসান চৌধুরি তুহিন, ব্যবসায়ী কল্যাণ সমিতির সভাপতি আলহাজ্ব শামসুল হুদা, সমাজকর্মী এডভোকেট বিজন বিহারী দাস, রজব আলী মাস্টার, সৈয়দ আসাদুজ্জামান সুহান, মনসুর আহমেদ, আবিদুর রহমান রাকিব, নদী খা, আমিনুল ইসলাম ও সানজিদ শিহাম প্রমূখ।

নাগরিকবন্ধনে বক্তারা আরো বলেন, শেখ হাসিনা মেডিকেল কলেজে বিশাল দুর্নীতির খবর গণমাধ্যমে প্রকাশিত হলেও এখন পর্যন্ত দায়ীদের বিরুদ্ধে কোনো ধরনের ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়নি ,যার ফলে বিস্মিত হয়েছেন বিভিন্ন শ্রেণি-পেশা সহ সাধারণ জনগণ। এই বিশাল দুর্নীতির সঙ্গে যুক্ত ডাক্তার আবু সুফিয়ান’সহ কেউ যেন দেশ ছেড়ে পালিয়ে যেতে না পারে সে ব্যাপারে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থাগ্রহণ সহ দ্রুততম সময়ের মধ্যে শেখ হাসিনা মেডিকেল কলেজের দুর্নীতির বিষয়ে যথাযথ আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করে তাদের বিরুদ্ধে কঠোর শাস্তি মূলক ব্যবস্থা গ্রহণের দাবি জানিয়েছেন বক্তারা।

উল্লেখ্য ২০১৮ সালে মালামাল ক্রয়ের জন্য প্রায় ১৫ কোটি টাকার দরপত্র আহবান করে শেখ হাসিনা মেডিকেল কলেজ কর্তৃপক্ষ। দরপত্রে অংশ নেয় ৭ টি ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান। এর মধ্যে নির্ঝনা এন্টারপ্রাইজ ও পূনম ট্রেড ইন্টারন্যাশনাল নামে ঢাকার দুটি প্রতিষ্ঠানকে দেয়া হয় মালামাল ক্রয়ের দায়িত্ব। অভিযোগ রয়েছে, ওই দুটি প্রতিষ্ঠান বাজার দর নির্ধারণ কমিটির যোগসাজষে প্রায় ৮ কোটি টাকা দূর্নীতি করেছে। ল্যাপটপ, প্রিন্টার ও ওজনমাপার যন্ত্রসহ বিভিন্ন মালামালের মূল্য দেখানো হয়েছে বাজাদরের পাঁচ থেকে ৭ গুণ বেশি।

সূত্র জানায়, বরাদ্দ ছিল ১৫ কোটি ৫০ লাখ টাকা। ভ্যাট ও আয়কর খাতে সরকারি কোষাগারে জমা হয় ১ কোটি ৬১ লাখ টাকা ৯৭ হাজার ৭শ’ ৪৮ টাকা। মালামাল ক্রয় বাবত ব্যায় দেখানো হয় ১৩ কোটি ৮৭ লাখ ৮১ হাজার ১শ’ ৯ টাকা। কিন্তু বাস্তবে ওই মালামালের মূল্য ৫ কোটি টাকার বেশি নয়, এমনটাই বলছে দরপত্র প্রক্রিয়ার সাথে সংশ্লিষ্ট একটি সূত্র। বাকি টাকার পুরোটাই হয়েছে ভাগ-বাটোয়ারা।

সূত্র মতে, সরবরাহকৃত মালামালের মধ্যে ৬৭টি লেনেভো ল্যাপটপের (মডেল ১১০ কোর আই ফাইভ, কিং জেনারেশন) মূল্য নেয়া হয় ৯৯ লাখ ৪৯ হাজার ৫শ’ টাকা। প্রতিটির মূল্য পড়েছে ১ লাখ ৪৮ হাজার ৫শ’ টাকা। অথচ ঢাকার কম্পিউটার সামগ্রী বিক্রয়কারী প্রতিষ্ঠান ফ্লোরায় একই মডেলের ল্যাপটপ বিক্রি হচ্ছে মাত্র ৪২ হাজার টাকায়। ৬০ হাজার টাকা মূল্যের এইচপি কালার প্রিন্টার (মডেল জেড প্রো এম ৪৫২এন ডব্লিউ)-এর দাম নেয়া হয়েছে ২ লাখ ৪৮ হাজার ৯শ’ টাকা। ৫০ জন বসার জন্য কনফারেন্স টেবিল, এক্সিকিউটিভ চেয়ার ও সাউন্ড সিস্টেমে ব্যয় হয়েছে ৬১ লাখ ২৯ হাজার টাকা। জনপ্রতি চেয়ার-টেবিল ও সাউন্ড সিস্টেমের ব্যয় পড়েছে ১ লাখ ২২ হাজার ৪শ’ টাকা। চেয়ারগুলোতে ‘ইয়ামিন ফার্নিচার’ লেখা থাকলেও টেবিলগুলো কোন প্রতিষ্ঠানের এর কোনো স্টিকার লাগানো নেই।

খোঁজ নিয়ে জানা যায়, দেশের নামিদামি ফার্নিচার প্রতিষ্ঠান হাতিল ও রিগ্যালে এসব চেয়ারের মূল্য ওই দামের অর্ধেকের চেয়েও কম। শুধু তাই নয়, অত্যন্ত সাধারণ মানের ১৫টি বুক সেলফের মূল্য ৬ লাখ ৬০ হাজার, ৫টি স্টিলের আলমিরা ২ লাখ ৮৫ হাজার, ১০টি স্টিলের ফাইল কেবিনেট ৪ লাখ ২২ হাজার, ২৫টি স্টিলের র্যাক ১৩ লাখ ৯৭ হাজার ও ৬৪৭৫টি বইয়ের জন্য বিলে দেখানো হয়েছে ৪ কোটি ৪৯ লাখ ৮ হাজার ৬শ’ ৬৪ টাকা। এছাড়াও বিলে মানবদেহের বিভিন্ন অঙ্গ-প্রত্যঙ্গের ১০৪টি প্লাস্টিক মডেলের মূল্য ১ কোটি ১৪ লাখ ৮৬ হাজার ৩১৩ টাকা দেখানোসহ দেশের বাজারে ‘পেডিয়াটিক সার্জারি’ (২ ভলিয়মের সেট) বইটির দাম ৩৩ হাজার টাকা হলেও নির্ঝরা এন্টারপ্রাইজ দাম নিয়েছে ৭০ হাজার ৫শ’ ৫০ টাকা। এদিকে, মতিঝিলের মঞ্জুরি ভবনের পুনম ট্রেড ইন্টারন্যাশনাল নামে আরেকটি ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান ৩ লাখ ২৫ হাজার টাকা দরে ৮১টি কার্লজিস প্রিমো স্টার বাইনোকুলার মাইক্রোস্কোপ সরবরাহ করেছে। যার মূল্য নিয়েছে ২ কোটি ৬৩ লাখ ৩শ’ ২৫ টাকা। অথচ এর বাজার মূল্য ১ লাখ ৩৯ হাজার ৩শ’ টাকা। পুনম ইন্টারন্যাশনাল এসি’র দাম ১ লাখ ৬৮ হাজার টাকা দরে ৩১টির মূল্য নিয়েছে ৬১ লাখ ৩৮ হাজার টাকা। ওয়ালটনের যে মডেলের ফ্রিজ ৩৯ হাজার ৩শ’ ৯০ টাকা, একই কোম্পানি ও একই মডেলের ফ্রিজের মূল্য গুনতে হয়েছে ৮৫ হাজার টাকা। এ রকম ৬টি ফ্রিজ কেনা হয়। ল্যাবরেটরিতে ব্যবহারের জন্য ডিজিটাল ওয়েইং (ওজন মাপার যন্ত্র) মেশিনের দাম নেয়া হয়েছে ৬ লাখ ৪০ হাজার টাকা। বাস্তবে যার বাজার মূল্য ৪০ হাজার টাকা করে।

এছাড়া মানব দেহের বিভিন্ন অঙ্গ প্রত্যঙ্গের ছবি সম্বলিত কাগজে ছাপা চার্ট বাজারে ১শ’ থেকে ৫শ’ টাকায় পাওয়া গেলেও কলেজ কর্তৃপক্ষ প্রতিটি চার্ট কিনেছে ৭ হাজার ৮শ’ টাকা দরে। এ রকম ৪৫০টি চার্ট ক্রয়ে ব্যয় হয়েছে ৩৫ লাখ ১০ হাজার টাকা। দেশে ১ লাখ ৩৮ হাজার টাকায় পাওয়া যায় ‘স্টারবোর্ড‘ নামে হিটাচি কোম্পানির ৭৯ ইঞ্চির ইন্টারেক্টিভ বোর্ড। কিন্তু একই কোম্পানি ও মডেলের এই ইন্টারেক্টিভ বোর্ডটি কেনা হয়েছে ১৫ লাখ ৩৫ হাজার টাকায়। এ যেন এক তুঘলকি কান্ড।

গত এক সপ্তাহ যাবৎ বিভিন্ন স্থানীয় ,জাতীয় দৈনিক পত্রিকা, ইলেকট্রনিক মিডিয়াসহ সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে প্রচার হয় এই সংবাদটি।

Developed By The IT-Zone