ঢাকাশনিবার , ১৬ মে ২০২০

শায়েস্তাগঞ্জে লকডাউনে জনপ্রিয় হয়ে উঠছে রাইড শেয়ারিং

অনলাইন এডিটর
মে ১৬, ২০২০ ২:১০ অপরাহ্ণ
Link Copied!

সৈয়দ হাবিবুর রহমান ডিউক, শায়েস্তাগঞ্জ  :   সারাদেশে চলছে  লংটাইম জুড়ে লকডাউন, সরকারের ঘোষণা অনুযায়ী যাত্রীবাহী পরিবহনগুলো বন্ধ রয়েছে।তবুও থেমে নেই মানুষের পথ চলা, কেউবা রিস্কায়, কেউ সিএনজিতে, আবার কেউ বাইকে হলেও ছুটে চলেছেন। যাত্রীবাহী যান না চলার কারণে গত মাস খানেক ধরে শায়েস্তাগঞ্জে ফাঁকা রাস্তায় জনপ্রিয় হয়ে উঠছে রাইড শেয়ারিং। যদিও হবিগঞ্জ তথা শায়েস্তাগঞ্জে অ্যাপ ভিত্তিক রাইড শেয়ারিং, পাঠাও, উবার চালু হয়নি।

ছবি : ফাঁকা রাস্তার পেয়ে রাইড শেয়ারিংয়ে মেতে উঠেছে কতিপয় যুবক

শায়েস্তাগঞ্জের বেশকিছু কতিপয় যুবক নিজস্ব বাইকে একজন দুইজন করে যাত্রীদের সেবা দিয়ে যাচ্ছেন, বিনিময়ে আয় করছেন টাকা। সরজমিনে ঘুরে দেখা যায়, অলিপুর থেকে আজ শনিবারে রাইড শেয়ারিং করছেন মো: শোয়েব মিয়া, তার পরনে পিপিই, পকেটে স্যানিটাইজার, মাথায় হেলমেট যথেষ্ট নিরাপত্তা বজায় রেখে তিনি হবিগঞ্জে যাত্রী পৌছে দিয়ে ভাড়া নিচ্ছেন জনপ্রতি ২০০ টাকা। এভাবে সেবা দিয়ে তিনি দিন ২০০০-২৫০০ টাকা ইনকাম করছেন। যাদের ড্রাইভিং লাইসেন্স ও বাইকের কাগজপত্র ঠিক আছে তারাই মুলত এভাবে কিছুটা হলেও এই লকডাউনে আয় করতে পারতেছেন।

ছবি : রাইড শেয়ারিং করে সেবা দিয়ে যাচ্ছেন অনেকেই

শায়েস্তাগঞ্জের নতুন ব্রীজ পয়েন্টে সেবা দিচ্ছেন মো: এখলাছ মিয়া তিনি নতুন ব্রীজ থেকে হবিগঞ্জ যাত্রী নিচ্ছেন ১০০-১২০ টাকা ভাড়ায়। অনেকেই আবার অতিরিক্ত আয়ের আশায় জীবনের ঝুকি নিয়ে এক জেলা থেকে অন্য জেলাতে ও লোক পৌছিয়ে দিচ্ছেন। এই করোনার সংক্রামনে তাদের একাজে ঝুকি ও বেশ। বাইকের পেছনে করে একজন দুইজন যাত্রী বহন করলে ও যাত্রীদের নেই তেমন সুরক্ষার সরঞ্জামাদি, ফলে ভাইরাস ছড়ানোর ঝুকি থেকেই যাচ্ছে। জরুরী কাজে বের হওয়া মানুষগুলো তাড়াতাড়ি গন্তব্যে যাওয়ার আশায় অতিরিক্ত টাকা দিয়ে রাইড শেয়ারিং সেবা নিচ্ছেন।

শায়েস্তাগঞ্জের  বাসিন্দা মো, সুজাত আহমেদ বলেন, এই লকডাউনে হবিগঞ্জে ও অ্যাপভিত্তিক রাইড শেয়ারিং চালু করা হলে ভাল হত। এত করে জরুরী প্রয়োজনে বের হওয়া মানুষ সহজেই গন্তব্যে যেতে পারত।

রাইডার মো: মাসুক মিয়ার নিজের বাইক নেই, তিনি আরেকজনের কাছ থেকে আবার ভাড়ায় এনছেন। তিনি বলেন, ভাই সবসময় যাত্রী পাওয়া যায়না, তবে কোন কোনদিন ভালই ইনকাম হয়, কিছু একটা করে তো খেতে হবে। তাই ঝুকি নিয়ে ও কোনভাবে চলার ক্ষুদ্র চেষ্টা করছি।

Developed By The IT-Zone