ঢাকাশুক্রবার , ২৪ জুন ২০২২
আজকের সর্বশেষ সবখবর

শায়েস্তাগঞ্জে বানের জলে ডুবেছে কৃষকের স্বপ্ন

মুহিন শিপন,শায়েস্তাগঞ্জ
জুন ২৪, ২০২২ ৬:৩১ অপরাহ্ণ
Link Copied!

ক’দিন আগেও ছিল তীব্র খরা। ফসল উৎপাদনে পড়েছিল বিরূপ প্রভাব। এর রেশ না কাটতেই এবার বানের জলে তলিয়েছে বিস্তীর্ণ ফসলি জমি। এতে দিশেহারা হয়ে পড়েছেন শায়েস্তাগঞ্জ উপজেলার কৃষকরা।

সরেজমিনে দেখা গেছে, অতিবৃষ্টি এবং উজান থেকে নেমে আসা পাহাড়ি ঢলে সৃষ্টি হওয়া বন্যাপরিস্থিতির কারণে শায়েস্তাগঞ্জ উপজেলার প্রায় ৮০ ভাগ কৃষি জমি পানিতে তলিয়ে গেছে। আকস্মিক ঢলে এলাকা প্লাবিত হওয়ায় অনেক পুকুর ও ফিসারির মাছ পানিতে ভেসে গেছে।

এতে কয়েক কোটি টাকার লোকসানে পড়েছেন কৃষক ও খামারিরা। যাদের অনেকে ঋণ করে আবাদ করেছিলেন বর্গা নেয়া জমিতে। সোনালি ফসলের আশায় যেন বুনেছিলেন সোনালি স্বপ্নও। তবে সর্বনাশা বানের জল সেই স্বপ্নকে দুঃস্বপ্নে পরিণত করেছে।

কৃষি বিভাগের তথ্য মতে, শায়েস্তাগঞ্জ উপজেলায় এই মৌসুমে ৭৫০ হেক্টর জমিতে চাষাবাদ করা আউশ ধানের ৬৫ ভাগ সম্পুর্ন পানিতে নিমজ্জিত হয়ে বিনষ্ট হয়েছে। এছাড়াও ১০৫ হেক্টর জমির মধ্যে ৬০ হেক্টর জমির সবজি সম্পুর্ন ধ্বংস হয়েছে । অবশিষ্ট ৫৫ হেক্টর জমির সবজিও বিনষ্টের পথে।

এদিকে, বানের জলে তলিয়ে যাওয়া ক্ষতিগ্রস্থ কৃষকদের মধ্যে কথা হয় ফরিদ মিয়ার সাথে। তিনি শায়েস্তাগঞ্জ ইউনিয়নের মড়রা এলাকার বাসিন্দা। ৩২ শতাংশ জমি জুড়ে আবাদ করেছিলেন ঢেঁরশ, লাউ, চিচিঙ্গাসহ বিভিন্ন সবজি। যা এখন পানির নিচে তলিয়ে গেছে। তিনি আক্ষেপ করে বলেন, “অনেক ট্যাখা খরচা কইরা সবজি চাষ করছিলাম, পানির কারনে ঘরে তুলতে পারলাম না”।

মাছের খামারের মালিক সুমন মিয়া জানান, উজানের পানির কারনে তার ২ লাখ টাকার মাছ ভেসে গেছে। তার মতো এমন ক্ষতিগ্রস্ত খামারি আছেন কমপক্ষে ২০ জন।

এ বিষয়ে উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা সুকান্ত ধর বলেন, শায়েস্তাগঞ্জ উপজেলার ৮৫৫ হেক্টর আবাদকৃত সবজি ও ধানের প্রায় ৬৫ ভাগ পুরোপুরি বিনষ্ট হয়ে গেছে। পানি সরে গেলে প্রকৃত ক্ষতির পরিমান নিরুপন করতে পারবো।

তিনি আরও যুক্ত করেন, আজ শুক্রবার (২৪জুন) বিভাগীয় মিটিংএ বন্যায় ক্ষতিগ্রস্ত কৃষকদেরকে যেন বিনামূল্যে আরও বেশি সার ও বীজসহ বিভিন্ন সহায়তা প্রদান করা হয় সেই লক্ষ্যে প্রস্তাব উপস্থাপন করা হয়েছে।

Developed By The IT-Zone