ঢাকারবিবার , ১৭ মে ২০২০
আজকের সর্বশেষ সবখবর

শায়েস্তাগঞ্জে ঈদের আমেজে শারিরীক দুরত্ব না মেনেই চলছে কেনাবেচা

দৈনিক আমার হবিগঞ্জ
মে ১৭, ২০২০ ২:৩৬ অপরাহ্ণ
Link Copied!

সৈয়দ হাবিবুর রহমান ডিউক  :   শায়েস্তাগঞ্জে  ঈদ আমেজে কেনাকাটায় ব্যস্ত হয়ে পড়েছেন ক্রেতাগন।  দেখে বুঝার উপায় নেই  যে লকডাউন চলছে। কেনাকাটায়  পিছিয়ে নেই কিশোর কিশোরীসহ অত্র অঞ্চলের যুবক যুবতীরা ও। সরজমিনে দেখা যায়, কেউ মানছেন না স্বাস্থ্যবিধি ও নেই শারিরীকক দুরত্ব, কার আগে কে কেনকোটা করবে এই নিয়ে যেন প্রতিযোগীতা চলছে। এদিকে শায়েস্তাগঞ্জের ব্যবসায়ীদের দোকান বন্ধ রাখার সিদ্ধান্তেরও কোন বাস্তবায়ন নেই। প্রথমে জনস্বাস্থ্য বিবেচনায় দোকানপাট ও শপিং মল না খুলার সিদ্ধান্তের কথা জানালেও এখন কেউ মানছেন না এ সিদ্ধান্ত । আর এতে ক্রেতারা কোনো ধরনের শারীরিক দূরত্ব বজায় না রেখে এবং স্বাস্থ্যবিধি না মেনে ভিড় করে জামা-কাপড় কিনছেন।

ছবি : লকডাউনের মধ্যে মার্কেট খোলা রাখায় কাস্টমারদের ভিড় লেগেই থাকছে

গত ১১ মে থেকে দোকানপাট খুলা শুরু হয়। প্রতিদিন সকাল থেকে দুপুর পর্যন্ত বিশেষ করে শহরের কাপড়ের দোকান গুলোতে উপচে পড়া ভিড় দেখা গেছে। রবিবার (১৭মে) সরজমিনে মার্কেট গুলো ঘুরে দেখা যায় কাপড়ের দোকানগুলো মহিলাদের উপচে পড়া ভিড়।  রেশমা আক্তার নামে এক ক্রেতা জানান ঈদের আর কয়েকদিন বাকি। ঈদে বাচ্চাদের নতুন জামা কাপড় কিনে দিতে হবে। তাই নতুন কাপড় কিনতে মার্কেটে এসেছেন। কেনাকাটা করতে এসে তো স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলা যায় না।

ছবি : শায়েস্তাগঞ্জে সামজিক দুরত্ব না মেনে কাপড়ের দোকান গুলোতে চলছে বেচাকেনা

গত ১০ মে থেকে সারা দেশে সীমিত আকারে সরকার ব্যবসা প্রতিষ্ঠান খোলার অনুমতি দিলেও জনস্বাস্থ্য বিবেচনায় শায়েস্তাগঞ্জ ব্যবসায়ী কল্যান সমিতি ও দাউদনগর বাজার ব্যবসায়ী কল্যান সমিতির নেতৃবৃন্দ আলাপ আলোচনা করে তাদের ব্যবসা প্রতিষ্ঠান বন্ধ রাখার সিদ্ধান্ত নেন ঈদ পর্যন্ত। তবে ১১ মে সকাল থেকেই কর্তৃপক্ষের সিদ্ধান্ত না মেনে শায়েস্তাগঞ্জের দাউদনগর বাজারে প্রায় অধিকাংশ  দোকান খোলা রেখে কাপড়, কসমেটিক ও জুতা বিক্রি করছেন। আর এতে জনসাধারণরা কোনো ধরনের শারিরীক দূরত্ব বা স্বাস্থ্যবিধি না মেনে ভিড় করে তাদের কেনাকাটা করছেন । এর ফলে শায়েস্তাগঞ্জের মানুষদের চরম করোনা-ঝুঁকি রয়েছে বলে মনে করছেন স্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞরা।

 

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক মার্কেটের কয়েকজন ব্যবসায়ীর সঙ্গে কথা বললে তারা জানান, দিনের দিন দোকান না খুলে তারা কী ধরনের আর্থিক কষ্টে আছেন তা শুধু তারাই জানেন, কাউকে বলে বুঝাতে পারবেন না। পেটের দায়ে তারা দোকান খুলেছেন। তবে ক্রেতাদের তারা স্বাস্থ্যবিধি মানার অনুরোধ করছেন সবসময়। কেউ মানছেন, কেউ মানছেন না। তারা নিজেরাও সতর্কতা অবলম্বন করছেন এবং মার্কেটে ঢুকার মুখে সবার হাতে হ্যান্ড স্যানিটাইজার স্প্রে করা হচ্ছে।

 

এ বিষয়ে অধিকাংশ শায়েস্তাগঞ্জ দাউদনগর বাজার ব্যবসায়ী কল্যাণ সমিতির সাধারণ সম্পাদক আতাউর রহমান মাসুক বলেন  আবু জাহির এমপির অনুরোধ ও জনসাধরনের কথা চিন্তা করে ব্যকসের সকল সদস্যদেরকে সাথে নিয়ে আমরা দোকানপাট বন্ধ রাখার সিদ্ধান্ত নিয়েছিলাম। কিন্তু কিছু ব্যবসায়ীরা সিদ্ধান্ত অমান্যকরে দোকানপাট খোলা রেখেছেন। আমি এ বিষয়ে আবার ব্যকসের নেতাদের কে নিয়ে বসে পরবর্তী পদক্ষেপ নিবো।

এ ব্যাপারে শায়েস্তাগঞ্জ ব্যবসায়ী কল্যান সমিতির সাধারন সম্পাদক আব্দুল মুকিত বলেন আমাদের ব্যকসের আওতাধীন ব্যবসায়ীরা বলতে গেলে দোকানপাট খুলছেন না, হয়তো দুইচার জন দোকান খোলা রাখছেন। আমরা তাদের সাথে আলাপ করে বন্ধ করে দিবো। এ বিষয়ে শায়েস্তাগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী অফিসার সুমী আক্তার বলেন সরকারী নির্দেশনা মেনে দোকানপাঠ সীমিত আকারে খুলার অনুমতি দেয়া হয়েছে। যদি ব্যবসায়ী ও ক্রেতাগন সরকারী নির্দেশনা না মানেন তাহলে আইনানুগ ব্যবস্তা নেয়া হবে।

Developed By The IT-Zone