ঢাকাবুধবার , ২৯ এপ্রিল ২০২০
আজকের সর্বশেষ সবখবর

শায়েস্তাগঞ্জের সুতাং নদী যেন মরা খাল : চলছে চাষাবাদ

দৈনিক আমার হবিগঞ্জ
এপ্রিল ২৯, ২০২০ ২:১৮ অপরাহ্ণ
Link Copied!

সৈয়দ হাবিবুর রহমান ডিউক, শায়েস্তাগঞ্জ:   শায়েস্তাগঞ্জের সুতাং নদীর দুই পাড়ে জেগে ওঠা বালুচরে চাষাবাদ করছেন কৃষকেরা। বাংলাদেশ-ভারতের একটি আন্তসীমান্ত নদী। নদীটি বাংলাদেশের উত্তর-পূর্বাঞ্চলের হবিগঞ্জের একটি নদী। নদীটির দৈর্ঘ্য ৮২ কিলোমিটার, গড় প্রস্থ ৩৬ মিটার এবং নদীটির প্রকৃতি সর্পিলাকার।

খননের অভাব, ভরাট ও দখলের কারণে মরতে বসেছে হবিগঞ্জের সুতাং নদী। হারিয়ে যাচ্ছে বাংলাদেশের প্রাকৃতিক সৌন্দর্য, পরিবেশের হচ্ছে মৃত্যু। এ নিয়ে যেন কারও মাথাব্যথা নেই। চোখের সামনে প্রকাশ্যে হবিগঞ্জের ঐতিহ্যবাহী সুতাং নদীটিতে পলিমাটি পড়ে ভরাট হয়ে অকালে বিলীন হয়ে যাচ্ছে। নদীর দুই পাড়ে জেগে উঠা বালুচরে চাষাবাদ করছেন কৃষকেরা।

ছবি : এককালে নদীটি জোয়ারে পাড় উপচে পানি বেরিয়ে যেত। কালের আবর্তনে নদীর ঐতিহ্য এখন হারিয়ে যাচ্ছে।

পাহাড়ের কোলঘেঁষা সুতাং নদী এককালের খরস্রোতা। নদীর জোয়ারে পাড় উপচে পানি বেরিয়ে যেত। কালের আবর্তনে নদীর ঐতিহ্য এখন হারিয়ে যাচ্ছে। নদীতে বছরের বেশির ভাগ সময়ই পানি থাকত। নদীপাড়ের মৎস্যজীবীরা মনের আনন্দে মেতে উঠতেন মাছ শিকারে। চাল্লাইর বিলের কই আর সুতাংয়ের পুঁটি মাছের কথা এলাকা সবার জানা ছিল। কিন্তু এখন সেই নদীতে মাছ তো দূরের কথা, পানি থাকছে না। নদীর তলদেশ পর্যন্ত শুকিয়ে যাচ্ছে।

অনেক দিন ধরে খনন হয়নি নদী। এ পাহাড়ের বুকে হওয়ায় পাহাড়ের পাড় ভেঙে নদীতে পড়ছে। ফলে নদীর পানি শুকিয়ে যাচ্ছে সময়ে-অসময়ে। আর এলাকার ভূমিহীন কৃষক নদীর বুকে ধানের চারা ও ধান রোপণ করে যাচ্ছেন। নদীজুড়ে এখন সবুজের সমারোহ। যে নদীতে মাছ ধরতেন এলাকার মানুষ, সেই নদীতে এখন চাষাবাদ করছেন।

সুতাং নদী ঘুরে দেখা যায়, মৎস্যজীবীরা জালের পরিবর্তে নদীতে চাষাবাদ নিয়ে ব্যস্ত। বছরের আশ্বিন মাসে জমিতে আউশ ধান থাকায় বোরো ধানের চারা লাগানোর জায়গা থাকে না। আর আশ্বিন মাসে পানিও শুকিয়ে গিয়ে নদীর বুকে চর জাগে। তাই ভূমিহীন কৃষকেরা নদীর বুকে জমি তৈরি করে আবাদযোগ্য করে গড়ে তোলেন। কার্তিক মাসে বোরো ধানের চারা লাগানো হয় এবং পৌষ মাস পর্যন্ত চারা নদীতেই থাকে। হবিগঞ্জের সুতাং নদী পলিমাটি পড়ে ভরাট হয়ে অকালে বিলীন হয়ে যাচ্ছে।

ছবি : এই নদীটি শিগগিরই খনন করলে নদীর পাড় রক্ষা পাবে, রক্ষা পাবে এলাকার পরিশেগত ভারসাম্য ও কৃষি।

সুতাং নদীর উভয় পাড়ের ৫-৭ গ্রামের ভূমিহীন কৃষকেরা নদীর পানি শুকিয়ে গেলে নদীর চর ধানের চারা ও বোরো ধান লাগানোর জন্য কাজে লাগান।

বর্ষা মৌসুমে উজান থেকে নেমে আসা পাহাড়ি ঢলের পানি ধারণ করতে পারে না নদীটি। ফলে দুই কূল উপচে ভাসিয়ে দেয় ফসলি জমি। এতে শাকসবজিসহ ধানের জমি ডুবে গিয়ে ব্যাপক ক্ষতি সাধিত হয়। বর্তমানে সুতাং নদীর ওপর দিয়ে পায়ে হেঁটেই পার হওয়া যায়। অপরিকল্পিতভাবে সুতাং নদী থেকে বালু উত্তোলন করায় চুনারুঘাটের পাইকপাড়া, দেওড়গাছ ও শানখলা ইউনিয়নের প্রায় ১৩টি গ্রাম, দেউন্দি ও লাল চান্দ চাবাগানের ভূমি উর্বরতা হারাতে চলেছে। এমনকি শায়েস্তাগঞ্জ-দেউন্দি চা–বাগানের সুতাং নদী সেতু দেবে গেছে।

প্রতিদিন নদীপাড়ে একাধিক শক্তিশালী মেশিন দিয়ে বালু উত্তোলন করা হচ্ছে। নদীর তলদেশ থেকে মাটি সরে যাওয়ায় চা–বাগান এলাকায় কয়েকটি কালভার্ট ধসে গেছে। নদীর আশপাশের ১৫ হাজার কৃষক ও ২ হাজার চা–শ্রমিক পরিবার শঙ্কায় দিন কাটাচ্ছে।

শিগগিরই খনন করলে সুতাং নদীটি রক্ষা পাবে, রক্ষা পাবে এলাকার পরিশেগত ভারসাম্য ও কৃষি।

 

 

 

Developed By The IT-Zone