ঢাকারবিবার , ২৩ জানুয়ারি ২০২২
আজকের সর্বশেষ সবখবর

শাবিপ্রবি সাবেক ছাত্রলীগ নেতৃবৃন্দের বিবৃতি : দ্রুত উদ্যোগ নেয়ার আহ্বান

প্রেস বিজ্ঞপ্তি
জানুয়ারি ২৩, ২০২২ ৪:০৭ অপরাহ্ণ
Link Copied!

উপাচার্য অধ্যাপক ফরিদ উদ্দিন আহমদের পদত্যাগের দাবিতে আন্দোলনরত শিক্ষার্থীদের ন্যায্য দাবি মেনে নেওয়ার প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণসহ প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার প্রতি তিন দফা দাবি জানিয়েছেন শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের (শাবিপ্রবি) ১০৫ সাবেক ছাত্রলীগ নেতা।

শনিবার (২২জানুয়ারি) শাবিপ্রবি ছাত্রলীগের সাবেক নেতাদের এক জরুরি ভার্চুয়াল সভা শেষে এক বিবৃতিতে এ আহ্বান জানানো হয়। বৈঠকে শাবিপ্রবির বৃহৎ স্বার্থে সর্বসম্মতিক্রমে প্রধানমন্ত্রী ও আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ হাসিনার কাছে তিন দফা দাবি উত্থাপন করা হয়।

দাবিগুলো হচ্ছে, ১. অবিলম্বে আন্দোলনরত ছাত্র-ছাত্রীদের অনশন ভাঙানো প্রয়োজন। এ জন্য তাদের ন্যায্য দাবি মেনে নেওয়ার প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ। ২. যে বিশেষ মহল আন্দোলনরত ছাত্র-ছাত্রীদের ওপর পুলিশি আক্রমণ পরিচালনার পরিবেশ তৈরি করেছে, তাদের বিরুদ্ধে যথাযথ ব্যবস্থা গ্রহণ। ৩. ছাত্র-ছাত্রীদের ওপর কথিত যে পুলিশ এসল্ট মামলা করা হয়েছে, তা দ্রুত প্রত্যাহার।

বিবৃতিতে বলা হয়, ভার্চুয়াল সভায় শাহজালাল বিশ্ববিদ্যালয়ে ছাত্র আন্দোলনে উদ্ভূত পরিস্থিতিতে গভীর উদ্বেগ ও হতাশা ব্যক্ত করা হয়েছে। প্রাণহানির সংশয়ে পড়া বিপন্ন নাজুক পরিস্থিতি থেকে উত্তরণে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষকে দ্রুত উদ্যোগ নেওয়ার আহ্বান জানিয়েছেন সাবেক ছাত্রনেতারা।

ভার্চুয়াল বৈঠকে সভাপতিত্ব করেন বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রথম ব্যাচের ছাত্র ও শাবিপ্রবি ছাত্রলীগের (১৯৯১-১৯৯৩) প্রথম সভাপতি মো. ফরিদ আলম। সভাটি পরিচালনা করেন চতুর্থ ব্যাচের ছাত্র ও শাবিপ্রবি ছাত্রলীগের মকদ্দুস-স্বাধীন কমিটির (১৯৯৫-৯৭) সাংগঠনিক সম্পাদক জসিম উদ্দিন আহমেদ।

সভায় শাবিপ্রবি সাবেক ছাত্রলীগের প্রথম ব্যাচ থেকে শুরু করে সর্বশেষ ব্যাচের নেতা-কর্মীরা অংশ নেন। দীর্ঘ চার ঘণ্টার এই সভায় ক্যাম্পাস পরিস্থিতি নিয়ে বিস্তারিত আলোচনা হয়। এতে সবাই আন্দোলনরত ছাত্র-ছাত্রীদের প্রতি সহমর্মিতা প্রকাশ করেন। তারা এই ঘটনার দ্রুত সমাধানের আশাবাদ ব্যক্ত করেন।

সভায় গৃহীত প্রস্তাবনায় যে সকল ছাত্রলীগ নেতা সম্মতি দেন তারা হলেন- মো. ফরিদ আলম (অর্থনীতি ১, সাবেক সভাপতি); মো. হুমায়ুন কবির (রসায়ন ১, সাধারণ সম্পাদক); মো. মকদ্দুস আলী (রসায়ন ২ সাবেক সভাপতি); মোহাম্মদ নজরুল ইসলাম (গণিত ২, সিনিয়র সহ-সভাপতি, শাহপরান হল শাখা ছাত্রলীগ); বিলাদুর রহমান কাশেম (পদার্থবিজ্ঞান ৩, ক্রীড়া সম্পাদক- ১৯৯৬-৯৭ কার্যকরি কমিটি, সদস্য সচিব ১৯৯৮); লিটন চন্দ্র দে (পরিসংখ্যান ৩, সহ সভাপতি); জসিম উদ্দিন আহমেদ (অর্থনীতি ৪, সাংগঠনিক সম্পাদক ১৯৯৬-১৯৯৭); দেবজিৎ কুমার বণিক (দেবু বণিক) (পদার্থবিজ্ঞান ৪, এজিএস, শাকসু ৯৬, সদস্য ৯৫, শাকসু, সদস্য কেন্দ্রীয় কমিটি, শাবিপ্রবি); মো. সাদিকুর রহমান নোমান (রসায়ন ৪, অর্থ সম্পাদক); মোহাম্মদ আবেদুজ্জামান (সমাজবিজ্ঞান ৪); অভিজিৎ কুমার বণিক (সমাজকর্ম ৬, সদস্য, স্টিয়ারিং কমিটি); পলক দত্ত (সিইই ৬, সাবেক যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক); মাহবুবুর রহমান দিপু (পদার্থ ৬, শ-ক্রীড়া সম্পাদক, সাবেক সদস্য কেন্দ্রীয় কমিটি); মুস্তফা মনওয়ার সুজন (পরিসংখ্যান ৬, গ্রন্থনা ও প্রকাশনা সম্পাদক জাকির-বাসিত কমিটি); মোহাম্মদ গোলাম আজাদ (অর্থনীতি ৬, সাবেক যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক); মোহাম্মদ ফয়সল আজম (পরিসংখ্যান ৬, সাংস্কৃতিক সম্পাদক-শাকসু); সাখাওয়াত হোসেন (সিইই ৬, সদস্য, স্টিয়ারিং কমিটি) সুশান্ত দাস গুপ্ত (সিইই ৬ সদস্য, স্টিয়ারিং কমিটি); আ.স.ম সায়েম (সমাজবিজ্ঞান ৭, সহসভাপতি); জ্যোতিলাল গোস্বামী (পিএসএ বিভাগ ৭)।

শ্রীনিবাস চন্দ্র নাথ (গণিত ৭); সনজিত দাস (গণিত ৭); মো. মাসুম বিল্লাহ (পিএসএস ৮, সাবেক সাধারণ সম্পাদক); আলী আশরাফুল কবীর (পলিটিক্যাল সাইন্স এন্ড পাবলিক এফেয়ারস ৮, সাবেক সভাপতি); নিপা (সমাজবিজ্ঞান ৮, সহ-সভাপতি কবির-মাসুম কমিটি); মো. রবিউল আলম (সমাজকর্ম ৮, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক); সৈয়দ আল মামুন টিপু (সাবেক যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক), আশরাফউজজামান রোমান (অর্থনীতি ৯, সহসভাপতি); ইসলাম শেখ (সমাজবিজ্ঞান ৯, সহসভাপতি); কামাল (অর্থনীতি ৯, সহসভাপতি); হিমাংশু বিশ্বাস (অর্থনীতি ১০, সহসভাপতি); মো. আফজল হোসেন আকন্দ রনি (বিবিএ ১১, যুগ্ম সম্পাদক ২০০৩-২০০৮); নিশি মোহন নাথ (ফরেস্ট্রি ১১, সাংগঠনিক সম্পাদক); মাহমুদ ফারুক মুনির (সমাজবিজ্ঞান ১১, সভাপতি, শাহপরান হল কবির -মাসুম কমিটি); মুহাম্মদ আব্দুস সামাদ (সমাজকর্ম ১১, সদস্য); মো. শাখাওয়াত হোসেন খান (নৃবিজ্ঞান ১১, সাবেক সাংস্কৃতিক সম্পাদক); মোহাম্মদ তৌহিদুল ইসলাম (সমাজকর্ম ১১, সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক);
মোহাম্মদ তৌহিদুল ইসলাম (সমাজকর্ম ১১, সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক); মো. আশরাফ উল আলম (খাদ্য প্রকৌশল এবং চা প্রযুক্তি ১২, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক); আবুল কাশেম (সমাজকর্ম ১৩)।

মো. নাইম হাসান [সিএসই ১৩, সহসভাপতি, বংলাদেশ ছাত্রলীগ কেন্দ্রীয় নির্বাহী কমিটি (২০১১-২০১৫), যুগ্ম আহ্বায়ক, শাবিপ্রবি ছাত্রলীগ (২০১০-২০১৩)]; শংকর কুমার দাস (পদার্থবিজ্ঞান ১৩, সাবেক ফিজিক্যাল সাইন্স সেক্রেটারি); সৌমিত্র সিংহ দাশ (পদার্থবিজ্ঞান ১৩, সাধারণ সম্পাদক, বঙ্গবন্ধু হল); আনছারুল ইসলাম সোশ্যালওয়ার্ক ১৪); তুষার মজুমদার (সিএসই ১৪); প্রলয় রায় (নৃবিজ্ঞান ১৪); মলয় সরকার (গণিত ১৪); মাহমুদুল হাসান রনি (সমাজবিজ্ঞান ১৪); মো.বিল্লাল হোসেন (সমাজবিজ্ঞান ১৪, সাবেক সদস্য, আহবায়ক কমিটি, বাংলাদেশ ছাত্রলীগ, শাবিপ্রবি শাখা); মো. কামরুজ্জামান খান সুইট (ব্যাচ ১৪, সাবেক যুগ্ম আহবায়ক); মো. মহিবুর রহমান মুহিব (ইংরেজি ১৪, সভাপতি, ইংরেজি বিভাগ ছাত্রলীগ); মো. সামসুজ্জামান চৌধুরী সুমন (নৃবিজ্ঞান ১৪, সাবেক আহবায়ক, সাবেক সহ সাধারণ সম্পাদক কেন্দ্রীয় কমিটি); সায়মন ইসলাম (লোকপ্রশাসন ১৪, সমাজবিজ্ঞান অনুষদের সাবেক সহ-সভাপতি); সৈয়দা শাহনাজ মঞ্জুর ঈভা (সমাজবিজ্ঞান ১৪, আহবায়ক কমিটির সদস্য ২০১০); মো. আতিকুর রহমান (ইংরেজি ১৪ সদস্য, কেন্দ্রীয় যুবলীগ, সাবেক সহ-সম্পাদক, কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগ, সাবেক যুগ্ম আহবায়ক); মিঠু রঞ্জন দাশ (নৃবিজ্ঞান ১৫); মো. জয়নাল হোসেন মিলন (সমাজবিজ্ঞান ১৫, সাবেক ছাত্রলীগ কর্মী); মো.জয়নাল হোসেন মিলন (সমাজবিজ্ঞান ১৫); রুম্মান হাসনাত (প্পহুড ইঞ্জিনিয়ারিং অ্যান্ড টি টেক ১৫); শাওন-অর-রশিদ (অর্থনীতি ১৫); সোহেল মুহাম্মদ (অর্থনীতি ১৫); হাবিব মরশেদ তালুকদার (ফুড ইঞ্জিনিয়ারিং অ্যান্ড টি টেকনোলোজি ১৫); মঞ্জুরে মাহবুব (ফুড ইঞ্জিনিয়ারিং এন্ড টি টেকনোলজি ১৫); ইমরুল কায়েস (ফরেস্ট্রি অ্যান্ড ইনভাইরম্যান্ট সায়েন্স ১৫); উত্তম কুমার দাশ (সমাজকর্ম ১৬)

মাসুদ করিম (পলিটিক্যাল স্টাডিজ ১৬); সাইফুল ইসলাম প্রধান (সমাজকর্ম ১৬, সদস্য); সুজিত সরকার (পরিসংখ্যান ১৬); সৌরভ কুমার ঘোষ (সিএসই ১৬); হাসান আহমেদ আবিদ (খাদ্য প্রকৌশল ও চা প্রযুক্তি ১৬); মো. মিনহাজ উদ্দিন (পলিটিকাল স্টাডিজ ১৭); এস এম আসাদুজ্জামান সম্পদ (পলিটিক্যাল স্টাডিজ ১৭); কাজী রুবেল (পিএসএস ১৭); এস এম রাশেদ নুর (পাবলিক অ্যাডমিনিস্ট্রেশন ১৮); আব্দুল্লাহ আল মামুন রাজীব (সমাজকর্ম ১৮); নব কুমার (পরিসংখ্যান ১৮); মো. গোলাম সামদানি (অর্থনীতি ১৮); সাজিদুল ইসলাম সবুজ (পিএসএস ১৮, সাবেক সিনিয়র যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক এবং সাবেক সদস্য, বাংলাদেশ ছাত্রলীগ); মো.আলী আকবর (পিএসএস ১৮ সহ-সভাপতি); আবীর হাসান (লোক প্রশাসন ১৮, সাবেক ছাত্রবৃত্তি সম্পাদক); আইনুল ইসলাম (নৃবিজ্ঞান ১৯, সহ-সভাপতি); নূরে আলম (সমাজকর্ম ১৯, সহ-সভাপতি); মুহিবুল ইসলাম মিছবা (সমাজবিজ্ঞান ১৯, সাবেক সহ-সভাপতি, শাবিপ্রবি শাখা ছাত্রলীগ); মো. মনিরুজ্জামান মনির (সমাজকর্ম ১৯, সহসভাপতি , শাবিপ্রবি ছাত্রলীগ, কাউন্সিলর বাংলাদেশ ছাত্রলীগ); মো. আব্দুস সালাম (সমাজকর্ম ১৯, সহ-সম্পাদক); মো. শরীফুল ইসলাম (লোক প্রশাসন ১৯, সাবেক সহ-সভাপতি শাবিপ্রবি); মোস্তাক আহমেদ (পাবলিক অ্যাডমিনিস্ট্রেশন ১৯, সাংগঠনিক সম্পাদক); লোকমান আহমেদ (বাংলা ১৯, আপ্যায়ন সম্পাদক); আল মনসুর সিদ্দিকী (রসায়ন ১৯); ইসতিয়াক হিমন (লোকপ্রশাসন ২০)।

কাজী তৌফিকুর রহমান (পুর ও পরিবেশ কৌশল বিভাগ ২০, সদ্য সাবেক সদস্য, বিশ্ববিদ্যালয় শাখা ছাত্রলীগ); তৌকির আহম্মদ তালুকদার (ব্যবসায় প্রশাসন ২০ সাংগঠনিক সম্পাদক); নিয়াজ বিন আজহার (অর্থনীতি ২০); লিপটন দাশ (সমাজবিজ্ঞান ২০); কামরুল ইসলাম (সমাজবিজ্ঞান ২০); আসাদুজ্জামান খান পরান (বাংলা ২২); মো. নুরুল আমীন (লোকপ্রশাসন ২২); মো. ছাদিকুর রহমান (বাংলা ২২); খালেদ সাইফুল্লাহ ইলিয়াছ (গণিত ২৩, সাবেক গ্রন্থনা ও প্রকাশনা সম্পাদক); তানভীর আল হাসান (পলিটিকাল স্টাডিজ ২৩); শামীমা আক্তার (নৃবিজ্ঞান ২৩); সাফকাত মনজুর (অর্থনীতি ২৩); বাছির মিয়া (বায়োকেমিস্ট্রি এন্ড মলিকিউলার বায়োলজি ২৫, সাবেক কার্যনির্বাহী সদস্য); মোমিন হোসেন (রসায়ন ২৬) এবং মো. মাসুদ রানা (সিইই)।

উল্লেখ্য, গত ১৩ জানুয়ারি রাত থেকে শুরু প্রভোস্ট বিরোধী আন্দোলনে গত ১৬ জানুয়ারি পুলিশ লাঠিচার্জ, রাবার বুলেট ও সাউন্ড গ্রেনেড ছুড়ে ৩০ শিক্ষার্থীকে আহত করলে উপাচার্যের পদত্যাগের দাবি উঠে। উদ্ভূত পরিস্থিতিতে বিশ্ববিদ্যালয় বন্ধ এবং শিক্ষার্থীদের হল ত্যাগের নির্দেশ দেয় কর্তৃপক্ষ। তবে এই সিদ্ধান্ত প্রত্যাখ্যান করে উপাচার্যের পদত্যাগ দাবিতে আমরণ অনশনসহ আন্দোলন অব্যাহত রেখেছেন শিক্ষার্থীরা।

Developed By The IT-Zone