ঢাকাবৃহস্পতিবার , ১৩ অক্টোবর ২০২২
আজকের সর্বশেষ সবখবর

শাক দিয়ে মাছ ঢাকার চেষ্টা করে যাচ্ছেন শিক্ষা কর্মকর্তা মাহমুদুল হক !

রায়হান উদ্দিন সুমন
অক্টোবর ১৩, ২০২২ ৭:০২ অপরাহ্ণ
Link Copied!

আজমিরীগঞ্জের উপজেলা শিক্ষা কর্মকর্তা মাহমুদুল হকের বিরুদ্ধে নানা অনিয়ম ও দুর্নীতির অভিযোগ তদন্তের নির্দেশের সংবাদ পত্রিকায় প্রকাশের পর সেগুলো ধামাচাপা দিতে উপজেলার বিভিন্ন বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষকদের দিয়ে স্বাক্ষর গ্রহনের মাধ্যমে নিজেকে সাধু সাজাতে উঠে পড়ে লেগেছেন শিক্ষা কর্মকর্তা মাহমুদুল হক।

গত বুধবার (১২অক্টোবর) বিজয়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে অনুষ্ঠিত প্রধান শিক্ষকদের মাসিক সমন্বয় সভায় এই উদ্ভট কান্ড ঘটান তিনি। শাক দিয়ে মাছ ঢাকার চেষ্টায় রপ্ত করে যাচ্ছেন এই শিক্ষা কর্মকর্তা।  তবে উপজেলা অধিকাংশ প্রধান শিক্ষকই তার এই ফাঁদে পা দেননি।

খোঁজ নিয়ে জানা যায়,মাসিক সমন্বয় সভায় শিক্ষা কর্মকর্তা তার নিজের হাতের লেখা একটি প্রতিবাদের কপি উপস্থিত প্রধান শিক্ষকদের হাতে তোলে দেন যেখানে লেখা ছিল উপজেলা শিক্ষা কর্মকর্তা একজন সৎ, কর্মঠ, ন্যায়পরায়ণ, দক্ষ,সদালাপী এবং অভিজ্ঞ আইনের পতি শ্রদ্ধাশীল কর্মকর্তা।

প্রকাশিত সংবাদটি মিথ্যা,বানোয়াট এবং কর্মকর্তার আতœমর্যাদার হানিকর। এসব লিখে নিন্দা জানিয়ে রেজুলেশন আনেন এই কর্মকর্তা। রেজুলেশনের এই কপিটি উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের কাছে প্রেরণ করা হবে মর্মে উল্লেখ করা হয়।

এই কপিতে শিক্ষা কর্মকর্তা উপস্থিত শিক্ষকদের ভুল বুঝিয়ে তাদের কাছ থেকে স্বাক্ষর আদায় করেছেন। বিষয়টি তার ব্যক্তিগত বুঝতে পেরে অনেক শিক্ষকই স্বাক্ষর না করে এড়িয়ে গেছেন। কেউ কেউ না বুঝেই স্বাক্ষর দিয়েছেন।

কথা হয় স্বাক্ষর দেয়া অনন্তপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক হাফিজুর রহমানের সাথে। তিনি জানিয়েছেন,আসলে আমি একা তো স্বাক্ষর দেইনি। অন্যান্য শিক্ষকরাও দিয়েছে তাই আমিও দিলাম। এছাড়া আর কিছু জানিনা।

ছবি : শিক্ষা কর্মকর্তার পক্ষে স্বাক্ষর করা রেজুলেশনের কপি

নগর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মায়া রানী কর্মকারের সাথে কথা হলে তিনি জানান,আমি নিজেও একজন ভুক্তভোগী। সমন্বয় সভায় শিক্ষা কর্মকর্তার বিষয়টি নিয়ে আলোচনা হয়েছে। সেটা তার ব্যক্তিগত বিষয়। কারো ব্যক্তিগত বিষয়াদি নিয়ে সমন্বয় সভায় আলোচনা বা রেজুলেশন আনা মোটেও ঠিক হয়নি। আমি কোন স্বাক্ষর প্রদান করিনি। একপর্যায়ে উপস্থিত শিক্ষকরা এসব নিয়ে শিক্ষা কর্মকর্তাকে জিজ্ঞাসা করলে তিনি এসবের কোন সদুত্তর দিতে পারেন নি। তখন নিরব ছিলেন।

চৌধুরী হামদু মিয়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক উৎপল রায় জানান,সমন্বয় সভায় উপস্থিত ছিলাম কিন্ত কোনো রেজুলেশনে স্বাক্ষর দেইনি।

গদাইনগর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মোবাশ্বির মিয়া জানান,সমন্বয় সভায় শিক্ষা কর্মকর্তার বিষয়টি নিয়ে অনেক উচ্চবাচ্চ কথাবার্তা হয়েছে। স্বাক্ষর দেয়ার জন্য বলাও হয়েছিল আমি স্বাক্ষর দেইনি। কারণ এটা তার ব্যক্তিগত বিষয় ছিল। উপস্থিত কয়েকজন শিক্ষক স্বাক্ষর করেছে।

নুরপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক কামরুজ্জামান মিয়া জানান,সমন্বয় সভায় তার বিষয়টি আনা উচিত হয়নি। তারপরও যেহেতু তার অধীনে চাকরি করি স্বাক্ষর আমি দিয়েছি। অধিকাংশ শিক্ষকরাই স্বাক্ষর দেননি।

সমন্বয় সভায় উপজেলা শিক্ষা কর্মকর্তার পক্ষে উদ্ববপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মতিউরর রহমান রেজুলেশনের কপি হাতে নিয়ে শিক্ষকদের কাছ থেকে স্বাক্ষর সংগ্রহ করেছেন।

বিস্তারিত জানতে আজমিরীগঞ্জ উপজেলার শিক্ষা কর্মকর্তা মাহমুদুল হকের সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি দৈনিক আমার হবিগঞ্জকে জানান,সকল শিক্ষকদের সাথে সমন্বয় করেই কর্মকান্ড পরিচালনা করা হয়। সমন্বয় সভায় আপনার ব্যক্তিগত বিষয়াদি রেজুলেশন আকারে আনতে পারেন কিনা এই প্রশ্নের জবাবে মাহমুদুল হক জানান, আমার কোন ব্যক্তিগত বিষয় না। আমি যা কাজ করি সব অফিসিয়াল।

প্রসঙ্গত, আজমিরীগঞ্জ উপজেলার প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা মাহমুদুল হকের বিরুদ্ধে নানা অনিয়ম ও দুর্নীতির লিখিত অভিযোগ করেন উপজেলার প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষকবৃন্দ।

গত এপ্রিল মাসের ২১ তারিখ প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়ের সচিব বরাবরে উপজেলার মোট ১০২ জন শিক্ষক-শিক্ষিকার স্বাক্ষর সম্বলিত এই অভিযোগটি দাখিল করেছিলেন।

এ নিয়ে ২৫ সেপ্টেম্বর দৈনিক আমার হবিগঞ্জ পত্রিকার অনলাইন ভার্সন ও পরের দিন প্রিন্ট ভার্সনে “আজমিরীগঞ্জের প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা মাহমুদুল হকের বিরুদ্ধে অনিয়ম ও দুর্নীতির অভিযোগ তদন্তের নির্দেশ”এই শিরোনামে সংবাদ প্রকাশিত হয়।

 

Developed By The IT-Zone