ঢাকাবুধবার , ৭ সেপ্টেম্বর ২০২২
আজকের সর্বশেষ সবখবর

শব্দদূষণে হবিগঞ্জকে রেড জোন হিসেবে চিহ্নিত

এম এ রাজা
সেপ্টেম্বর ৭, ২০২২ ৮:০১ অপরাহ্ণ
Link Copied!

শব্দদূষণে হবিগঞ্জ শহরের কয়েকটি স্থানকে রেড জোন হিসেবে চিহ্নিত করা হয়েছে। উল্লেখযোগ্য স্থান গুলো হচ্ছে ১ নাম্বারে বেবী স্ট্যান্ড মোড় , ২ নতুন বাস টার্মিনাল ও ৩ কালিবাড়ি কস রোড।বেবীস্ট্যান্ড মোড়ে ৮৫.০২ ডেসিবেল ,নতুন বাস টার্মিনালে ৮৩,২৫ ডেসিবেল ও কালিবাড়ি ক্রস রোডে ৮০.০৫ ডেসিবেল যা মানবদেহের বিভিন্ন অঙ্গ প্রতঙ্গের জন্য মারাত্মক ক্ষতিকারক বলে আয়োজকদের দাবি ।

বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার গাইডলাইন অনুযায়ী, মানুষের জন্য ঘরের ভেতর শব্দের গ্রহণযোগ্য মাত্রা ৫৫ ডেসিবেল। আর ঘরের বাইরে বাণিজ্যিক এলাকার জন্য ৭০ ডেসিবেল। অথচ হবিগঞ্জের কয়েকটি স্থানে মাত্রা অতিরিক্ত শব্দ দূষণ হচ্ছে।

মতবিনিময় সভায় বক্তারা বলেন উপরে উল্লেখিত রেড জোন এলাকা ছাড়াও হবিগঞ্জের শিল্প এলাকা হিসেবে চিহ্নিত মাধবপুর, অলিপুর এলাকায় ও মাত্রা অতিরিক্ত শব্দ দূষণ হচ্ছে। অতিরিক্ত শব্দ দূষণের ফলে কানে কম শোনা এবং আংশিক বা পুরোপুরি বধিরতা ,স্মরণশক্তি হ্রাস এবং দায়িত্ব পালনে ও অমনোযোগিতা।হূদরোগ ও উচ্চ রক্তচাপের ঝুঁকি বৃদ্ধি, অনিদ্রা ও কাজে মনোযোগ নষ্ট, মাথা ব্যথা ও কিটকিটে মেজাজ, বিষণ্ণতা ও মানসিক সমস্যা, ক্ষুধামন্দা ও গ্যাস্ট্রিক এর মত ক্ষতিকারক ব্যাধি মানবদেহে বাসা বাঁধতে পারে বলে জানান আয়োজকরা।

বুধবার (৭ সেপ্টেম্বর) সকাল ১১ টায় জেলা প্রশাসকের সেমিনার কক্ষে পরিবেশ অধিদপ্তর ক্যাপস এর উদ্যোগে জেলা প্রশাসনের আয়োজনে এক মতবিনিময় সভায় এসব তথ্য জানানো হয়।

এতে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন জেলা প্রশাসক ইশরাত জাহান। সভাপতিত্ব  করেন অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) মিন্টু চৌধুরী। বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন,শব্দ দূষণ নিয়ন্ত্রণ সম্মনিত ও অংশীদারিত্ব প্রকল্পের গ্রুপ লিডার স্টামফোর্ড ইউনিভার্সিটির অধ্যাপক ডক্টর আহমদ কামরুজ্জমান মজুমদার,বাপার সাধারণ সম্পাদক তোফাজ্জল সোহেল ।

প্রধান অতিথির বক্তব্যে জেলা প্রশাসক বলেন, ইতিপূর্বে আমি পরিবেশের ভারসাম্য রক্ষার্থে বিভিন্ন সেক্টরে কাজ করেছি। শব্দ দূষণে মানবদেহের কি পরিমান ক্ষতি সেটা আর বলার অবকাশ রাখে না। অচিরেই রেড জোন হিসেবে চিহ্নিত এলাকাগুলোর শব্দ দূষণ কিভাবে নিয়ন্ত্রণে আনা যায় সেই অনুযায়ী প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা করবেন।

এছাড়াও শব্দ দূষণ নিয়ন্ত্রণে গাড়িচালক ও সাধারণ মানুষদের সচেতনতা বৃদ্ধির জন্য বিভিন্ন প্রয়োজনীয় উদ্যোগ নেয়ার বিষয়ে সবাইকে আশ্বস্ত করেন।

উক্ত সভায় আরো উপস্থিত ছিলেন , সরকারের বিভিন্ন দপ্তরের অফিস প্রধানগণ, প্রিন্ট ও ইলেকট্রিক মিডিয়ার সাংবাদিকবৃন্দ,বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শিক্ষক ও ছাত্র-ছাত্রীবৃন্দ, পরিবহন সেক্টরের নেতা-কর্মীরা।

Developed By The IT-Zone