ঢাকাশনিবার , ৫ ফেব্রুয়ারি ২০২২
আজকের সর্বশেষ সবখবর

লোভনীয় চাকুরী ছেড়ে এখন হবিগঞ্জের সর্বৃহৎ খামার মালিক মাধবপুরের মুত্তাকিন চৌধুরী

জালাল উদ্দিন লস্কর, মাধবপুর
ফেব্রুয়ারি ৫, ২০২২ ৬:১৫ অপরাহ্ণ
Link Copied!

মাধবপুর উপজেলার আন্দিউড়া গ্রামে ৫ বছর আগে মাত্র ২ টি গরু নিয়ে যাত্রা শুরু করা পিউর এন্ড অর্গানিক ডেইরি ফার্মে এখন বিভিন্ন জাতের ২০০ গরুর পাশাপাশি,মাছ ও হাঁসের খামারও গড়ে উঠেছে।

বর্তমানে হবিগঞ্জের সর্বৃহৎ এই খামারে প্রতিদিন গড়ে ৫০০ লিটার দুধ উৎপাদিত হয় বলে জানিয়েছেন ফার্মটির প্রতিষ্টাতা স্বত্বাধিকারী মোঃ মুত্তাকিন চৌধুরী।

একটি বৃহৎ শিল্প গ্রুপের এইচ আর এন্ড এডমিন বিভাগের মোটা অংকের চাকুরী ছেড়ে ২০১৭ সালে নিজ গ্রামে পৈত্রিক সম্পত্তির উপর প্রতিষ্টা করেন পিউর এন্ড অর্গানিক ডেইরি ফার্ম।

বর্তমানে এই ফার্মে ফুলটাইম কর্মী আছেন ১৮ জন।এসব কর্মীর বেতন ৮ থেকে ১৮ হাজার টাকার মধ্যে।

শনিবার (৫ ফেব্রুয়ারি) দুপুরে খামারের অফিসে বসে কথা হয় ফার্মটির প্রতিষ্ঠাতা ও স্বত্বাধিকারী মোঃ মুত্তাকীন চৌধুরীর সাথে।

মুত্তাকীন চৌধুরী আমার হবিগঞ্জকে জানান,এক সময় নিজে অন্যের চাকুরী করেছি। এখন আমার প্রতিষ্টিত ফার্মের মাধ্যমে ১৮ জন লোকের কর্মসংস্থান হয়েছে। প্রত্যক্ষ বা পরোক্ষভাবে এই ১৮ জনের উপর কমপক্ষে আরো ১০০ মানুষ নির্ভরশীল।

কর্মসংস্থানের মাধ্যমে এসব মানুষের রুটি-রুজির বন্দোবস্ত করতে পেরেছি এটাই আমার পরম তৃপ্তি।

শীঘ্রই ফার্মটির আধুনিকায়নের কাজ শুরু করবো। তখন আরো মানুষের কর্মসংস্থানের ব্যবস্থা করা যাবে। মুত্তাকিন চৌধুরী জানান, ২ টি মাত্র ফ্রিজিয়ানা জাতের গাভী নিয়ে আমি শুরু করি।

গত পাঁচ বছরে তিলতিল পরিশ্রমে খামারটি বর্তমানের অবস্থানে পৌঁছেছে। এজন্য আমি রাতদিন অক্লান্ত পরিশ্রম করেছি।শুধু কর্মীদের উপর নির্ভর করে থাকিনি।

বর্তমানে ফার্মটিতে ফ্রিজিয়ানা,শাহীওয়াল,জার্সি ও মুন্ডি প্রজাতির ২০০ টি গরু রয়েছে।প্রতিটি গরুকে প্রতিদিন খড়,ঘাস ও দানাদার খাদ্য মিলিয়ে মোট ২০ কেজির মতো খাবার দিতে হয়।নিয়মিত ইনফ্রারেড থার্মোমিটারের মাধ্যমে গরুগুলোর তাপমাত্রা মাপা ও স্বাস্থ্য পরীক্ষার পাশাপাশি প্রতি ৩ মাস পরপর তরকা,বাদলা,খুড়া ও ল্যাম্পস্কিনের টিকা দেওয়ানো হয়।

নামমাত্র মূল্যে উপজেলা প্রাণিসম্পদ অফিস থেকে এসব টিকা সরবরাহ করা হয়। সাথে দেওয়া হয় প্রয়োজনীয় চিকিৎসা পরামর্শ।এছাড়া প্রতিমাসে সিরাজগঞ্জের মিল্কভিটা ফ্যাক্টরী থেকে একজন বিশেষজ্ঞ চিকিৎসক আনিয়ে খামারের গরুগুলোর নিবিড় স্বাস্থ্য পরিচর্যার কাজটি সম্পন্ন করা হয়। এর ফলে রোগব্যাধীর কারনে এ খামারে ক্ষয়ক্ষতি নেই বললেই চলে।

আগামী কোরবানীর ঈদের মৌসুমে বিক্রীর জন্য বর্তমানে ফার্মটিতে বর্তমানে ৪০ টি ফ্রিজিয়ানা ও শাহীওয়াল জাতের গরু প্রস্তুত করা হচ্ছে। প্রতিটি গরু তখন দেড় থেকে ২ লাখ টাকায় বিক্রী করবেন বলে আশা করছেন মুত্তাকীন চৌধুরী।

সেই সাথে জানালেন বর্তমানে প্রতিদিন ৬০ টাকা দরে গড়ে ৫০০ লিটার দুধ বিক্রী বাবদ প্রতিমাসে তার আয় হচ্ছে ৬ লাখ টাকা।গরুর পাশাপাশি পিওর এন্ড অর্গানিক ফার্মে ১৫ টি পুকুর ও ৭ টি বিশাল পরিসর ট্যাংকে মাছের চাষও করছেন মুত্তাকিন চৌধুরী।

১০০ বিঘা আয়তনের ১৫ টি পুকুর থেকে আগামী ৩ মাসে প্রায় ৭০ টন মাছ বিক্রী করে তার ৩০ থেকে ৪০ লাখ টাকা আয় হবে বলে তিনি আমার হবিগঞ্জকে জানিয়েছেন।

সেই সাথে প্রতিটি ১ লাখ লিটার পানি ধারণ ক্ষমতাসম্পন্ন ট্যাংকের প্রতিটি ১ লাখ কই এবং গুলসার পোনা ছেড়েছেন বলেও জানিয়েছেন তিনি।

এতোসবের পাশে শখের বশে মুত্তাকীন চৌধুরী তার খামারে ৫ শতাধিক হাঁসও পালন করছেন। হাঁসগুলো নিয়মিত ডিম দিচ্ছে বলে জানিয়েছেন তিনি।

Developed By The IT-Zone