ঢাকাবুধবার , ২৩ মার্চ ২০২২
আজকের সর্বশেষ সবখবর

লাখাই বামৈ সরকারি মডেল উচ্চ বিদ্যালয়ের শিক্ষক মুমিনুলের বিরুদ্ধে ছাত্রীকে যৌন হয়রানির অভিযোগ

মনর উদ্দিন মনির, লাখাই
মার্চ ২৩, ২০২২ ৩:৫৮ পূর্বাহ্ণ
Link Copied!

লাখাই উপজেলার বামৈ সরকারি মডেল উচ্চ বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক মমিনুল হক নিটোলের বিরুদ্ধে ওই স্কুলের এক ছাত্রীকে যৌন হয়রানি করার অভিযোগ উঠেছে।

মমিনুল হক লাখাই থানার সাবেক পুলিশ কর্মকর্তা শামসুল ইসলামের পুত্র।

ওই ছাত্রীর পিতা লাখাই উপজেলা নির্বাহী অফিসারের নিকট এ ব্যাপারে একটি লিখিত অভিযোগ দায়ের করেছেন।

অভিযোগ সূত্রে জানা যায়, শ্লীলতাহানীর শিকার ওই ছাত্রী বামৈ সরকারী উচ্চ বিদ্যালয়ের ২০২২ সালের এস.এস.সি পরীক্ষার্থী ছিলেন।

শিক্ষক মুমিনুল হক প্রায়ই স্কুলে ওই ছাত্রীকে বিভিন্ন ভাবে উত্যক্ত করতেন ।

বিভিন্ন সময় তার আচরণ দ্বারা ওই ছাত্রীকে যৌনভাবে প্রলুব্ধ করার চেষ্টা করতেন। এ কারণে ওই ছাত্রী মমিনুলকে এড়িয়ে চলতেন।

বিষয়টি ছাত্রীর পরিবারকে জানালে পরিবার তাকে নিরবে মোকাবেলা করার পরামর্শ দেয়।

গত ১৬ মার্চ সকাল ১০ টায় স্কুলের প্রাত্যহিক সমাবেশ ( এসেম্বলী ) শুরু হলে ওই ছাত্রী শারীরিক অসুস্থতা বোধ করায় এসেম্বলিতে না গিয়ে স্কুল ভবনের তৃতীয় তলায় তার শ্রেণীকক্ষে বসেছিলেন।

এ সময় সহকারী শিক্ষক মোঃ মুমিনুল হক ওই ছাত্রীর কাছে গিয়ে অশ্লীল যৌন ইঙ্গিত প্রদর্শন করতঃ তার হাতে জাপ্টে ধরে ।

এসময় বিদ্যালয়ের সহকারি শিক্ষক গিয়াস উদ্দিন এবং আয়া গৌড়ী এর আগমনের সাড়া পেয়ে হাত মমিনুল হাত ছেড়ে দেন । গিয়াস উদ্দিনকে মোঃ মুমিনুল হক তখন বলেন, সে অসুস্থ এসেম্বলিতে যাবে না ।

মুমিনুলের এই আচরণে ছাত্রী হতবিহ্বল হয়ে পড়েন। তারা চলে যাওয়ার পর ওই ছাত্রী ছাদে চলে যান।

কিছুক্ষণ পর মোঃ মুমিনুল হক ছাদে গিয়ে আবার ছাত্রীকে যৌন উদ্দেশ্যে জাপ্টে ধরেন।

তখন ছাত্রী তার হাত থেকে রেহাই পাওয়ার জন্যে অনেক চেষ্টা করেন। এক পর্যায়ে চিৎকার করলে মুমিনুল হক তার মুখ চেপে ধরেন ।

বিদ্যালয়ের সহকারি শিক্ষক মোঃ আব্দুল করিম ঘটনাস্থলে এসে পড়লে মমিনুল ওই ছাত্রীকে ছেড়ে দেন এবং স্বাভাবিক হওয়ার চেষ্টা করেন।

ঘটনা জানাজানি হওয়ার পর ওই ছাত্রী আত্মহত্যার চেষ্টা করেন বলে জানা যায়।

এ বিষয়ে তাৎক্ষনিক ভাবে স্কুলের প্রধান শিক্ষক মামুনুর রশিদ চৌধুরীকে জানানোর পরেও তিনি মুমিনুল হকের বিরুদ্ধে কোন ব্যবস্থা গ্রহন না করে বরং তাকে রক্ষায় যাবতীয় চেষ্টা-তদবির চালানোর অভিযোগ পাওয়া যায়।

এদিকে এ ঘটনাটি লোকমুখে জানাজানি হওয়ার পর এলাকায় চাঞ্চল্যের সৃষ্টি হয় ।

এ বিষয়ে অভিযুক্ত শিক্ষক মমিনুল হকের বক্তব্য নেয়ার চেষ্টায় তার মোবাইলে একাধিক বার কল ও এসএমএস দেয়ার পরও তিনি সাড়া না দেয়ায় বক্তব্য নেয়া সম্ভব হয়নি।

এ ব্যাপারে লাখাই উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোঃ শরিফ উদ্দিনের সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি জানান, বিষয়টি নিয়ে দু’পক্ষের সাথে ইতিমধ্যে কথা বলা হয়েছে।

বিষয়টি পুঙ্খানুপুঙ্খ বিশ্লেষণ করে আইনানুগ ব্যবস্থা নেয়া হবে অথবা আদালতের এখতিয়ারাধীন হলে বাদীপক্ষকে আদালতে যাওয়ার পরামর্শ দেয়া হবে।

Developed By The IT-Zone