ঢাকাশনিবার , ৬ জুন ২০২০
আজকের সর্বশেষ সবখবর

লাখাই থানার এএসআই তোহা-সাদ্দামের ভুমিকায় খুশি সাধারণ মানুষ

দৈনিক আমার হবিগঞ্জ
জুন ৬, ২০২০ ২:৩৬ অপরাহ্ণ
Link Copied!

স্টাফ রিপোর্টার : লাখাই থানার দুই এএসআই-এর কঠোর পদক্ষেপে সুফল পেয়েছেন উপজেলাবাসী। চুরি, ছিনতাই, ডাকাতিসহ বিভিন্ন বিষয় নিয়ন্ত্রণে জোরালো ভুমিকা পালন করেছেন এই দুই এএসআই। জনগনের জানমাল নিরাপত্তায় দিনরাত কঠোর পরিশ্রম করে জায়গা করে নিয়েছেন উপজেলাবাসীর হৃদয়ে।
সূত্রে জানা যায়- ২০১৮ সালের শেষের দিকে পৃথক সময়ে লাখাই থানায় এএসআই হিসেবে যোগদান করেন মো. তোহা ও মোহাম্মদ সাদ্দাম হোসেন। যোগদানের পূর্বে লাখাই উপজেলার বিভিন্ন স্থানে চুরি-ডাকাতির ঘটনা ঘটত। তারা দুইজন যোগদান করার পর প্রথম অবস্থাতেই চিহ্নিত ডাকাতদের তালিকা সংগ্রহ করে গ্রেফতার করেন। অনেক সময় ডাকাত ধরতে গিয়ে হামলার শিকার হয়েছেন তারা। ফলে সম্পূর্ণভাবে ডাকাতির আতঙ্ক থেকে মুক্তি পান উপজেলার মানুষ। এক সময় সন্ধ্যার পর হবিগঞ্জ-লাখাই সড়কে চলতে সাধারণ মানুষ ভয় পেলেও এখন মধ্যরাতেও একা একা যে কেউ এই সড়ক দিয়ে নির্ভয়ে চলাচল করতে পারেন। এছাড়া বেশ কিছু গুরত্বপুর্ণ মামলা ও বহুল আলোচিত ঘটনার জট খোলেছে তাদের দক্ষতায়। মাদক ব্যবসায়ীরাও তাদের আতঙ্কে বন্ধ করেছে অবাধ বিচরণ।
এদিকে, করোনা পরিস্থিতি দিনরাত এক করে মানুষকে সচেতন করার কাজে নিজেদের উৎসর্গ করেছেন তারা দুজনে। শহর থেকে গ্রামে ছুটে চলেছেন উপজেলাবাসীকে করোনা থেকে দূরে রাখতে।
এলাকার অনেক সচেতন ব্যক্তিরা বলছেন- এমন দুইজন চৌখুস পুলিশ কর্মকর্তার জন্য লাখাইয়ের মানুষ অনেকটা নিরাপদে ঘুমাতে পারছেন। সবগুলো পরিস্থিতিতেই তাদের পরিকল্পিত পদক্ষেপ মানুষকে দিয়েছে স্বস্তি। তাই অন্য সকল পুলিশ কর্মকর্তাদেরকেও এভাবে নিরলসভাবে কাজ করার আহবান জানিয়েছেন তারা।
এ ব্যাপারে এএসআই মো. তোহা ও সাদ্দাম বলেন- মানুষের সেবা করার জন্যই পুলিশের পেশাটিকে বেঁচে নিয়েছি। মানুষের নিরাপত্ত দিতে পারলে নিজেদের মধ্যে যেমন প্রশান্তি আসি তেমনি নিজেদে আরও দ্বায়িত্বশীল করে তুলে। সারা জীবন মানুষের সেবক হয়ে কাজ করতে চাই।’
তারা বলেন- ‘করোনা পরিস্থিতিতে সবচেয়ে বেশি কষ্ট হয়েছে। অনেক মানুষকে লকডাউনের আওতায় আনতে গিয়ে হয়রাণীর শিকার হতে হয়েছে। তবুও লাখাইয়ে ঢাকা ফেরত এতসব মানুষ আসার পরও করোনা পরিস্থিতি স্বাভাবিক রাখতে পেরেছি সেটা ভাবলে ভালো লাগে।’

Developed By The IT-Zone