ঢাকাবুধবার , ২০ জুলাই ২০২২
আজকের সর্বশেষ সবখবর

লাখাইয়ে সংঘর্ষের ঘটনায় ১ জন নিহত হওয়ায় বাড়িঘরে হামলা, ভাংচুর ও লুটপাট

স্টাফ রিপোর্টার
জুলাই ২০, ২০২২ ১১:০০ পূর্বাহ্ণ
Link Copied!

লাখাইয়ে ঈদুল আযহার দিনে কচুরিপানা নিয়ে দুপক্ষের সংঘর্ষে অর্ধশত আহত হওয়ার ঘটনায় ঢাকায় চিকিৎসারত অবস্থায় আব্দুল মন্নাফ মিয়া(৭৫) এর মৃত্যুর খবর পাওয়া গেছে। আব্দুল মন্নাফের মৃত্যুকে কেন্দ্র করে আবরু মিয়া ও তার লোকজনের বাড়ি ঘরে হামলা, ভাংচুর, লুটপাট করেন শের আলীর লোকজন।

খবর পেয়ে লাখাই থানা পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রেণে আনে। ঘটনাটি ঘটেছে মঙ্গলবার (১৯ জুলাই) সকালে উপজেলার মুড়িয়াউক ইউনিয়নের মৌবাড়ি গ্রামে।

খোঁজ নিয়ে জানা যায়, লাখাই উপজেলার মৌবাড়ী গ্রামে শের আলী গ্রুপ ও আবরু মিয়া গ্রুপের মাঝে দীর্ঘদিন যাবত আধিপত্য বিস্তার নিয়ে বিরোধ চলে আসছিল।

এরই জের ধরে ১০ জুলাই রবিবার ঈদুল আযহা নামাজের আগে আবরু মিয়ার লোক সকাল ৭ ঘটিকার সময় পার্শ্ববর্তী খাল থেকে কচুরিপানা তুলতে গেলে শের আলীর লোকজন বাধা দেয়। এতে তর্ক-বিতর্কে জড়িয়ে পড়লে এক পর্যায়ে উভয় পক্ষ সংঘর্ষে জড়িয়ে পরে।

এ ঘটনায় উভয় পক্ষের প্রায় অর্ধশত লোক আহত হয়। আহতেদর মাঝে আব্দুল মন্নাফের অবস্থা গুরুতর হওয়ায় প্রথমে লাখাই উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে পরে হবিগঞ্জ জেলা সদরে রেফার করা হয়।

আব্দুল মন্নাফের অবস্থার অবনতি দেখা দিলে তাকে ঢাকা মেডিকেল হাসপাতালে প্রেরন করা হয়। সেখানে চিকিৎসাধীন অব্ধসঢ়;স্থায় প্রায় ৯ দিন পর ১৯ জুলাই মঙ্গলবার তার মৃত্যু হয়। তার মৃত্যুর সংবাদ এলাকায় ছড়িয়ে পড়লে শের আলী গ্রুপের লোকজন আবরু মিয়ার গ্রুপের লোকজনের বাড়ী ঘর ভাংচুর, লুটপাট, হামলা করে।

সংবাদ পেয়ে লাখাই থানার অফিসার্স ইনচার্জ মোঃ সাইদুল ইসলাম মুড়িয়াউক বিট-অফিসার এস আই মিজানুল হক একদল পুলিশ ফোর্সসহ মৌবাড়ী গ্রামে পৌঁছে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে আনে।

এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত পুলিশ সেখানে মোতায়েন রয়েছে। এ সংবাদের পর লাখাই থানার অফিসার ইনচার্জ মোঃ সাইদুল ইসলাম ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন। বর্তমানে পরিস্থিতি শান্ত রয়েছে।

এদিকে আবরু মিয়ার লোকজনের মধ্যে খসরু মিয়া, ইসমাইল মিয়া, সুজাত মিয়া, হাসিম মিয়া, মহলদার মিয়া, সুবহান মিয়া, হোসেন মিয়া, জাকির মিয়া, ছুরুক মিয়া, ছায়েদ মিয়া জানান, সকালে আমরা কাজে বেরিয়ে পড়ি। এই ফাঁকে শের আলী গ্রুপের লোকজন বাড়িতে এসে মহিলাদেরকে মারধর করে বাড়িতে হামলা, লুঠপাট ও ভাংচুর চালায়। এসময় প্রায় ১৫/২০টি ঘর ভাংচুর ও লুটপাট করে।

ঘরে থাকা আসবাবপত্র নিয়ে যায়। ফ্রিজ, টিভি, ফ্যান, ধান, চাল, নগদ অর্থ, স্বর্ণালংকার ও গরুসহ নিয়ে যায়। এতে তাদের প্রায় ৫কোটি টাকার ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে বলে জানান।

এ ব্যাপারে অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মাহফুজা আক্তার শিমুল জানান, ভাঙচুর ও লুটপাট ঠেকাতে পুলিশ কাজ করছে। আক্রান্ত এলাকায় পুলিশ মোতায়েন থাকবে।

Developed By The IT-Zone