ঢাকারবিবার , ৫ জুন ২০২২
আজকের সর্বশেষ সবখবর

লাখাইয়ে বিলুপ্তির পথে সোনালী আঁশ

এম এ ওয়াহেদ,লাখাই
জুন ৫, ২০২২ ৭:১৫ অপরাহ্ণ
Link Copied!

লাখাই উপজেলায় বিলুপ্তির পথে সোনালী আঁশ। কোন এক সময় প্রতিটি গ্রামে প্রতিটি কৃষক সোনালী পাট চাষে খুব আগ্রহী ছিলেন। বর্তমানে এলাকার কৃষকদের মধ্যে এই সোনালী পাট চাষে অনাগ্রহ দেখা দিয়েছে।

খোঁজ নিয়ে জানা যায়, কৃষকরা এই সোনালী পাট চাষে অনাগ্রহের কারন হিসাবে কৃষকরা জানান পাট চাষে কায়ীক পরিশ্রম ও অর্থ খরচ বেশী শুধু তা নয় পাট চাষ করে ন্যায্য মূল্য না পাওয়ার মূল কারন।

লাখাই উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা মোঃ শাকিল খন্দকারের সাথে মুঠো ফোনে যোগাযোগ করলে তিনি জানান, এ বছর সোনালী পাট চাষে লাখাই উপজেলায় ৪০ হেক্টর জমি সোনালী পাট চাষের আওতায় আনা হয়েছে।

কৃষকরা পাট চাষে অনাগ্রহের কারন কি জানতে চাইলে তিনি জানান, বাংলাদেশে অনেক জুট মিল বন্ধ থাকার কারনে পাট ক্রয়কারীরা পাট ক্রয়ে আগ্রহ না থাকার কারনে অনেক কৃষকরা পাট চাষে অনিহা মনোভাব দেখা যাচ্ছে। তিনি আরো জানান, সোনালী পাট কেনাফ ও মেস্তা জাতীয় পাট চাষে ভাল ফলন হয়।

এ ব্যাপারে মুড়িয়াউক ইউনিয়নের মশাদিয়া গ্রামের মোঃ অহিদ মিয়া এ প্রতিনিধি কে জানান, আমি এ বছর বেশ কয়েক বিঘা জমিতে দেশী ও বিদেশী জাতের পাট চাষ করেছি। আমি আশাবাদী এ বছর ভাল ফলন হবে। কৃষকগন পাট চাষে আগ্রহ নেই কেন প্রশ্ন করলে তিনি জানান ১ বিঘা জমিতে পাট চাষ করতে হালচাষ ও জমিতে নিড়ানি দিতে গিয়ে খরচ হয় ৮ হাজার টাকা। কিন্তু পাট উৎপাদন হয় প্রতি বিঘা জমিতে ৮ মন যাহার বর্তমান বাজার মূল্য ১৬ হাজার টাকা।

শুধুই তা নয় ১ বিঘা জমির পাটকাটি বিক্রি করা যায় ৩ হাজার টাকা। তিনি আরো জানান এ বছর আমি পাট চাষ করতে উপজেলা কৃষি অফিস থেকে বিনামূল্যে বীজ ও সার পেয়েছি।  আমি আশা করব আমার উপজেলার প্রতিটি কৃষক যেন পাট চাষে আগ্রহী হয়ে উঠে।

Developed By The IT-Zone