ঢাকারবিবার , ৫ জুন ২০২২
আজকের সর্বশেষ সবখবর

লাখাইয়ে জনশুমারী নিয়োগে অনিয়ম : স্ত্রীর বিরুদ্ধে স্বামীকে আইটি সুপারভাইজার পদে নিয়োগের অভিযোগ

আতাউর রহমান ইমরান
জুন ৫, ২০২২ ৯:৫৮ পূর্বাহ্ণ
Link Copied!

লাখাই উপজেলা জনশুমারি ও গৃহগণনা ২০২২ কার্যক্রমে আইটি সুপারভাইজার পদে নিয়মবহির্ভূতভাবে নিজের স্বামীকে নিয়োগ দিয়েছেন বলে অভিযোগ উঠেছে লাখাই উপজেলা পরিসংখ্যান কার্যালয় এর জুনিয়র পরিসংখ্যান সহকারী সাবিনা ইয়াসমিনের বিরুদ্ধে।

সাবিনা ইয়াসমিনের স্বামী হবিগঞ্জ সদর উপজেলার সুলতান মাহমুদপুর গ্রামের বাসিন্দা আতাউর রহমান লিমন হবিগঞ্জ সদর উপজেলা সাব রেজিস্ট্রার কার্যালয়ে নিবন্ধিত দলিল লেখক হিসাবে কর্মরত রয়েছেন।

আইটি সুপারভাইজার পদে নিয়োগে কম্পিউটার সায়েন্স অথবা আইটি সম্পর্কিত বিষয়ে ৪ বছর মেয়াদি কোর্সের সার্টিফিকেটধারী কিংবা অধ্যয়নরত এবং লাখাই উপজেলার স্থায়ী বাসিন্দা হওয়াকে শর্ত রেখে ফেসবুকে নিয়োগ বিজ্ঞাপন প্রচার করা হয়।

এরকম শর্ত থাকলেও নিজের স্বামীকে নিয়োগ প্রদানের ক্ষেত্রে এর কোনোটাই সাবিনা ইয়াসমিন অনুসরণ করেননি বলে অভিযোগ উঠেছে। আতাউর রহমান লিমন এর সাথে কথা বলে জানা যায় তিনি যুব উন্নয়ন অধিদপ্তর থেকে চার মাস মেয়াদী কম্পিউটার কোর্স সম্পন্ন করেছেন।

এছাড়া সাবিনা ইয়াসমিন এর সাথে কথা বলে জানা যায়, তার স্বামী এ পদে যোগদানের জন্য কোনো আবেদন করেননি। তিনি আরো জানান, এনামুল হক সোহাগ নামের লাখাই উপজেলার বাসিন্দা এক প্রার্থী এ পদের জন্য আবেদন করেন।

গত ২৯ মে মোবাইলে যোগাযোগ করে তাকে না পাওয়ায় পরবর্তীতে বামৈ গ্রামের বাসিন্দা মোজাম্মেল হক নামের এক ব্যক্তিকে তিনি নিয়োগ দেন। তিনি আরো জানান, বাংলাদেশের একমাত্র নারী হিসেবে এ পদে কর্মরত হওয়ায় তার কাজের সুবিধার্থে নিজের স্বামীকে নিয়োগ দেয়ার জন্য পরিসংখ্যান কার্যালয়ের হবিগঞ্জ জেলা উপ-পরিচালককে জানিয়ে ওই ব্যক্তিকে অনুরোধ করে চাকরি থেকে বাদ দেন।

এনামুল হক সোহাগকে ২৯ মে কল দিয়েছেন বলে তিনি দাবি করলেও তথ্যপ্রযুক্তির মাধ্যমে এনামুল হক সোহাগের কললিস্ট যাচাই করে দেখা যায় ২৯ মে তার সিভিতে প্রদত্ত নাম্বারে কোন কল আসেনি। এছাড়া কথিত বামৈ গ্রামের বাসিন্দা মোজাম্মেল হককে সাবিনা ইয়াসমিনের স্বামীর আত্মীয় দাবি করলেও তার বাবার নাম কি কিংবা তার পরিচয় কি, এ সংক্রান্ত কোনো তথ্য এ প্রতিবেদককে সাবিনা ইয়াসমিন দিতে পারেননি।

সাবিনা ইয়াসমিন জানান মোজাম্মেল হক নাকি কোন সিভি তার কাছে জমা দেননি। এর আগে এ পদে যোগদানের জন্য ফেসবুকে বিজ্ঞাপন দেখে লাখাই উপজেলার সুনেশ্বর গ্রামের বাসিন্দা ঢাকা ন্যাশনাল পলিটেকনিক ইনস্টিটিউটে চার বছর মেয়াদি ডিপ্লোমা ইন কম্পিউটার সাইন্স চতুর্থ বর্ষে অধ্যয়নরত এনামুল হক সোহাগ আবেদন করেন।

এনামুল হক সোহাগ জানান, এ পদে সিভি দিয়ে আবেদনকারী একমাত্র প্রার্থী হিসেবে তিনি থাকলেও তাকে নিয়োগ দেয়া হয়েছে বলে কেউ অবগত করেনি। ২৯ তারিখে কেউ তাকে কল করেনি।

পরবর্তীতে তার স্থানে অন্য একজনকে নেয়া হয়েছে বলে জানতে পেরে তিনি সাবিনা ইয়াসমিনের সাথে যোগাযোগ করে জানতে পারেন যে তাকে কল দিয়ে না পাওয়ায় তাঁর স্থানে অন্য আরেকজনকে নিয়ে নেয়া হয়েছে।

খোঁজ নিয়ে জানা যায়, সাবিনা ইয়াসমিনের বিরুদ্ধে আরো বিভিন্ন অনিয়মের অভিযোগ রয়েছে। এ ধরনের নিয়োগ কার্যক্রম লাখাই উপজেলা নির্বাহী অফিসারের সাথে সমন্বয় করে সম্পন্ন করার কথা বলা হলেও সাবিনা ইয়াসমিন নিজের একক সিদ্ধান্তে নিয়োগ কার্যক্রম সম্পাদন করেন।

মুড়িয়াউক ইউনিয়নের ধর্মপুর গ্রামের বাসিন্দা হাবিবুরকে সুপারভাইজার পদে নিয়োগ দেয়া হয়। কিন্তু ৪ জুন শুরু হওয়া প্রশিক্ষণের তিনি অনুপস্থিত থাকলেও নিয়ম অনুযায়ী তাকে বাদ দিয়ে অপেক্ষমাণ তালিকায় থাকা অন্য কাউকে তিনি নিয়োগ দেন নি।

হাবিবুর এর সাথে যোগাযোগ করে জানা যায় তিনি এদিন ঢাকায় অবস্থান করছেন। অন্য ইউনিয়নে প্রশিক্ষণ কার্যক্রম অংশগ্রহণ করবেন বলে জানান তিনি।

এ ব্যাপারে হবিগঞ্জ জেলা পরিসংখ্যান কার্যালয়ের উপ-পরিচালক রাশেদ ই মাসতাহাবের সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি জানান, বিষয়টি তিনি জানতেন না। এরকম হয়ে থাকলে এ ব্যাপারে খোঁজ নিয়ে তিনি ব্যবস্থা নেবেন।

ভুক্তভোগীকে তার সাথে দেখা করে কথা বলার জন্য অবগত করতে তিনি এ প্রতিবেদককে অনুরোধ করেন। এ বিষয়ে লাখাই উপজেলা নির্বাহি অফিসার মোঃ শরিফ উদ্দিনের সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি জানান, এর আগে মিটিংয়ে যেকোনো বিষয় আশয়ে তাকে জানানোর কথা বলা হলেও এ সংক্রান্ত নিয়োগের ব্যাপারে তার সাথে কোনো রকমের সমন্বয় করা হয়নি বলে এ ব্যাপারে তিনি কিছুই জানেন না।

Developed By The IT-Zone