ঢাকাসোমবার , ১৮ জুলাই ২০২২
আজকের সর্বশেষ সবখবর

লাখাইয়ে অবৈধ বালুর ব্যবসা নিয়ে মামলার পর পিবিআই’র তদন্ত শুরু

আতাউর রহমান ইমরান
জুলাই ১৮, ২০২২ ৯:৩২ পূর্বাহ্ণ
Link Copied!

লাখাই উপজেলার বুল্লা বাজারে অবৈধ বালু ব্যবসায়ীদের বিরুদ্ধে স্বপ্রণোদিত হয়ে আদালতের মামলা দায়েরের পর এ ব্যাপারে তদন্ত শুরু করেছে পুলিশ ব্যুরো অফ ইনভেস্টিগেশন (পিবিআই)। শনিবার (১৬ জুলাই) মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা পিবিআই পরিদর্শক মুক্তাদির রিপন বুল্লা বাজার ও এর আশেপাশের এলাকায় থাকা বালু ব্যবসায়ের আলামত সরেজমিন পরিদর্শন করেন।

এ সময় বালু পরিবহনরত অবস্থায় একাধিক যানবাহন আটক করেন তিনি। ওই এলাকার কয়েকটি স্থানে স্তুপীকৃত বালু আদালতের আদেশ ব্যতীত সরানো যাবে না বলে সংশ্লিষ্টদের জানিয়ে দেন তিনি।

জানা যায়, পিবিআই এর তদন্তে উঠে আসছে অবৈধ এ ব্যবসার সাথে জড়িত প্রভাবশালীদের নাম। তালিকায় আছেন ইউপি চেয়ারম্যান থেকে শুরু করে উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান এবং একাধিক ব্যবসায়ী নেতাও।

অনুসন্ধানে জানা যায়, কিশোরগঞ্জ জেলার অষ্টগ্রাম উপজেলার আব্দুল্লাহপুরের নিকট মেঘনা নদী থেকে অবৈধভাবে বালু উত্তোলন করে ওই এলাকার একাধিক চক্র। শামসুদ্দিন নামের এক ব্যক্তি নেতৃত্বে চক্র গুলি পরিচালিত হচ্ছে। সেখান থেকে বালু তুলে বাল্কহেড লঞ্চে করে নিয়ে আসা হয় বুল্লা বাজারের সুতাং নদীর তীরবর্তী এলাকায়।

এখানে সক্রিয় একাধিক সিন্ডিকেটের নেতৃত্বে পাইপের মাধ্যমে বালু জমা করা হয় হবিগঞ্জ-লাখাই সড়ক সংলগ্ন জমিতে। এখান থেকে ট্রাকে করে বিপুল পরিমান বালু শায়েস্তাগঞ্জ উপজেলার ওলিপুর সহ কয়েকটি স্থানে অবস্থিত ইন্ডাস্ট্রিতে সাপ্লাই দেওয়া হয়।

শায়েস্তাগঞ্জেও সক্রিয় রয়েছে একাধিক বালু সাপ্লায়ার দালাল চক্র। এভাবে কয়েকটি ধাপে কোটি কোটি টাকা মূল্যের অবৈধ বালু পাচার হচ্ছিলো। এলাকাবাসী অভিযোগ করেন, বেপরোয়া ব্যবসায়ী চক্র গুলির হটকারিতায় বাল্কহেডের ঢেউয়ে ও বালু স্থানান্তরের পাইপের কারনে এলাকার রাস্তাঘাট, বাড়িঘর ভেঙে যাচ্ছিল।

বালু স্থানান্তরের বিভিন্ন মেশিনের শব্দে এলাকাবাসীর রাতের ঘুম হারাম হয়ে গিয়েছিল। এ অবস্থায় দৈনিক আমার হবিগঞ্জ পত্রিকায় সংবাদ প্রকাশের প্রেক্ষিতে হবিগঞ্জের স্পেশাল ম্যাজিস্ট্রেট জাকির হোসাইনের আদালত গত ১২ জুলাই স্বপ্রণোদিত হয়ে মামলা দায়ের করেন। ঘটনা তদন্তের জন্য পিবিআই কে দায়িত্ব দেন তিনি।

মামলা দায়েরের পর লাখাই উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোঃ শরীফ উদ্দীনের হস্তক্ষেপে নতুন করে বালু নিয়ে আসা বন্ধ হয়। অষ্টগ্রাম উপজেলা নির্বাহী অফিসার হারুন অর রশিদ ও অবৈধ বালু উত্তোলনকারীদের বিরুদ্ধে কঠোর অবস্থান নিয়ে একাধিক অভিযান পরিচালনা করেন।

তবে বুল্লা বাজার ও পুর্ব বুল্লা এলাকায় এ কাজে ব্যবহৃত প্রচুর পরিমাণ পাইপ এখনো সরানো হয়নি। এজন্য যাতায়াতের অসুবিধা হচ্ছে এলাকাবাসীর। স্থানীয় বাসিন্দারা আদালত এবং প্রশাসনের এমন জনহিতকর ভূমিকায় স্বস্তি প্রকাশ করেছেন।

এ ব্যাপারে মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা মুক্তাদির রিপনের সাথে কথা হলে তিনি জানান, এ ঘটনার তদন্ত শুরু হয়েছে এবং এর কার্যক্রম আরো কয়েকটি ধাপে অব্যাহত থাকবে।

এ বিষয়ে লাখাই উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোঃ শরিফ উদ্দিন জানান, বালু স্থানান্তরের কাজ স্থাপিত সব কয়টি পাইপলাইন অনতিবিলম্বে অপসারণ করা হবে।

Developed By The IT-Zone