ঢাকামঙ্গলবার , ২৫ মে ২০২১
আজকের সর্বশেষ সবখবর

লাখাইয়ে ইউপি সচিব মোক্তার মিয়ার বিরুদ্ধে ব্যাপক অনিয়ম ও দুর্নীতির অভিযোগ উঠেছে

দৈনিক আমার হবিগঞ্জ
মে ২৫, ২০২১ ৮:১৫ অপরাহ্ণ
Link Copied!

তৌহিদ মোল্লা, লাখাই :   লাখাই উপজেলা ৩নং মুড়িয়াউক ইউনিয়ন পরিষদের সচিব মোক্তার মিয়ার বিরুদ্ধে ব্যাপক অনিয়ম ও দুর্নীতির অভিযোগ উঠেছে। সরকারি নিয়ম অনুযায়ী দেশে শিশু জন্মের ৪৫ দিন পর্যন্ত জন্ম ও মৃত্যু নিবন্ধন ফি নেয়া হয় না । ৪৫ দিন বয়সের পর থেকে ৫ বছর পর্যন্ত ২৫ টাকা এবং ৫ বছরের উপরে বয়সীদের ৫০ টাকা। এর বেশি ফি গ্রহণ করা যাবে না মর্মে নিয়ম রয়েছে।

কিন্তু সচিব মোক্তার মিয়া এই নিয়মকে বৃদ্ধাঙ্গুলি দেখিয়ে নিজেই নতুন নিয়ম করেছেন। জন্ম ও মৃত্যু নিবন্ধনে। সোমবার (২৪মে) সরেজমিনে ইউপি অফিসে গিয়ে জানা যায়, সর্বশেষ সরকারী বিধি মোতাবেকের বাহিরে গিয়ে ইউপি সচিব প্রতিটি জন্মনিবন্ধনে ২শ থেকে ৩শ টাকা করে নিচ্ছেন। এর বিপরীতে গ্রাহকরা রশিদ চাইলে রশিদ লাগবে না বলে তাল বাহানা করেন। তিনি সেবাগ্রহীতাদের সাথে খারাপ আচরণ করেন। কেউ জন্ম নিবন্ধনের জন্য আসলে প্রথমে তাকে সার্ভার প্রবলেম, আপনার নাম অনলাইনে নেই, কাগজপত্র ঝামেলা আছে বলে বিভিন্ন অজুহাতে ফিরিয়ে দেন।

 

 

 

ছবি : লাখাই মুড়িয়াউক ইউনিয়ন পরিষদের সচিব মোক্তার মিয়ার ফাইল ছবি

 

 

 

পরে ৫শ থেকে ১হাজার টাকায় চুক্তি করলে খুব অল্প সময়ের মধ্যে নিবন্ধন দিয়ে দেন সচিব মোক্তার মিয়া ।শুধু তাই নয় মুড়িয়াউক ইউনিয়ন পরিষদে যোগদানের পর থেকে তিনি দুর্নীতি-অনিয়মসহ জনগণের সাথে অসদাচরণ করে আসছেন।

 

সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায় সেবাগ্রহীতাদের ঘন্টার পর ঘন্টা সচিবের জন্য অপেক্ষা করতে হয়। তিনি কোনো দিন আসেন আবার কোনো দিন আসে না। যদিও আসেন ১১টা ১ টার পর বিভিন্ন কাজের অজুহাত দেখিয়ে চলে যান।এতে জনগণ সহ সংশ্লিষ্ট সকলের অতিষ্ঠ হয়ে পড়েছে। তিনি টাকা ছাড়া কোনো কাজ করে না। তার আচার-আচরণ অত্যন্ত খারাপ ।

 

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক কয়েকজন গ্রাম পুলিশ বলেন, মানুষ প্রতিদিন ইউপি অফিসে আসে সেবা নিতে কিন্তু সঠিক সময়ে সচিব আসেন না ফলে সেবা থেকে বঞ্চিত হচ্ছে সাধারণ জনগণ। ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান রফিকুল ইসলাম মলাই সাথে মুঠোফোনে আলাপকালে সচিবের বিষয়ে জিজ্ঞেস করলে তিনি বলেন, কোথায় আছে আমি দেখতেছি। চেয়ারম্যান আরো জানান, সেবা গ্রহীতা যারা অফিসে আসছে সেবা নিতে গ্রাম পুলিশ আনোয়ার ও সিরাজ মোল্লাকে বলে দিচ্ছি একটি রুম খুলে দিতে যাতে সেবা গ্রহীতা রুমে বসতে পারেন।

 

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক কয়েকজন অভিযোগ করে বলেন, আমাদের কাছ থেকে সচিব ১ মাস আগে জন্ম নিবন্ধন করার জন্য ৩শ/৪শ টাকা করে নিয়েছেন। বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের কোমলমতি ছাত্র-ছাত্রীরা জন্ম নিবন্ধন করতে ইউপি অফিসে আসলে তাদেরকে ও জন্ম নিবন্ধন সনদ ঠিক সময়ে দিতে অপারগতায় প্রকাশ করেন সচিব মোক্তার মিয়া।

বিস্তারিত জানতে কথা হয় লাখাই উপজেলার ৩নং মুড়িযাউক ইউনিয়ন পরিষদের সচিব মোক্তার মিয়ার সাথে। তিনি দৈনিক আমার হবিগঞ্জকে জানান,আমার বিরুদ্ধে আনিত অভিযোগগুলো মিথ্যা। আর আমি কারো সাথে কোন সময় অসদাচরণ করিনি,কেউ বলতেও পারবে না ।

এ বিষয়ে সহকারী কমিশনার( ভূমি) ও এক্সিকিউটিভ ম্যাজিস্ট্রেট ইয়াছিন আরাফাত রানা সাথে মুঠোফোনে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, বিষয়টি অত্যন্ত দু:খজনক । আমি দেখবো।

Developed By The IT-Zone