ঢাকামঙ্গলবার , ২১ এপ্রিল ২০২০
আজকের সর্বশেষ সবখবর

লস্করপুর ইউনিয়নে ত্রাণ বিতরণে অনিয়মের অভিযোগ!

অনলাইন এডিটর
এপ্রিল ২১, ২০২০ ৭:১৩ অপরাহ্ণ
Link Copied!

তারেক হাবিব, প্রধান প্রতিবেদক॥ হবিগঞ্জ সদর উপজেলার লস্করপুর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান ও ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মাহবুবুর রহমান হিরুর বিরুদ্ধে সরকারী বরাদ্দকৃত ত্রাণ আত্মসাতের অভিযোগ পাওয়া গেছে। সম্প্রতি দেশে করোনা ভাইরাসের প্রাদূর্ভাব দেখা দেওয়ায় লকডাউনে ঘরে আটকে থাকা সাধারণ মানুষের জন্য খাদ্য সামগ্রী বরাদ্দ দেয় সরকার। কিন্তু ওই চেয়ারম্যান সরকারী ত্রাণ সামগ্রীর সুষ্ঠ বিতরণ না করে নিজেই আত্মসাত করেছেন বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। এ ব্যাপারে ২০ এপ্রিল রবিবার জেলা প্রশাসক বরাবরে একটি লিখিত অভিযোগ দায়ের করেছেন ওই ইউনিয়নের হামিদপুর গ্রামের আখলাছ আহমেদ প্রিয় নামে এক সংবাদকর্মী।

অভিযোগ সুত্রে জানা যায়, লস্করপুর ইউনিয়নে সমবন্টণ করার শর্তে ৬ষ্ঠ দফায় সর্বমোট ৭ টন ২’শ ৫০ কেজি চাল বরাদ্দ দেয়া হয়। কিন্তু চেয়ারম্যান ৩১ মার্চ থেকে ১৪ এপ্রিল পর্যন্ত ৪র্থ দফায় ১০ কেজি চালের পরিবর্তে জনপ্রতি ৭-৮ কেজি করে (২য় পাতায় দেখুন) মোট ৫ টন ২’শ ৫০ কেজি চাল বিতরণ করেছেন। তাছাড়া ৫ টন ২’শ ৫০ কেজি চাল থেকে নিজের ব্যক্তিগত তহবিল বলে বিভিন্ন সামাজিক সংগঠনেও ত্রাণ বিতরণ করেছেন। বাকী ২ টন ত্রাণ তিনি আত্মসাত করেছেন। এ ধরণের ত্রাণ বিতরণ নিয়ে আবার অনেকেই অসন্তোষ প্রকাশ করেছেন। মোবাইল ফোনে পরিচয় গোপন করে ভুক্তভোগীদের সাথে কথা বললে জানা যায় কেউ ৭/৮ কেজি চাল পেয়েছেন আবার কেউ ত্রাণ নিতে গিয়ে ২ ঘন্টা লাইনে দাড়িয়ে খালি হাতে ফিরে এসেছেন। কেউ আবার একই পরিবার থেকে ২/৩ বারও ত্রাণ পেয়েছেন। ত্রাণ বিতরণ নিয়ে স্বজনপ্রীতির অভিযোগও উঠেছে তার বিরুদ্ধে।

অভিযুক্ত চেয়ারম্যান মাহবুবুর রহমান হিরু বিষয়টি সম্পূর্ন অস্বীকার করে জানান, ‘অভিযোগকারী প্রিয় সাংবাদিক নামের কলঙ্ক, সে সাংবাদিকতার নাম ভাঙ্গিয়ে বিভিন্ন স্থানে চাঁদাবাজি করে আসছে। তার অভিযোগের প্রেক্ষিতে যদি আমার নামে কোন নিউজ হয় তাহলে আমি তার বিরুদ্ধে মানহানির মামলা করব। মূলত সে আমার কাছে নিয়ম বর্হিভূতভাবে চাঁদা হিসেবে ১০ বস্তা ত্রাণ চেয়েছিল। আমি তার কথামতো চাঁদা দেইনি বলে সে আমার ক্ষতি করার চেষ্টা করছে এবং মিথ্যা অভিযোগ দিয়েছে। আমার বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্রের চেষ্টা চলছে। আমি ৯ জন মেম্বারের তালিকা অনুযায়ী ৩ হাজার ৩’শ ৬৪ জনের নাম উপজেলা প্রশাসন ও জেলা প্রশাসকের কাছে প্রেরণ করে চাল বিতরণ করেছি’।

এ ব্যাপারে অভিযোগকারী সংবাদ কর্মী আখলাছ আহমেদ প্রিয়-এর সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, ‘চেয়ারম্যান সাহেবের পেটে ব্যাথা শুরু হইছে, তাই সে এখন আবুল-তাবুল বকতাছে। আমি তার বিরুদ্ধে অভিযোগ দায়ের করেছি; তদন্তকালে আমি এর সত্যতা প্রমাণ করব’।

জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ কামরুল হাসান বলেন, ‘অভিযোগ পেয়েছি, আমি অফিসের বাহিরে আছি কাল বিষয়টি দেখব। অপরাধী যেই হোক তার ব্যাপারে কোন ছাড় নেই, তদন্ত করে দোষী প্রমাণিত হলে শাস্তি তাকে পেতেই হবে’। হবিগঞ্জ জেলা আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক এডভোটে আলমগীর চৌধুরী জানান, বিষয়টি এখনো শুনিনি। প্রশাসনিক কোন প্রমাণ পেলে তার বিরুদ্ধে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে।

Developed By The IT-Zone