ঢাকাবুধবার , ১৩ জুলাই ২০২২
আজকের সর্বশেষ সবখবর

যেভাবে ঈদ কাটালেন হবিগঞ্জ জেলার বানভাসি মানুষেরা

ইমদাদুল হোসেন খান
জুলাই ১৩, ২০২২ ৬:৪৪ অপরাহ্ণ
Link Copied!

হবিগঞ্জ জেলার বিভিন্ন উপজেলার আশ্রয় কেন্দ্রে অবস্থানকারী বানভাসি মানুষদের কারও ঘরবাড়ি নিম্নাঞ্চলে থাকায় এখনও পানি নামেনি। যাদের ঘরবাড়ি একটু উঁচুতে তাদের বাড়ী থেকে পানি নেমে গেলেও বন্যায় কিছুটা ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে।

কারও ঘরবাড়ি তেমন ক্ষতিগ্রস্ত না হলেও বন্যার পানির সাথে যেসব ময়লা-আবর্জনা ঢুকেছিল তাতে অস্বাস্থ্যকর পরিবেশ সৃষ্টি হয়েছে। হুট করে ক্ষতিগ্রস্ত ঘর মেরামত বা পরিস্কার-পরিচ্ছন্ন করার মতো পরিস্থিতি এসব বানভাসি মানুষের অনুকূলে আসেনি।

একারণে নিরূপায় হয়ে আশ্রয় কেন্দ্রেই ঈদ করতে হয়েছে বানভাসি মানুষদেরকে। অন্যান্য বছরের মতো স্বাভাবিক পরিবেশে ঈদ করতে না পারায় কিছুটা বিষাদময় ঈদ উদযাপন করতে হয়েছে তাদেরকে।

তবে প্রশাসনসহ কিছু ব্যক্তি ও সংগঠন তাদের সুখ-দুঃখের সাথী হওয়ায় অনেকটা ভালোও লেগেছে তাদের। গণমাধ্যমের সাথে আলাপকালে এসব বানভাসি মানুষেরা ব্যক্ত করেছেন তাদের সুখ-দুঃখের অনুভূতি।

জানা যায়, হবিগঞ্জ জেলায় এবার ১৫ হাজার ৩৯৯ জন মানুষের ঈদ কেটেছে আশ্রয়কেন্দ্রে। তবে এসব বানভাসি মানুষের মুখে হাসি ফোটাতে খাবার নিয়ে ছুটেছে জেলা ও উপজেলা প্রশাসন। তাদের মাঝে মাংস, পোলাওসহ রান্না করা খাবার বিতরণ করা হয়েছে।

আজমিরীগঞ্জের মিয়াধন মিয়া বালিকা উচ্চ বিদ্যালয় আশ্রয়কেন্দ্রে বসবাস করা হাসান মিয়া জানান, ২৩ দিন ধরে তিনি পরিবার-পরিজন নিয়ে সেখানে বসবাস করছেন। তিনি বলেন, আমি গরিব মানুষ। তাই কোরবানি দেওয়া সম্ভব হয় না। তবুও অন্য বছর নিজের সাধ্যমতো ছেলেমেয়ের জন্য নতুন কাপড় কিনে দিই।

বাড়িতে বিভিন্ন ধরনের পিঠা তৈরি করা হয়। ঈদের দিন বাড়িতে পোল্ট্রি মুরগি হলেও নেয়া হয়। কিন্তু এ বছর ঈদ কাটছে আশ্রয়কেন্দ্রে। তাই খাবারের আয়োজন করব কীভাবে? ছেলে কান্নাকাটি করছে, একটা কাপড় কিনে দিতে পারিনি।

রাজিয়া খাতুন বলেন, গরিব হলেও অন্য বছর ঈদের দিন আমাদের বাড়িতে অনেক আয়োজন করা হয়। স্বামী-সন্তানদের নিয়ে অনেক আনন্দ-ফুর্তি করি। পাড়া প্রতিবেশীরা গোশত দেয়। কিন্তু এবার আশ্রয়কেন্দ্রে আছি। তাই এক প্লেট সেমাইও ছেলেমেয়েদের মুখে তুলে দিতে পারিনি।

জেলা প্রশাসনের দায়িত্বপ্রাপ্ত মিডিয়া কর্মকর্তা নাভিদ সারোয়ার হবিগঞ্জে ১৫ হাজার মানুষের আশ্রয়কেন্দ্রে ঈদ করার বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।
তিনি জানান, লাখাই উপজেলার বামৈ সরকারি উচ্চ বিদ্যালয় আশ্রয়কেন্দ্রে অবস্থানরত বন্যা দুর্গতদের হাতে ঈদুল আজহা উপলক্ষে প্রধানমন্ত্রীর পক্ষ থেকে উন্নতমানের খাবার তুলে দেন জেলা প্রশাসক ইশরাত জাহান।

আশ্রয়কেন্দ্রে সবার সঙ্গে তিনি ঈদের শুভেচ্ছা বিনিময় করেন। এসময় অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) মিন্টু চৌধুরী, লাখাই উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) মো. শরীফ উদ্দিন প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

এরপর জেলা প্রশাসক ইশরাত জাহান লাখাই মুক্তিযোদ্ধা ডিগ্রি কলেজ আশ্রয়কেন্দ্রে বন্যাদুর্গতদের সঙ্গে ঈদের শুভচ্ছো বিনিময় করেন এবং তাদের হাতে প্রধানমন্ত্রীর পক্ষ থেকে উন্নতমানের খাবার তুলে দেন।

এদিকে আজমিরীগঞ্জ উপজেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে আশ্রয়কেন্দ্রে খিচুড়ি দেওয়া হয়। আজমিরীগঞ্জের ইউএনও সুলতানা সালেহা সুমি বলেন, ঈদের দিন দুপুরে আজমিরীগঞ্জের আশ্রয়কেন্দ্রগুলোতে ভালোমানের ভুনা খিচুড়ি বিতরণ করা হয়েছে।

আজমিরীগঞ্জের জলসুখা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান ফয়েজ আহমেদ খেলু’র ব্যক্তিগত তহবিল থেকে ওই ইউনিয়নের প্রত্যেক আশ্রয়কেন্দ্রে অবস্থানকারী প্রতিটি পরিবারে ঈদের দিন ভোরে এক প্যাকেট পোলাওয়ের চাল, একটি পোল্ট্রি মোরগ, পিঁয়াজ-রসুন-আদা-মরিচ-হলুদসহ প্রয়োজনীয় মসলা ও সেমাই-চিনি বিতরণ করা হয়। বানভাসিদের মধ্যে অনেক হিন্দু পরিবার রয়েছে সেজন্য গরুর মাংস বিতরণ না করে মোরগ বিতরণ করার কথা তার ঘনিষ্ঠজন সূত্রে জানা গেছে।

বানিয়াচং আইডিয়াল কলেজের প্রভাষক সাংবাদিক জসিম উদ্দিনের মাধ্যমে কোয়ান্টাম ফাউন্ডেশন সিলেট সেন্টারের পক্ষ থেকে আইডিয়াল কলেজ আশ্রয়কেন্দ্রে অবস্থানকারী শতাধিক বানভাসি মানুষের মাঝে ঈদের দিন ভাত এবং খাসির মাংস রান্না করে বিতরণ করা হয়।

৩নং বানিয়াচং দক্ষিণ-পূর্ব ইউনিয়নের আশ্রয়কেন্দ্রগুলোতে ওই ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আরফান উদ্দিন ঈদের দিন ভুনাখিচুড়ি রান্না করে বিতরণ করেন।

ঈদের কয়েকদিন পূর্ব থেকে বানিয়াচং উপজেলা সদরের সকল আশ্রয়কেন্দ্রসহ পানিবন্দী কয়েকটি গ্রামে নারী-পুরুষ-শিশুদের মাঝে বাসদ ও উদীচীর পক্ষ থেকে শাড়ি, লুঙ্গি, শার্ট-প্যান্ট, জামা, মশারী ও জুতা বিতরণ করা হয়। এছাড়া ঈদের আগের দিন সেমাই, চিনি, দুধ, আটা, আলু, পিঁয়াজ ইত্যাদি বিতরণ করা হয়।

এদিকে বিভিন্ন প্রত্যন্ত গ্রামে খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, বন্যার কারণে এবার অনেক মানুষ পরিবার-পরিজনের জন্য ঈদের নতুন জামা-কাপড়-জুতো কিনে দিতে পারেনি। বন্যার কারণে এবছর জেলায় গরুও কম কোরবানি হয়েছে। তাই মাংসের প্রাপ্তিও কম হয়েছে।

সরকারিভাবে এবার চামড়ার দাম বৃদ্ধি করা হলেও স্থানীয়ভাবে চামড়ার দর পাননি লোকজন। বানিয়াচংয়ের সাংবাদিক আক্তার হোসাইন আলহাদী দাম না পেয়ে দুইটি কোরবানির পশুর চামড়া মাটিতে পুঁতে ফেলার কথা ফেসবুকে পোস্ট দিয়ে জানান।

দাম না পাওয়ায় মাদ্রাসাগুলোতেও এবার চামড়া নিতে অনাগ্রহী বলে বানিয়াচং উপজেলা আওয়ামীলীগের ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক আঙ্গুর মিয়া ফেসবুকে প্রকাশ করেন।

Developed By The IT-Zone