ঢাকামঙ্গলবার , ২৮ এপ্রিল ২০২০
আজকের সর্বশেষ সবখবর

মোবাইল কোর্ট করেন এক্সিকিউটিভ ম্যাজিস্ট্রেট। গণমাধ্যমে বিভ্রান্তি কেন?

অনলাইন এডিটর
এপ্রিল ২৮, ২০২০ ৬:৫১ অপরাহ্ণ
Link Copied!

এডভোকেট দেওয়ান ফেরদৌস আরা মুন্নী।। জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট কোর্টে যখন বিচার করা হয় বা কাউকে দন্ড দেওয়া হয় তখন পুলিশ বা র‍্যাব তদন্ত করে রিপোর্ট দেয়। আসামী ধরে, চালান দেয় বা আদালতের আদেশে কারাগারে প্রেরণ করে। কিন্তু জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট কোর্টকে কী এজন্য র‍্যাবের কোর্ট বা পুলিশের কোর্ট বলা যাবে? বা সংবাদে বলা যাবে “পুলিশের আদালতে” বা “র‍্যাবের আদালতে” দন্ড দেওয়া হয়েছে? বিচার করেন আদালত, রায় দেন আদালত, দন্ড আরোপ করেন বা খালাস দেন আদালত এবং আদালতের নামেই জুডিসিয়াল কার্যক্রম পরিচালিত হয়; বিচারিক কাজে সহায়তাকারী পেশকার, পিপি, জিআরও বা শৃঙখলা বাহিনী কারো নামে নয়।

ছবিঃ লেখিকা এডভোকেট দেওয়ান ফেরদৌস আরা মুন্নী এর ফাইল ছবি।

“মোবাইল কোর্ট”ও তেমনি একটি কোর্ট যার কার্যক্রম মোবাইল কোর্ট আইন ২০০৯ এর অধীনে পরিচালিত হয়। মোবাইল কোর্টের উদ্দেশ্য আইন শৃঙখলা রক্ষা ও অপরাধ প্রতিরোধ কার্যক্রমকে দক্ষতার সহিত সম্পাদন করা। উক্ত আইনের ধারা-৫ অনুযায়ী জেলা ম্যাজিস্ট্রেট কর্তৃক ক্ষমতাপ্রাপ্ত এক্সিকিউটিভ ম্যাজিস্ট্রেট জেলা বা মেট্রোপলিটন এলাকায় মোবাইল কোর্ট পরিচালনা করেন। অনেকে র‍্যাবে আইন কর্মকর্তা হিসেবে ডেপুটেশনে কর্মরত রয়েছেন। কিন্তু এক্সিকিউটিভ ম্যাজিস্ট্রেট হিসেবে মোবাইল কোর্ট পরিচালনার জন্য তিনি সংশ্লিষ্ট জেলা ম্যাজিস্ট্রেট তথা জেলাপ্রশাসকের নিকট দায়বদ্ধ এবং জেলা ম্যাজিস্ট্রেট তার আপীলেট অথরিটি। গণমাধ্যমে প্রায়ই দেখা যায় “র‍্যাবের মোবাইল কোর্ট”, মেট্রোপলিটন পুলিশের মোবাইল কোর্ট”। এগুলো ভুল শব্দ চয়ন ও ভুল ব্যাখ্যা। আসলে কোন বাহিনীর মোবাইল কোর্ট পরিচালনার এখতিয়ার নেই। শৃঙখলা বাহিনী অভিযান বা অপারেশন পরিচালনা করতে পারেন, মোবাইল কোর্ট পরিচালিত হয় এক্সিকিউটিভ ম্যাজিস্ট্রেট দ্বারা এবং তত্ত্বাবধান করেন বিজ্ঞ জেলা ম্যাজিস্ট্রেট। আইন এক্সিকিউটিভ ম্যাজিস্ট্রেটকে মোবাইল কোর্ট করার ক্ষমতা দিয়েছে। এক্সিকিউটিভ ম্যাজিস্ট্রেটের সম্মুখে কোন অপরাধ ঘটলে বা উদঘাটিত হলে নিজে ঘটনাস্থলে উপস্থিত থেকে অপরাধ তাৎক্ষনিক আমলে গ্রহণ করেন এবং অভিযুক্ত ব্যক্তির স্বীকারোক্তির ভিত্তিতে দোষী সাব্যস্ত করে দন্ড দেন। তবে, তিনি যদি দেখেন অপরাধটি গুরুতর এবং তার ক্ষমতা সীমায় দন্ড দেওয়া হলে তা যথোপযুক্ত হবেনা তখন তিনি নিয়মিত মামলা দায়েরের ব্যবস্থা করেন। আবার যদি মনে হয় অপরাধটি উচ্চতর আদালত বা সেশন কোর্ট বা বিশেষ ট্রাইবুনাল কর্তৃক বিচার্য তবে তিনি নিজে অপরাধের বিচার না করে এ বিষয়ে অভিযোগটি এজাহার হিসেবে গ্রহণ করবার জন্য স্থানীয় থানার ওসিকে আদেশ প্রদান করেন। এ আদেশ ওসি মানতে বাধ্য থাকেন।

মোবাইল কোর্টে এক্সিকিউটিভ ম্যাজিস্ট্রেটের রায়ের বিরূদ্ধে আপীল করতে হয় জেলা ম্যাজিস্ট্রেট তথা জেলাপ্রশাসকের নিকট। চীফ জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট বা চীফ মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেটের নিকট আপীল করার বিধান নেই। আবার জেলা ম্যাজিস্ট্রেটের আদেশের বিরূদ্ধে আপীল করা যাবে সংশ্লিষ্ট জেলা ও দায়রা জজের নিকট। কিন্তু মোবাইল কোর্ট পরিচালনাকারী এক্সিকিউটিভ ম্যাজিস্ট্রেটের রায়ের বিরূদ্ধে সরাসরি জেলা ও দায়রা জজের নিকট আপীল করার বিধান নেই।

মোবাইল কোর্ট আইন ২০০৯ এর ধারা-১২ অনুযায়ী পুলিশ বাহিনী, অন্যান্য আইন শৃঙখলা বাহিনী, র‍্যাবসহ সরকারি বিভিন্ন দপ্তর (যেমন: বিএসটিআই, বিআরটিএ, মাদক দ্রব্য নিয়ন্ত্রন অধিদপ্তর, প্রাণিসম্পদ অধিদপ্তর , সেনিটারি ইন্সপেক্টর প্রভৃতি) মোবাইল কোর্টকে সহায়তা প্রদানে বাধ্য। মোবাইল কোর্টের প্রয়োজনে যেকোন শৃঙখলা বাহিনীর সহায়তা চাওয়া হলে তা চাহিবা মাত্র প্রদানে সবাই বাধ্য থাকবে। তবে, শৃঙখলা বাহিনী বা কোন সরকারী দপ্তরের সহায়তা ছাড়াও এক্সিকিউটিভ ম্যাজিস্ট্রেট মোবাইল কোর্ট করতে পারেন। মুলত এক্সিকিউটিভ ম্যাজিস্ট্রেট কিভাবে মোবাইল কোর্ট করবেন, সে কাজে কার কার সহযোগিতা লাগবে বা সহায়তা নিবেন সেটা তিনিই ঠিক করেন। এক্সিকিউটিভ ম্যাজিস্ট্রেট কর্তৃক মোবাইল কোর্ট করার সময় শৃঙখলা বাহিনী ছাড়াও অন্যান্য সরকারী দপ্তরের কর্মকর্তা/কর্মচারীবৃন্দ উপস্থিত থাকেন কোর্টকে সহায়তার জন্য। তারা কেউ কোর্ট নয়, যেমন কোর্ট নয় জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট কোর্টের পেশকার, জিআরও বা পিপি। অভিযোগ আমলে নেওয়া, দন্ড দেওয়া কিংবা খালাস দেওয়ার ক্ষেত্রে এক্সিকিউটিভ ম্যাজিস্ট্রেট সম্পূর্ণ স্বাধীন এবং উপস্থিত কারো এ ব্যাপারে হস্তক্ষেপ করার কোন সুযোগ নেই। যদি শৃঙখলা বাহিনীর কোন কর্মকর্তার কোর্ট করার ক্ষমতা থাকতো, তাহলে মোবাইল কোর্ট করার প্রতিটি ক্ষেত্রে এক্সিকিউটিভ ম্যাজিস্ট্রেট রাখতে হয় কেন? উত্তর সহজ। মোবাইল কোর্ট মানেই এক্সিকিউটিভ ম্যাজিস্ট্রেট।এ নিয়ে ভুল বুঝাবুঝি বা বিভ্রান্তির সুযোগ নেই। বিষয়টি আইনে স্পষ্ট। তাই যদি বলা হয় শৃঙ্খলা বাহিনী বা সহায়তাকারী দপ্তরের কর্মকর্তাবৃন্দ মোবাইল কোর্টের অংশ সেটাও ভুল। মোবাইল কোর্ট অখন্ড। এক্সিকিউটিভ ম্যাজিস্ট্রেট ব্যতীত বাকি সবাই আইনানুগভাবে কোর্টকে সহায়তা প্রদানকারী।

আরেকটি বিষয় হলো মোবাইল কোর্টের সহায়তাকারী সংগীয় ফোর্স বা অপর কোন কর্মকর্তা যত সিনিয়রই হোন নেতৃত্ব দেবেন ম্যাজিস্ট্রেট। কারন এক্সিকিউটিভ ম্যাজিস্ট্রেট মোবাইল কোর্টের প্রিজাইডিং অফিসার এবং কোর্ট সবার উপরে। এখানে ওয়ারেন্ট অব প্রিসিডেন্স কার্যকর নয়। উদাহরনস্বরূপঃ শুধু ওসি নয়, এমনকি এসপি বা র‍্যাবের ইউনিট কমান্ডারকেও যদি জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট কোর্টে কোর্ট কর্তৃক তলব করা হয়, তখন ম্যাজিস্ট্রেট গ্রেডে যত জুনিয়রই হোন তাঁকে সম্মানসূচক সম্বোধন করতে হয়, কেননা কোর্ট প্রিজাইড করেন জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট। যেকোন আদালত জজ বা ম্যাজিস্ট্রেটের নামেই পরিচিত ও পরিচালিত হয়। তেমনি এক্সিকিউটিভ ম্যাজিস্ট্রেট পরিচালিতমোবাইল কোর্টও এক্সিকিউটিভ ম্যাজিস্ট্রেটের নামেই পরিচিত হবে। তাই গণমাধ্যমে কোথাও মোবাইল কোর্টের সংবাদ দিতে হলে সঠিক শিরোনাম হওয়া উচিত “…. এক্সিকিউটিভ ম্যাজিস্ট্রেট কর্তৃক মোবাইল কোর্ট”।


বাংলাদেশ সুপ্রীম কোর্ট এর একজন আইনজীবি।

Developed By The IT-Zone