ঢাকাশুক্রবার , ১ মে ২০২০
আজকের সর্বশেষ সবখবর

মিরপুর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান সাইফুদ্দিনের বিরুদ্ধে ত্রাণ বিতরণে অনিয়মের অভিযোগ ॥ কারণ দর্শানোর নোটিশ

অনলাইন এডিটর
মে ১, ২০২০ ১:১০ পূর্বাহ্ণ
Link Copied!

তারেক হাবিব॥ দূর্নীতি ও স্বেচ্ছাচারিতার অভিযোগ উঠেছে বাহুবল উপজেলার মিরপুর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান মোঃ সাইফুদ্দিনের বিরুদ্ধে। ইতোপূর্বে নিজেকে বিসিএস ক্যাডার দাবী করলে ‘দৈনিক আমার হবিগঞ্জ’ এর অনুসন্ধানী টিমের তদন্তে কোন প্রমাণ উপস্থাপন করতে না পেরে অবশেষে ইউনিয়ন পরিষদের ওয়েবসাইট থেকে বিসিএস- ব্যাচ ২ লেখা মুছে দিয়েছেন তিনি।

সম্প্রতি করোনা ভাইরাসে লকডাউনের আটকে থাকা সাধারণ মানুষের জন্য সরকারের নির্ধারিত ত্রাণসামগ্রী অসহায় মানুষের মাঝে বিতরণ না করে নানান কৌশলে নিজেই আত্মসাত করার পায়তারা করেছেন বলে জানা গেছে। ত্রাণ না পেয়ে আবার কেউ কেউ তার বিরুদ্ধে বিক্ষোভও করেছেন। ত্রাণ বিতরণের তালিকায় এলাকার কোটিপতি থেকে শুরু করে জায়গা দিয়েছেন নিজের পরিবারের সদস্যদেরও। ত্রাণের তালিকা পর্যালোচনা করলে দেখা যায়, ৭ নং ক্রমিকে মিরপুর বাজারের বিলাশ ফ্যাশনের মালিক ও জয়পুর ৩নং ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক আরাধন, ১১নং ক্রমিকে ত্রাণ দেয়া হয়েছে মিরপুর বাজারের প্রতিষ্ঠিত ব্যবসায়ী কাশফুলের মালিক যুবলীগ নেতা এমরানকে, ৬ নং ক্রমিকে ত্রাণ পেয়েছেন মিষ্টি ব্যবসায়ী আওয়ামী লীগ নেতা ফরিদ, ১৪ নং ক্রমিকে পেয়েছেন শিল্পপতি মোগল কার্টুন ফ্যাক্টরীর মালিক ময়না মিয়া। ৭৮ নং ক্রমিকে পিয়ারা খাতুন চেয়ারম্যান সাইফুদ্দিনের শাশুড়ি, ২ নং ও ৬২ নং ক্রমিকে রিপন মিয়া তার শ্যালক, ৬৯ নং ক্রমিকে সমন্ধিকের স্ত্রী স্বপ্না আক্তার, ৭৯ নং ক্রমিকে শ্যালকের ছেলে হৃদয়।

চেয়ারম্যান সাইফুদ্দিনের ত্রাণ বিতরণের এককেন্দ্রিক কার্যক্রমে হতাশ হয়ে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেইসবুকে হতাশা প্রকাশ করতে দেখা গেছে অনেক ইউপি মেম্বারদের। গত ২৩ শে এপ্রিল শামীম আহমেদ নামে ২নং ওয়ার্ড সদস্য তার ফেইসবুক আইডি থেকে লিখেন, ‘‘করোনা ভাইরাসের প্রাদুর্ভাবে দেশের এই অস্থির সময়ে ছোটবড় ৪ টি গ্রামের মেম্বার হিসাবে চেয়ারম্যানের কাছ থেকে আজ পর্যন্ত মাত্র ১৫ জনের নাম পেয়েছি। প্রতিটি নামে দশ কেজি করে চাল। কিন্তু আমি আমার ব্যক্তিগত তহবিল থেকে প্রায় ৪’শ ৫০ জনকে ত্রাণ পৌঁছে দিয়েছি’’।

সাংবাদিক সিদ্দিকুর রহমান মাসুম তার ফেইসবুক আইডি থেকে লিখেন, ‘‘মিরপুর ইউনিয়নে ৭ দফায় ত্রাণ বিতরণের তালিকা-ত্রাণের তালিকায় রয়েছে শিল্পপতিদের নাম, রয়েছে জনপ্রতিনিধির নাম, রয়েছে ছেলে স্ত্রী শ্বাশুরীর নামও। পুরো ইউনিয়নের সব গ্রামের নামের লোকদের তালিকায় নাম না থাকলেও তালিকায় রয়েছে পার্শ্ববর্তী ভাদেশ্বর ইউনিয়নের বাসিন্দার নামও। নামের নিচে পিতার নাম, স্বামীর নাম, গ্রামের নামেও করা হয়েছে ঘষামাজা। বাড়ি ভাদেশ্বর হলেও দেখানো হয়েছে মিরপুর বাজার। সময়ের অপেক্ষায় বেরিয়ে আসবে বিভিন্ন খাতের তালিকা। রয়েছে সরকারী চাকুরীজীবির পিতার নামও। রয়েছে স্বামী স্ত্রীর নামও। তালিকায় নাম রয়েছে কিন্তু ত্রাণ পাননি। মিরপুর বাজারের মাত্র ১৮ ব্যবসায়ীর নামের তালিকা পাওয়া গেছে……………….”।

এ ব্যাপারে চেয়ারম্যান সাইফুদ্দিনের সাথে মোবাইল ফোনে যোগাযোগ করা হলে রাগান্বিত হয়ে বলেন, ‘‘আমি একজন চেয়ারম্যান, আপনার মত সাংবাদিক আমিও হতে পারি। পারলে আমার জায়গায় এসে নির্বাচন করে দেখান। ত্রাণ আমার প্রাপ্য, আমি যাকে খুশি দিতে পারি। এটা আমার ব্যাক্তিগত বিষয়’’।

বাহুবল উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা স্নিগ্ধা তালুকদার জানান, ত্রাণ বিতরণে অনিয়মের বিষয়টি প্রশাসনের নজরে আসার পর তাকে কারণ দর্শানোর নোটিশ প্রদান করা হয়েছে। আজ চেয়ারম্যান সাইফুদ্দিন কারণ দর্শানোর নোটিশের উত্তর দিয়েছেন। নোটিশের উত্তর পর্যালোচনা করে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহনের জন্য যথাযথ কর্তৃপক্ষকে জানানো হয়েছে।

Developed By The IT-Zone