ঢাকামঙ্গলবার , ৫ জুলাই ২০২২
আজকের সর্বশেষ সবখবর

মামলা ও কমিশন বাণিজ্যে ব্যস্ত অগ্রণী ব্যাংক হবিগঞ্জ শাখার ব্যবস্থাপক মাধব চন্দ্র রায়

স্টাফ রিপোর্টার
জুলাই ৫, ২০২২ ৬:০৬ অপরাহ্ণ
Link Copied!

অগ্রণী ব্যাংকর হবিগঞ্জ প্রধান শাখায় ম্যানেজার মাধব চন্দ্র রায়ের বিরুদ্ধে গ্রাহকদের সাথে দুর্ব্যবহার ও অসদাচারনের অভিযোগ পাওয়া গেছে। তার অসদাচারনের কারনে ব্যাংকের নিয়মিত গ্রাহকদের অনেকেই লেনদেন বন্ধ করে দিয়েছেন বলে জানা গেছে। গ্রাহক হয়রাণি ছাড়াও ঋণ গ্রহীতাদের কাছ থেকে কমিশন, সংশ্লিষ্ঠ আইনজীবিদের মামলা পাইয়ে দেয়ার নামে কমিশন, ভুয়া গ্রাহকদের ঋণ প্রদান, অবৈধ সম্পদ অর্জনের অভিযোগ রয়েছে তার বিরুদ্ধে।

দৈনিক আমার হবিগঞ্জের হাতে আসা একটি লিখিত অভিযোগ অনুসন্ধানে জানা যায়, ২০২১ সালের জুলাই মাসের ১ম সপ্তাহে হবিগঞ্জ অগ্রণী ব্যাংকের প্রধান শাখায় ব্যবস্থাপক হিসেবে যোগদান করেন তিনি। এর আগে মৌলভী বাজার জেলার মুন্সি বাজার শাখায় একই পদে একই অভিযোগে বিতর্কিত হয়েছিলেন তিনি।

অনুসন্ধানে আরও জানা যায়, মাধব চন্দ্র রায়ের দুর্ব্যবহার ও অসদাচারনের কারনে একাউন্ট বন্ধ করে দিয়েছেন অনেকেই। বিশেষ করে যাদের সিসি লোন আছে তাদেরকে ব্যাংকে টাকা জমা দিতেও বাধা দিচ্ছে, ফলে ব্যাংকে অনেকেই যেতে ভয় পাচ্ছেন।

প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষক ও দপ্তরী থেকে ঋণ প্রদান করে ঋণ কর্মকর্তা শামছুল আলমের মাধ্যমে আর্থিক সুবিধা লাভ করেন তিনি। শুধু তাই নয়, কোন কারণ ছাড়াই গত ১১ মাসে তিনি প্রায় অর্ধ শতাধিক মামলা দিয়েছেন ঋণ গ্রহিতাদের।

স্কাউটার সান্টু, যুবলীগ নেতা হিমশিম, মুক্তিযোদ্ধার সন্তান তৈয়ব আলীসহ অনেকের বিরুদ্ধে রয়েছে মামলা। নানা অনিয়মের পাশাপাশি কৌশলে অর্জন করেছেন অবৈধ সম্পদ। নামে বেনামে জেলা ও জেলার বাহিরে ক্রয় করেছেন জায়গা-জমি।

হবিগঞ্জ শহরের ঘাটিয়া বাজার এলাকায় তার স্ত্রী রিতা রায়ের নামে রয়েছে প্রায় ১০ কোটি টাকা দামের ৫তলা বিলাস বহুল ফ্ল্যাট বাড়ি যার (হোল্ডিং নং-২০৪৪/০১)। পুত্র রাজদ্বীপকে কানাডায় পাঠানোর জন্য জমা দিয়েছেন ২০ লাখ টাকা। অন্য পুত্র অন্তর রায়কে ঢাকাস্থ ডেপুডিল ইউনির্ভার সিটিতে ব্যয় বহুল কোর্স করিয়েছেন।

সম্প্রতি হবিগঞ্জ পৌরসভার মেয়র আতাউর রহমান সেলিমকেও কুটক্তি করেছেন তিনি। পৌর সভার একটি চেক আসলে সেখানে স্বাক্ষর সঠিক নয় বলে গালাগালি করেন হিসাব রক্ষণকারী মো. কামরুজ্জামানকে।

নাম প্রকাশ্যে ঋণ গ্রহীতা আরেক ব্যবসায়ি বলেন, ‘আমাকে ব্যাংকের ম্যানেজার মাধব চন্দ্র রায় অকথ্য ভাষায় গালিগালাজ করে ব্যাংক থেকে বের করে দিয়েছে। আমি ব্যাংক থেকে আমার একাউন্ট ক্লোজ করে নিয়েছি। তার ভয়ে বর্তমানে ব্যাংকে যেতে পারছি না। আমার মত অনেকেই ভয়ে ব্যাংকে যাওয়া বন্ধ করে দিয়েছে।

অগ্রণী ব্যাংকের সিলেট বিভাগীয় ব্যবস্থাপক রুবানা পারভীন জানান, অভিযোগ সত্য প্রচলিত বিধি অনুযায়ী তার বিরুদ্ধে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে। অভিযুক্ত মাধব চন্দ্র রায়ের অফিসিয়াল নাম্বারে যোগাযোগ করা হলে ব্যবহৃত মোবাইল নাম্বারটি বন্ধ পাওয়া যায়।

Developed By The IT-Zone