ঢাকারবিবার , ২৬ সেপ্টেম্বর ২০২১
আজকের সর্বশেষ সবখবর

মাধ্যমিক পর্যায়ে শিক্ষার্থীদের ইউনিক আইডি ভোগান্তিতে ছাত্র অভিভাবক

দৈনিক আমার হবিগঞ্জ
সেপ্টেম্বর ২৬, ২০২১ ৭:৩৯ অপরাহ্ণ
Link Copied!

জালাল উদ্দিন লস্করঃ
সরকারী সিদ্ধান্তে মাধ্যমিক পর্যায়ের শিক্ষার্থীদের ইউনিক আইডির প্রাথমিক কাজ শুরু হয়েছে।কিন্তু এ সংক্রান্ত প্রয়োজনীয় ডকুমন্ট যোগাড় করতে মাথার ঘাম পায়ে পড়ছে শিক্ষার্থী ও অভিভাবকদের। চরম ভোগান্তির শিকার হচ্ছেন তারা।
মাধবপুর উপজেলার ১১টি ইউনিয়ন ও পৌরসভা সদরে মোট ২৭টি মাধ্যমিক বিদ্যালয় ( স্কুল এন্ড কলেজ সহ) ও ৭টি দাখিল ও আলিম মাদ্রাসা রয়েছে। এসব প্রতিষ্টানে বর্তমানে ১৬ হাজার ৭৮৩ জন শিক্ষার্থী অধ্যয়নরত আছে।
মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা অধিদপ্তরের  এক সাম্প্রতিক সিদ্ধান্তে মাধ্যমিক পর্যায়ের সকল শিক্ষা প্রতিষ্টানের শিক্ষার্থীদের এখন থেকে ইউনিক আইডি নামের একটি আইডি থাকবে। এই আইডি নম্বর শিক্ষার্থীদের শিক্ষাজীবনের সর্বস্তরে অপরিবর্তিত থাকবে।
বিভিন্ন ক্লাসে আর আগের মতো পৃথক কোনো রোল নম্বর থাকবে না। সরকারের এই উদ্যোগকে প্রশংসনীয় ও যুগোপযোগী উল্লেখ করে নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক একটি মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক জানান,প্রয়োজনীয় অনেক ডকুমেন্ট সংগ্রহ করতে গিয়ে শিক্ষার্থীদের দূর্ভোগ বেড়েছে।
পঞ্চম শ্রেণীর সমাপনী পরীক্ষার সার্টিফিকেট এবং জন্ম নিবন্ধন সনদ ও পিতামাতার জাতীয় পরিচয়পত্রে দেওয়া নামে গড়মিলের কারনে এখন তাদের সেসব সংশোধনের জন্য বিভিন্ন ইউনিয়ন ডিজিটাল সেন্টারে দৌঁড়াতে হচ্ছে। এতে একই সাথে সময়ক্ষেপণ এবং বাড়তি খরচের ঝামেলা পোহাতে হচ্ছে শিক্ষার্থী ও তাদের অভিভাবকদের।
২২টি কম্পোনেন্টে তথ্য পূরণের মাধ্যমে ইউনিক আইডির ফরম পূরণের পর তা সংস্লিষ্ট বিভাগে পাঠানো হবে। নিখুঁত ও সুষ্টুভাবে ফরম পূরণ প্রক্রিয়া সম্পন্ন করার উদ্দেশ্যে ১০০ জন শিক্ষককে প্রশিক্ষণ দেওয়া হয়েছে।
মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার মোঃ আবুল হোসেন আমার হবিগঞ্জকে জানান,আমরা প্রত্যেক প্রতিষ্টানে ইউনিক আইডির প্রয়োজনীয় সংখ্যক ফরম পাঠিয়ে দিয়েছি। ইতোমধ্যে এ সংক্রান্ত প্রশিক্ষণও শেষ করা হয়েছে। উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের পরবর্তী নির্দেশনা অনুযায়ী বাকি কার্যক্রম শুরু হবে।

Developed By The IT-Zone