ঢাকাবুধবার , ১৪ সেপ্টেম্বর ২০২২
আজকের সর্বশেষ সবখবর

মাধবপুর জগদীশপুর যোগেশ চন্দ্র হাইস্কুল এন্ড কলেজে এনআইডি নাম্বার সংযুক্তির অনিশ্চয়তা

জালাল উদ্দিন লস্কর
সেপ্টেম্বর ১৪, ২০২২ ৯:৪৮ অপরাহ্ণ
Link Copied!

মাধবপুর উপজেলার ঐতিহ্যবাহী জগদীশপুর যোগেশচন্দ্র হাইস্কুল এন্ড কলেজ ২ মেয়াদে প্রায় ১ বছর ধরে এডহক কমিটির মাধ্যমে চলছে। অভিভাবকদের ভোটে কমিটি গঠনের উদ্যোগ না নেওয়ায় কমিটিতে অন্তর্ভুক্ত হতে আগ্রহী অনেকেই ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন।

অভিভাবক সদস্য নির্বাচনের লক্ষ্যে ভোটার তালিকার চূড়ান্ত অনুমোদনের পর এখন আবার তালিকায় অন্তর্ভুক্ত অভিভাবকদের এনআইডি নম্বর সংযুক্ত করার উদ্যোগ নেওয়ায় নির্বাচন বিলম্বিত হচ্ছে বলেও জানা গেছে।

এদিকে শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের ভোটার তালিকায় অভিভাবকদের এনআইডি নম্বর সংযুক্তির উদ্যোগে অনেকেই বিস্ময় প্রকাশ করে বলেছেন এটা নজিরবিহীন।

তবে সংস্লিষ্ট প্রিসাইডিং অফিসার জানিয়েছেন নির্বাচনে স্বচ্ছতার বিষয়টিতে প্রাধান্য দিতে গিয়েই ভোটার তালিকায় এনআইডি নম্বর অন্তর্ভুক্তির সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে।

বিভিন্ন সূত্রে এবং প্রতিষ্ঠানের ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষের সাথে কথা বলে জানা গেছে. আগামী ২৭ অক্টোবর বর্তমান এডহক কমিটির মেয়াদ শেষ হয়ে যাবে। মেয়াদ শেষের আগেই নির্বাচন অনুষ্ঠান আয়োজনের রীতি থাকলেও আগামী ১৫ সেপ্টেম্বর থেকে আরম্ভ হতে যাওয়া এসএসসি পরীক্ষার কারনে নির্ধারিত সময়ে নির্বাচন করা সম্ভব হবে না।

গত ২৫ জুলাই যথাসময়ে নির্বাচনের আয়োজন করার উদ্দেশ্যে ভোটার তালিকা চূড়ান্তভাবে অনুমোদন করেন ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ মোঃ নুরুল্লাহ ভুইয়া।পরে ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষের ২ আগস্ট তারিখের আবেদনের প্রেক্ষিতে হবিগঞ্জের জেলা প্রশাসক উপজেলা শিক্ষা অফিসার ছিদ্দিকুর রহমানকে প্রিসাইডিং অফিসার হিসাবে নিয়োজিত করেন।

প্রিসাইডিং অফিসার ছিদ্দিকুর রহমান স্বচ্ছ ও অবাধ নির্বাচন নিশ্চিত করার লক্ষ্যে ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষকে দেওয়া এক পত্রে (স্মারক নং ৩৮.০১.৩৬৭১.০০০.৯৯.০০৮.২২.৩৬৫.তারিখঃ২৩/৮/২০২২) প্রত্যেক শিক্ষার্থীর বিপরীতে ভোটারের নামের পাশে ভোটারের জাতীয় পরিচয়পত্র নম্বর সংযুক্ত করতে নির্দেশনা প্রদান করেন।

উল্লেখিত পত্র প্রাপ্তির পর ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ এক নোটিশের মাধ্যমে ২৮ আগস্ট তারিখের মধ্যে ভোটারদের জাতীয় পরিচয়পত্র নম্বর(এনআইডি) স্ব স্ব শ্রেণীশিক্ষকের নিকট জমা দিতে সংস্লিষ্ট সবাইকে অবগত করেন। পরবর্তীতে ৪ সেপ্টেম্বর এনআইডি নম্বর সংযুক্ত ভোটার তালিকা প্রিসাইডিং অফিসারের কাছে জমা দেন ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ।

প্রিসাইডিং অফিসার ও উপজেলা শিক্ষা অফিসার ছিদ্দিকুর রহমান এনআইডি নম্বরযুক্ত ভোটার তালিকা পাওয়ার কথা নিশ্চিত করেছেন। তবে নির্ধারিত সময়সীমার মধ্যে মোট ২ হাজার ৪৩৭ জন ভোটারের মধ্যে শতকরা ৮০ ভাগের মতো এনআইডি নম্বর সংগ্রহ করতে পেরেছেন বলে জানিয়েছেন ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ মোঃ নুরুল্লাহ ভুইয়া।

বাকি ২০ ভাগ ভোটার কিভাবে অভিভাবক প্রতিনিধি নির্বাচনে তাদের ভোটাধিকার প্রয়োগ করবেন জানতে চাইলে ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ বলেন প্রিসাইডিং অফিসার যেভাবে ভালো মনে করবেন সেভাবেই সিদ্ধান্ত নেবেন।

একই প্রশ্নে প্রিসাইডিং অফিসার ছিদ্দিকুর রহমান কয়েকদিন আগে জানিয়েছিলেন ভোটার তালিকায় যাদের এনআইডি নম্বর সংযুক্ত করা সম্ভব হয়নি তারা ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষের প্রত্যয়ন সাপেক্ষে ভোট দিতে পারবেন।

১৫ সেপ্টেম্বর থেকে শুরু হওয়া এসএসসি পরীক্ষা শেষ হওয়ার পর নির্বাচনী তফশীল ঘোষণা করা হতে পারে বলেও তিনি জানিয়েছিলেন।

এদিকে গত রবিবার(১১সেপ্টেম্বর) প্রিসাইডিং অফিসার ও উপজেলা শিক্ষা অফিসার ছিদ্দিকুর রহমান জগদীশপুর যোগেশ চন্দ্র হাইস্কুল এন্ড কলেজ গভর্নিং বডির এড হক কমিটির সভাপতি ও মাধবপুর উপজেলা নির্বাহী অফিসার শেখ মঈনুল ইসলাম মঈন বরাবরে প্রেরিত এক পত্রে(স্মারক নং ৩৮.০১.৩৬৭১.০০৩.০২.৪৩.২২.৪০৭(৩) তারিখ ১১/৯/২০২২) জানিয়েছেন,ইতোমধ্যে ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ মারফত ২ হাজার ৪৩৭ জন ভোটারের যে তালিকা তার হস্তগত হয়েছে তাতে মোট ১ হাজার ৯১৯ জনের এনআইডি নম্বর সংযুক্ত করা হয়েছে।

এতে সংগ্রহ করতে না পারায় এখন পর্যন্ত ৫১৮ জন ভোটারের এনআইডি নম্বর সংযুক্ত করা হয়নি। এসব ভোটারের এনআইডি নম্বর সংগ্রহের ব্যাপারে ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ সংশয় প্রকাশ করেছেন জানিয়ে প্রিসাইডিং অফিসার ছিদ্দিকুর রহমান ইউএনওর কাছে পাঠানো পত্রে উল্লেখ করেছেন যে সব ভোটারের এনআইডি নম্বর পাওয়া যাবে না তাদের ভোট প্রদানের সুযোগ দেওয়া সম্ভব নয় বলে তিনি মনে করেন।

একইসাথে অবশিষ্ট এনআইডি নম্বর সংগ্রহের জন্য ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষকেও অনুরোধ জানিয়েছেন তিনি। এই চিঠির অনুলিপি হবিগঞ্জের জেলা প্রশাসক ও ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষকেও দেওয়া হয়েছে।

এই চিঠির প্রেক্ষিতে জগদীশপুর যোগেশ চন্দ্র হাইস্কুল এন্ড কলেজের ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ মোঃ নুরুল্লাহ ভুইয়া প্রতিষ্টানের ফেসবুক পেইজে প্রদত্ত এক নোটিশে আগামী ১৭ সেপ্টেম্বরের মধ্যে বাদপড়া ভোটারদের এনআইডি নম্বর প্রতিষ্ঠানের দায়িত্বপ্রাপ্তদের কাছে জমা দিতে অনুরোধ করেছেন।

নির্ধারিত সময়ের মধ্যে জমা দিতে ব্যর্থ হলে উদ্ভুত পরিস্থিতির জন্য প্রতিষ্ঠান কর্তৃপক্ষ দায়ী থাকবে না বলেও উল্লেখ করা হয়েছে এ নোটিশে।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে এর আগে মাধবপুর উপজেলার কোনো মাধ্যমিক শিক্ষা প্রতিষ্টানে ম্যানেজিং কমিটি কিংবা গভর্নিং বডির নির্বাচনে এভাবে ভোটারদের এনআইডি নম্বর চাওয়া হয়নি।

মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা অধিদপ্তরের নিয়ন্ত্রনাধীন একটি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের নির্বাচন পরিচালনার দায়িত্ব উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার(ইউএসইও) এর পরিবর্তে কেন উপজেলা শিক্ষা অফিসারকে (ইউইও) দেওয়া হলো সে প্রশ্নও তুলেছেন কেউ কেউ।

এসব বিষয়ে জানতে হবিগঞ্জের জেলা প্রশাসক ইশরাত জাহানের সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি জানান নিয়মের মধ্যেই সবকিছু করা হচ্ছে।

Developed By The IT-Zone